সকল চক্রান্ত রুখতে ১৪ দলের বিকল্প নেই

প্রকাশ:| শনিবার, ২৯ আগস্ট , ২০১৫ সময় ১০:০২ অপরাহ্ণ

১৪ দল মহিউদ্দিন

চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় সভাপতির ভাষণে আলহাজ্ব এ.বি.এম মহিউদ্দিন চৌধুরী বলেছেন, ১৪ দলকে সুসংহত ও সংঘবদ্ধ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বিরুদ্ধে যে চক্রান্ত চলছে তাঁর অবশ্যই প্রতিহত করতে হবে। তাই ১৪ দল- চট্টগ্রাম ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার দ্রুত বিচার নিষ্পত্তি ও জড়িতদের সর্বোচ্চ শান্তি নিশ্চিত করতে এই চট্টগ্রাম থেকেই তীব্র আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে।
আজ বিকেলে নগরীর প্রিয়া কমিউনিটি সেন্টারে অনুষ্ঠিত বর্ধিত সভায় তিনি আরো বলেন, চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগ স্বাধীনতার সপক্ষের শক্তিকে সাথে নিয়ে সব সময় রাজপথে ছিল আছে এবং থাকবেই। তাই গণমুখী এই অবস্থানকে উত্তরোত্তর শক্তিশালী করতে হবে। মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সিটি মেয়র আ.জ.ম নাছির উদ্দীন বলেন, বর্তমান সরকারের সাফল্য অর্জন অনেক। জাতির অর্থনৈতিক অগ্রগতি রোল মডেলে পরিণত হয়েছে এবং দেশ আজ উন্নয়নের মহাসড়কে ধাবমান। তিনি সরকারের সাফল্য দলীয় লক্ষ্য ও উদ্দেশ্যে মানুষের ঘরে ঘরে পৌছে দিতে নেতা কর্মীদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেন, আমাদের রাজনীতি হবে জনকল্যাণমুখী এবং জনসম্পৃক্তাই আমাদের শক্তি। এই শক্তির ভিত্তিকে গভীরে প্রোথিত করতে দলীয় শৃঙ্খলা, ঐক্য বাজিয়ে রেলে পারস্পরিক আস্থা ও বিশ্ববাসের আবহ সৃষ্টি করতে হবে। তিনি আগামীকাল ১৪ দল চট্টগ্রাম ঘোষিত প্রেস ক্লাব থেকে লালদিঘী ময়দান পর্যন্ত মানববন্ধন কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করার জন্য দলের সর্বস্তরের নেতা কর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান।
চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পদাক এড. শেখ ইফতেখার সাইমুল চৌধুরীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত বর্ধিত সভায় আরো বক্তব্য রাখেন মহানগর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী, আলহাজ্ব নঈম উদ্দিন চৌধুলী, এড. সুনীল কুমার সরকার, এম.জহিরুল আলম দোভাষ, আলতাফ হোসেন চৌধুরী বাচ্চু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এম.রেজাউল করিম চৌধুরী, আলহাজ্ব বদিউল আলম, সাংগঠনিক সম্পাদক নোমান আল মাহমুদ, শফিক আদনান, চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনী, সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য চন্দন ধর, মশিউর রহমান চৌধুরী, হাজী জহুর আহমদ, আবদুল আহাদ, লায়ন মোহাম্মদ হোসেন, ডা. ফয়সাল ইকবাল চৌধুরী, আলহাজ্ব দিদারুল আলম চৌধুরী, জোবাইয়াদা নার্গিস খান, ইঞ্জিনিয়ার মানস রক্ষিত, শহীদুল আলম, জহর লাল হাজারী, কার্যনির্বাহী সদস্য আবুল মনসুর. গৌরাঙ্গ চন্দ্র ঘোষ, মহব্বত আলী খান, বখতেয়ার উদ্দিন খান, সৈয়দ আমিনুল হক, নুরুল আলম, অমল মিত্র, নুরুল আবছার মিয়া, সাইফুদ্দিন খালেদ বাহার, আবদুল লতিফ টিপু, আলহাজ্ব পেয়ার মোহাম্মদ, আহমেদ ইলিয়াস, জাফর আলম চৌধুরী, ইঞ্জি, বিজয় কিষাণ চৌধুরী, গাজী শফিউল আজিম, নেছার আহমদ মনজু, হাজী বেলাল আহমদ, থানা আওয়ামী লীগের জাহাঙ্গীর চৌধুরী সিইনসি স্পেশাল, আলহাজ্ব ফিরোজ আহমদ, মোজাহেরুল ইসলাম চৌধুরী, সুলতান আহমদ চৌধুরী, কাজী আলতাফ হোসন, শফিউল আলম ছগীর, আবু তাহের, মোমিনুল হক, এ.এস.এম ইসলাম, হারুনুর রশিদ, আবু তাহের, মহানগর শ্রমিক লীগের কাজী মাহবুবুল হক চৌধুরী এটলী, মহানগর যুবলীগের দেলোয়ার হোসেন খোকা, ফরিদ মাহমুদ, মাহবুবুল হক সুমন সহ ৪৪টি সাংগঠ্িনক ওয়ার্ড সহ সহযোগী সংগঠনের সভপতি, সাধারণ সম্পাদক, আহ্বায়ক, যুগ্ম আহ্বায়কগণ উপস্থিত ছিলেন।