সংশোধন বিল পাশে দুদকের কাজে গতি আসবে

প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ৯ জুন , ২০১৬ সময় ১০:০৩ অপরাহ্ণ

ইকবাল
দুর্নীতি দমন কমিশন (সংশোধন) বিল-২০১৬ জাতীয় সংসদে পাস করার মধ্য দিয়ে সাধারণ মানুষের প্রতারণা, অর্থ আত্মসাৎ ও জালিয়াতির মামলা তদন্তের দায়িত্ব ফের পুলিশের কাছে ন্যস্ত করা হয়েছে। এর ফলে দুদক তার নিজস্ব মামলাগুলো দ্রুত শেষ করতে পারবে জানিয়েছেন দুদক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ।

বৃহস্পতিবার (০৯ জুন) দুদকের প্রধান কার্যালয়ে দুদকের এই সংশোধন বিল-২০১৬ পাশ সম্পর্কিত প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে তিনি এসব কথা বলেন।

২০১৩ সালের ডিসেম্বরে এক সংশোধনীতে প্রতারণার অভিযোগে ৪২০ ধারার অপরাধ তদন্তের দায়িত্ব দুদকের ওপর বর্তায়। সেইসঙ্গে ব্যক্তিগত অর্থ আত্মসাৎ ও জালিয়াতি সংক্রান্ত মামলার ৪৬৭, ৪৬৮, ৪৬৯ ও ৪৭১ ধারার অপরাধ অন্তর্ভুক্ত ছিল। ২০১৩ সালের ডিসেম্বরের আগ পর্যন্ত এসব ধারার মামলাগুলোর তদন্ত করত পুলিশ এবং বিচার চলত হাকিম আদালতে।

পরে দুদকের জনবল অভাবের কারণে প্রতারণা ও জাল-জালিয়াতির মামলার তদন্তকাজ নিয়ে শুরু হয় অচলাবস্থা। সারা দেশে এরকম কত অভিযোগ দুদকে আটকে আছে সে বিষয়ে কোনো পরিসংখ্যান না থাকলেও রাজধানীর বিভিন্ন থানা থেকে তদন্তের জন্য দুদক কার্যালয়ে পাঠানো জাল-জালিয়াতির অভিযোগের সংখ্যা গত দুই বছরে ৫ হাজারের বেশি হতে পারে বলে জানা গেছে।

তাই এই সংশোধিত আইন পাশ হওয়ায় অনেকটা খুশি দুদক চেয়ারম্যান। তিনি বলেন, ‘আইন আবার তৈরি হয়েছে, আইন যেভাবেই হবে আমরা সেভাবেই চলবো। তবে এসব ধারায় যেসব মামলা ছিল সেগুলো কমবে। ফলে দুদক তার নিজস্ব মামলাগুলো আরো দ্রুত শেষ করার সক্ষমতা অর্জন করবে।’

এ বিষয়ে দুদক কমিশনার (তদন্ত) এ এফ এম আমিনুল ইসলাম বলেন, ‘নিঃসন্দেহে এটি আমাদের জন্য ভালো হবে। দু’একদিনের মধ্যে আমরা সভা করব। সেখানে কীভাবে মামলাগুলো রিটার্ন করা যায়, যেমন- কিছু মামলা থানা থেকে এসেছিল, কিছু মামলা কোর্ট থেকে এসেছিল সেই প্রক্রিয়া আমরা ঠিক করবো।’

বৃহস্পতিবার ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বী মিয়ার সভাপতিত্বে দশম জাতীয় সংসদের বাজেট অধিবেশনে পাস করা হয় দুর্নীতি দমন কমিশন (সংশোধন) বিল-২০১৬। এর আগে সংসদকার্যে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের দায়িত্বে নিয়োজিত কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী বিলটি পাসের প্রস্তাব করেন।

বিলটি পাস হওয়ায় সরকারি সম্পত্তি সম্পর্কিত এবং সরকারি ও ব্যাংকের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের দায়িত্ব পালন সংক্রান্ত প্রতারণা বা জালিয়াতি মামলা ছাড়া অন্যান্য প্রতারণা ও জালিয়াতি মামলার দায়িত্ব পুলিশ পাবে। সরকারি সম্পত্তি এবং সরকারি ও ব্যাংক কর্মকর্তা-কর্মচারীদের দায়িত্ব পালন সংক্রান্ত প্রতারণা ও জালিয়াতির মামলার ভার দুদকের হাতেই রাখার বিধান রাখা হয়েছে।