শের আলীর জন্য প্রেসিডেন্ট পুলিশ পদকের সুপারিশ

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ১৩ ডিসেম্বর , ২০১৬ সময় ০৯:১৮ অপরাহ্ণ

মনবীয় গুণের অধিকারি পুলিশ কনস্টেবল শের আলীর জন্য প্রেসিডেন্ট পুলিশ পদকের (পিপিএম) জন্য সুপারিশ করছেন সিএমপি কমিশনার মো.ইকবাল বাহার।

বুধবার (১৪ ডিসেম্বর) সুপারিশের চিঠি পুলিশ সদর দপ্তরে পাঠানো হবে বলে জানিয়েছেন সিএমপি কমিশনার।

মঙ্গলবার সিএমপির কমিশনারসহ উর্দ্ধতন কর্মকর্তারা বৈঠকে বসে শের আলীর জন্য পিপিএম’র সুপারিশ ‍পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেন।

পুলিশ কনস্টেবল শের আলী চট্টগ্রাম নগর পুলিশের গোয়েন্দা ইউনিটের উত্তর-দক্ষিণ বিভাগের বোমা নিষ্ক্রিয়করণ ইউনিটে কর্মরত আছেন।  তার কনস্টেবল নম্বর ২৫৪৬।

সিএমপি কমিশনার মো.ইকবাল বাহার বলেন, শের আলীকে প্রেসিডেন্ট পুলিশ মেডেল দেয়ার জন্য সুপারিশ করছি।  কাল (বুধবার) চিঠি পাঠাব।  জানুয়ারিতে পুলিশ সপ্তাহ উপলক্ষে যেন তাকে পিপিএম দেয়া হয় সেই অনুরোধ আমি করব।

গুরুত্বপূর্ণ মামলার রহস্য উদঘাটন, অপরাধ নিয়ন্ত্রণ, দক্ষতা, কর্তব্যনিষ্ঠা, সততা ও শৃঙ্খলামূলক আচরণের মাধ্যমে প্রশংসনীয় অবদানের জন্য প্রতিবছর প্রেসিডেন্ট পুলিশ পদক (পিপিএম) দেয়া হয়।

নগর গোয়েন্দা পুলিশের উপ কমিশনার (উত্তর-দক্ষিণ) পরিতোষ ঘোষ বলেন, শের আলী পুলিশ ডিপার্টমেন্টের মাথা উঁচু করেছেন।  তিনি পুলিশ বাহিনীর গর্ব।  মানবিকতাবোধ থেকে তিনি একটি শিশুকে বাঁচানোর জন্য যেভাবে ছুটে গেছেন তাতে আমরা গর্বিত।  আমরা গোয়েন্দা ইউনিট থেকে তাকে পুরস্কৃত করার একটি প্রস্তাব কমিশনার স্যারকে দিয়েছি।  স্যার তাৎক্ষণিকভাবে বিষয়টি চূড়ান্ত করেছেন।

কনস্টেবল শের আলী তিনদিনের ছুটিতে গ্রামের বাড়ি কক্সবাজার জেলার রামু উপজেলার রশিদনগর ইউনিয়নের পানিরছড়া গ্রামে গিয়েছিলেন।  রোববার (১১ ডিসেম্বর) দুপুরে চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের রামু উপজেলার পানিরছড়া এলাকায় শের আলীর বাড়ির কাছাকাছি এলাকায় বাস উল্টে নিহত হন চারজন।  একই দুর্ঘটনায় আহত হন কমপক্ষে ২৩ জন।

শের আলী বাঁচার জন্য আর্তনাদরত একটি পাঁচ বছরের শিশুকে বাসের ভেতর থেকে বের করে দ্রুত হাসপাতালে নেন।  এসময় শিশুটিকে কোলে নিয়ে তার কান্নার ছবি ছড়িয়ে পড়ে ফেসবুকে।

ছুটি শেষে মঙ্গলবার (১৩ ডিসেম্বর) শের আলী কর্মস্থলে যোগ দিয়েছেন।  মানবিক এই কাজের জন্য নগর গোয়েন্দা পুলিশের উর্দ্ধতন কর্মকর্তাসহ সব সদস্য মিলে শের আলীকে ফুল দিয়ে অভিনন্দন জানান।


আরোও সংবাদ