শেখ হাসিনা যোগ্য রাষ্ট্র নেতা হিসেবে দেশে-বিদেশে স্বীকৃতি লাভ করেছেন

প্রকাশ:| রবিবার, ১৮ মে , ২০১৪ সময় ০৭:০৯ অপরাহ্ণ

স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালন উপলক্ষ্যে আয়োজিত সভায় চেমন আরা তৈয়ব

নগর প্রতিবেদক>>শেখ হাসিনা যোগ্য রাষ্ট্র নেতা হিসেবে দেশে-বিদেশে স্বীকৃতি লাভ করেছেন
সাবেক সংসদ সদস্য ও বিশিষ্ট আওয়ামী লীগনেত্রী বেগম চেমন আরা তৈয়ব বলেছেন, শেখ হাসিনা শুধু আমাদের দেশ বা আমাদের এই অঞ্চলেরই নন, গোটা বিশ্বেরই একজন বিশিষ্ট রাষ্ট্র নেতা হিসেবে দেশে-বিদেশে স্বীকৃতি লাভ করেছেন। তিনি তাঁর আদর্শ, পরিকল্পনা ও জীবনবোধের আলোকে বহু ক্ষেত্রে বৈপ্লবিক পরিবর্তন, সংস্কার সাধন এবং প্রয়োজনীয় উন্নয়ন সাধন করে বাংলাদেশকে বিশ্বে দিয়েছেন নতুন ভাবমূর্তি এবং অপার সম্ভাবনার এক দেশের গৌরবোজ্জ্বল পরিচিতি।
তিনি আরো বলেন, ১৯৮১ সালে শেখ হাসিনার আগমনে বাংলাদেশের রাজনীতিতে নতুন গতি সঞ্চারিত হয়। আওয়ামী লীগকে পুনর্গঠন ও পুনরুজ্জীবনে, এরশাদের সামরিক শাসনের অবসান ঘটিয়ে গণতান্ত্রিক ধারার পুনরাবর্তনের আন্দোলনে, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের মাধ্যমে নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন উত্তরণে এবং সংসদীয় পদ্ধতির সরকার ব্যবস্থা প্রবর্তনে তাঁর অবদান তরঙ্গশীর্ষে।
জননেত্রী শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে ‘স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উদ্যাপন পর্ষদ চট্টগ্রাম’র উদ্যোগে গতকাল ১৮ মে পাঁচলাইশস্থ ‘ডাব্লিউএসও ফাউন্ডেশন’ কার্যালয়ে আয়োজিত আলোচনা সভায় বেগম চেমন আরা তৈয়ব প্রধান আলোচকের বক্তব্যে এসব কথা বলেন। আলোচনা সভায় প্রধান বক্তা ছিলেন বঙ্গবন্ধু স্মারক গ্রন্থের সম্পাদক লেখক-সাংবাদিক শওকত বাঙালি।
শওকত বাঙালি তাঁর বক্তৃতায় বলেন, একুশে ফেব্র“য়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে ইউনোস্কোর স্বীকৃতি আদায়ে জননেত্রী শেখ হাসিনার অবদান চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে। তিনি মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন এবং বাংলাদেশের মূলধারার রাজনীতি ফিরিয়ে আনার ক্ষেত্রে যথাসাধ্য চেষ্টা করেছেন। পার্বত্য চট্টগ্রামে দীর্ঘ যুদ্ধাবস্থার অবসান ঘটিয়ে উপজাতীয় জনগোষ্ঠীর সাথে শান্তিচুক্তি করে তিনি বিশ্বের একজন শান্তিদূতের মতোই কাজ করেছেন।
তিনি আরো বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনাই বাঙালির আস্থার প্রতিক, আমাদের ভরসার ঠিকানা। শেখ হাসিনাকে চোখের মণি করে রেখে আমাদের বাংলাদেশকে রক্ষা করতে হবে।
স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উদ্যাপন পর্ষদ চট্টগ্রাম-এর আহবায়ক বিশিষ্ট আওয়ামী লীগনেত্রী ও রাউজান কণ্ঠ সম্পাদক শিরিন হকের সভাপতিত্বে অন্যদের মধ্যে আলোচনায় অংশ নেন-চেতনায় বঙ্গবন্ধু কাব্যগ্রন্থের কবি সাদিয়া সুলতানা, অধ্যাপিকা প্রিয়শ্রী চৌধুরী, শিক্ষিকা নিলুফার জাহান বেবী, অ্যাডভোকেট ফাহাদ খান, যুবলীগ নেতা মুনজুর হোসাইন, ছাত্রনেতা নূর মোহাম্মদ জুনু, সংস্কৃতিকর্মী দোয়েল বড়–য়া, স্বাগতা দাশ, রমেশ মজুমদার, সৈয়দা রিফাত সুলতানা রিনা, আলী আকবর বাবুল, নুরুল ফজল বুলবুল প্রমুখ।
সংস্কৃতির্মী শারমিন কচির পরিচালনায় অনুষ্ঠানে জননেত্রী শেখ হাসিনাকে নিবেদিত সংগীত পরিবেশন করেন বেতার ও টেলিভিশন শিল্পী মারিয়া শারমিন মুন্নী।