শিশুদের নিজের মতো বেড়ে উঠার সুযোগ দিন

প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ১২ জানুয়ারি , ২০১৭ সময় ০৮:৩৯ অপরাহ্ণ

বিবেকানন্দ বিদ্যানিকেতন ও সংগীত নিকতনের বার্ষিক অনুষ্ঠানে বক্তাগণ

আজকের শিশুরা আগামী দিনের ভবিষ্যৎ, তাদের মনের আনন্দে বেড়ে উঠার সুযোগ করে দেওয়া। প্রতিদিন মা বাবা ও নাগরিকের মৌলিক দায়িত্ব। শিশুকে যাতে তারা বোঝা মনে না করে সেদিকে সকলের খেয়াল রাখা উচিত। শিশুদের সুপ্ত প্রতিভা বিকাশের একমাত্র উপায় হচ্ছে নিজেদের মতো খেলতে দেওয়া, পড়তে দেওয়া এবং সংস্কৃতিমনা করে গড়ে তোলা তাহলে সে মাথা উচু করে দাঁড়াতে পারবে। এবং আগামী দিনে দেশ ও দশের দায়িত্ব নিতে পারবে। আজ বিকেলে জে এম সেন হলে বিবেকানন্দ বিদ্যানিকেতন ও বিবেকানন্দ সংগীত নিকেতনের বার্ষিক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে চট্টগ্রাম জেলা সহকারী প্রথমিক শিক্ষা অফিসার হৃষিকেশ শীল, উপরোক্ত বক্তব্য রাখেন। পরিচালনা কমিটির সভাপতি দুলাল কান্তি মজুমদারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন চট্টগ্রাম রামকৃষ্ণ মিশন সেবাশ্রমের সহ-সভাপতি শ্রীমৎ স্বামী সুরবরান্দজী মহারাজ। স্বাগত বক্তব্য রাখেন পরিচালনা কমিটির সম্পাদক তাপস হোড়, বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ প্রফেসর রীতা দত্তের সঞ্চালনায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন চিত্রশিল্পী কানাই লাল মজুমদার, ভাসকর সুধীর মন্ডল, বিবেকানন্দ বিদ্যানিকেতনের অধ্যক্ষ নীলিমা বিশ্বাস ও বিবেকানন্দ সঙ্গীত নিকেতনের অধ্যক্ষ মানু মজুমদার প্রমুখ। দুপুর ২.৩০ টায় শতাধিক ছাত্র/ছাত্রীদের অংশগ্রহণে চিত্রাকংন প্রতিযোগীতা অনুষ্ঠিত হয়। চিত্রাংকণ প্রতিযোগীতায় ক বিভাগে ১ম হয়েছে- অদিতি রক্ষিত, ২য় হয়েছে শ্রেয়া দেওয়ানজী, ৩য় হয়েছে প্রাক্তোতি চক্রবর্তী, ও বিশেষ পুরস্কর পেয়েছে ঐলিকা পাল, খ বিভাগে ১ম স্নিগ্ধা দে শৈলী, ২য় হয়েছে অনুরাগ বড়–য়া, ৩য় হয়েছে আঞ্জুমান আকতার নিপা, বিশেষ পুরস্কার পেয়েছেন স্মিয়া বড়ুয়া, এছাড়া বিদ্যালায়ের বিগত বার্ষিক পরীক্ষায় ১ম রাজমান সেন, ২য় আফিয়া আনতারা, ৩য় চয়ন পাল, নাশারী শ্রেণীতে ১ম লাবন্য দাশ, ২য় অন্যান্য দাশগুপ্ত, ৩য় অপসরী চৌধুরী, কেজি শ্রেণীতে ১ম ঋত্বিকা চক্রবর্তী, ২য় বিক্রম পাল ও ৩য় দ্বীপরাজ গুপ্ত, ভাল ফলাফল করায় পুরস্কার প্রদান করা হয়। ২য় অদিবেশন বিকেল ৫টায় বিদ্যানিকেতন ও সঙ্গীত নিকেতনের ছাত্র/ছাত্রীদের পরিবেশনায় ছিল সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিচালনায় ছিলেন শিক্ষক শিক্ষার্থীবৃন্দ। অনুষ্ঠান শেষে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন প্রকৌশলী পরিমল কান্তি চৌধুরী ও বিকাশ মজুমদার।