শুরুতেই হোঁচট চট্টগ্রাম বিএনপি’র

প্রকাশ:| সোমবার, ৮ আগস্ট , ২০১৬ সময় ০৯:১০ অপরাহ্ণ

শাহাদাত-বক্কর ২মনোয়ার হোসেন: শুরুতেই হোঁচট খেল চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপি। কমিটি ঘোষণার পর নব নির্বাচিত সভাপতি ডা: শাহাদাত হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম বক্কর এর সবর্ধনার আড়ালে আজ বিকেলে নাসিম ভবনের যে শোডাউন হল তাতে বিএনপি নব নির্বাচিত সিনিয়র সহসভাপতি আবু সুফিয়ান অনুপস্থিত। আজ বিকেলে দুই নেতৃত্বের সমন্বয়ে প্রথম সভা কোন ধরনের ঝামেলা ছাড়াই শেষ হয়েছে। ৫ আগস্ট বিএনপি’র নতুন কমিটিতে আবদুল্লাহ আল নোমানের নাম না থাকা নিয়ে চট্টগ্রামের বিএনপি’র বৃহৎ একটি অংশ কার্যত নাখোশ। এ নিয়ে নোমান সমর্থিত কিছু সক্রিয় কর্মীদের মধ্যে তীব্র ক্ষোভ বিরাজ করছে। আজকের নাসিম ভবনের সভায় নোমান সমর্থিত কোন নেতাকর্মীকে দেখা যায় নি। সভায় বিএনপি’র কোন জষ্ঠ্যেনেতা উপস্থিত ছিলেন না। শুধুমাত্র নব নির্বাচিত সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক বক্তব্য রাখেন। নিজেকে নবীন পরিচয় দিয়ে আবুল হাশেম বক্কর চট্টগ্রাম নগর বিএনপি’র সাধারন সম্পদাক হওয়াকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে দেখছেন। তিনি বলেন, বয়সে আমরা নবীন হতে পারি, কিন্তু আন্দোলন-সংগ্রামের মধ্যে দিয়ে বেড়ে ওঠা আমাদের রাজনৈতিক জ্ঞান অনেক প্রবীণ।শাহাদাত-বক্কর ৩দীর্ঘদিন চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপি’তে সেশনজট বিরাজ করছে। গত এক দশক ধরে চট্টগ্রাম নগর বিএনপি’র পূর্ণাঙ্গ কমিটি নেই। এ দুর্নাম থেকে আমরা মুক্তি পেতে অচিরেই স্বল্প সময়ের মধ্যে সবাইকে নিয়ে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হবে। সভাপতি ডা: শাহাদাত বলেন, আওয়ামীলীগ সরকার বিএনপিকে দুর্বল করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। বিএনপি জনগণের দল। জনগণই বিএনপিকে বারবার ক্ষমতাই পাঠিয়েছে। বিএনপিকে দুর্বল করতে গিয়ে আওয়ামীলীগ নিজেই দুর্বল হয়ে পড়েছে। চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপি’র নবঘোষিত কমিটির সিনিয়র সহসভাপতি আবু সুফিয়ান আজকের সভায় না আসার কারণ জিজ্ঞেস করলে বলেন, আমি সভাপতির পদ চেয়েছিলাম, হঠাৎ করে ষোষিত কমিটিতে আমাকে সিনিয়র সহসভাপতি করা হয়েছে। দীর্ঘদিন এ দলের পিছনে ত্যাগ স্বীকার করেছি, জেল খেটেছি। অনেকের ডাবল প্রমোশন হলেও আমার ক্ষেত্রে হয় নি। আমি বর্তমানে আমার করণীয় নির্ধারণ করছি।


আরোও সংবাদ