শেখ হাসিনা বাংলাদেশের একমাত্র পুরুষ

প্রকাশ:| শনিবার, ২২ আগস্ট , ২০১৫ সময় ১১:১৭ অপরাহ্ণ

প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বের ভূয়সী প্রশংসা করে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী ইয়াফেস ওসমান বলেছেন, ‘বাংলাদেশে একজনই পুরুষ আছেন। তিনি হচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রতি সপ্তাহে মন্ত্রী পরিষদ সভায় বসে আমরা সেটাই টের পাচ্ছি।’  বাকিরা ‘অন্যকিছু’ বলেও আত্মসমালোচনা করেন তিনি।

শনিবার বিকেলে রাজধানীর কাকরাইল আইডিইবি কাউন্সিল মিলনায়তনে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আইডিইবি আয়োজিত ‘বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা-প্রত্যাশা-প্রাপ্তি ও করণীয়’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এমন মন্তব্য করেন।

বক্তব্যের মাঝেই বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গবন্ধুর পরিবারের সদস্যদের নিয়ে স্বরচিত বেশ কয়েকটি কবিতা আবৃত্তি করে শোনান মন্ত্রী ইয়াফেস ওসমান।

মন্ত্রী আরো বলেন, ‘বাঙালির ইতিহাসে সবচেয়ে বড় প্রাপ্তি স্বাধীন বাংলাদেশ। যার স্থপতি ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। আজকে মন্ত্রী, সচিব, জেনারেল, শিক্ষাবিদ বা যে যার অবস্থানে পৌঁছার ক্ষেত্রে বঙ্গবন্ধুর অবদানই গুরুত্বপূর্ণ। তাই মত ও পথের পার্থক্য থাকলেও বঙ্গবন্ধুর কাছে সবাইকে ঋণী থাকতে হবে।’

শিক্ষাখাতে উন্নতি হচ্ছে, তবে পার্শ্ববর্তী দেশগুলোর সঙ্গে পাল্লা দিয়ে চলতে আরো বেশি গবেষণার পরামর্শ দিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘আইটি সেক্টরের উন্নতির মধ্য দিয়ে এখন শিক্ষার্থীরা চাকরি প্রত্যাশা করছে না, বরং চাকরি দেবার সৎ সাহস দেখাচ্ছে। আগামীতে শিক্ষা ব্যবস্থায় দক্ষতার উন্নয়ণ ও শিক্ষাকে সার্বজনীন করার ব্যাপারে শিক্ষকদের আরো বেশি গুরুত্ব দিয়ে ভাবা প্রয়োজন।’

সংগঠনের সভাপতি একেএমএ হামিদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন, ব্র্যাক ইন্টারন্যাশনালের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. মুহাম্মদ হারুন অর রশিদ, আইডিইবি’র উপদেষ্টা ও সাবেক সংসদ সদস্য এবিএম আনোয়ারুল হক, আইডিইবি’র সাধারণ সম্পাদক মো. শামসুর রহমান প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে বক্তারা বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠায় পুরো শিক্ষা ব্যবস্থাকে ভোকেশনালাইজড ও সার্বজনীন করার দাবি জানান। সেইসঙ্গে, জাতীয় জীবনের সর্বক্ষেত্রে নীতি, আদর্শের ভিত্তিতে দক্ষতা চর্চায় মনোযোগী হওয়াসহ শ্রমের মর্যাদা প্রতিষ্ঠায় যত্মবান হওয়ারও পরামর্শ দেন তারা।

বক্তারা বলেন, ১৬ কোটি মানুষের ৩২ কোটি হাতকে কর্মীর হাতে রূপান্তর ও দেশপ্রেমের আলোকে সেটি প্রয়োগ করার কোন বিকল্প নেই।


আরোও সংবাদ