শিল্প এলাকায় শ্রমিক দূর্ভোগ

নিউজচিটাগাং২৪/ এক্স প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ২ আগস্ট , ২০১৮ সময় ০৮:০৮ অপরাহ্ণ

ঢাকায় গাড়ী চাপায় নিহত দুই শিক্ষার্থীর মৃত্যু কে কেন্দ্র ছাত্র-ছাত্রীদের যৌক্তিক আন্দোলনের প্রতিবাদে গন পরিবহনে হঠাৎ বন্ধ করে দিলে বন্দর-ইপিজেড পতেঙ্গার বাসিন্দা সহ গার্মেন্টস শিল্প এলাকার নারী-পুরুষ শ্রমিকরা অবর্ণনিয় দূর্ভোগে পড়ে দীর্ঘ পথ পায়ে হেটে গন্তব্য স্থলে পৌছাতে দেখা গেছে।
বৃহস্পতিবার সকাল ১১টার দিকে নগরীর লালখান বাজার,টাইগারপাস, আগ্রাবাদ,এবং হালিশহর বড়পুল, বন্দরের সল্টগোলা ক্রসিং এলাকায় দফায় দফায় পুলিশ –ছাত্র’র সংর্ঘষ বাধলে চারদিকে আতংক ছড়িয়ে পড়লে ছোটছোট যান চলাচল ওপ্রায় বন্ধ হয়ে যাই।
এমনি তে সরকারের শিক্ষামন্ত্রী ঘোষিত সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় ছাত্র-ছাত্রীদের সড়কে আধিক্য না থাকলেও কোচিংও নিয়মিত প্রাইভেট ক্লাস থাকায় যারা রাস্তায় বেরিছেন তাদের উপর পুলিশিং নজর ছিল চোখে পড়ার মতো।
এদিকে বিকেলের দিকে গন পরিবহন মালিক-শ্রমিক যৌথ সভা করে বাস,মিনিবান,হিউম্যান হুলার, সিএনজি,টেম্পু চালকরা গাড়ি চলাতে গেলে আন্দোলন রত ছাত্রদের একটি অংশ বাধাঁ দিলে গন পরিবহন শ্রমিক,চালক-সহকারীদের আগ্রাবাদ,এবং হালিশহর বড়পুল, বন্দরের সল্টগোলা ক্রসিং এলাকায় দফায় দফায় পুলিশ –ছাত্র’র সংর্ঘষ বাধে।
ফলে আতংকে লোকজন দিক-বেদিক ছুটাছুটি করে।আর যান চলাচল বন্ধহয়ে বন্দর কাষ্টম থেকে ইপিজেড-পতেঙ্গার স্টিল মিলবাজার পর্যন্ত দীর্ঘ যানযটের সৃষ্টি হয়।গন পরিবহনে ধর্মঘট দিয়েছেন কিনা জানতে নিকটস্থ সিটি বাস মিনিবাস হিউম্যান হুলার সমিতির সভাপতি আব্দুল হাকিম ও কার্যকরী সদস্য রবিউল মাওলা কে জিজ্ঞেস করলে তারা জানান, আরমা কোন আন্দোলন দেই নি, ছাত্ররা আমাদের গাড়ী ভাংচুর করতে গেলে পুলিশ আর শ্রমিকরা প্রতিরোধ করার চেষ্টা করেছেন মাত্র। তবে আমাদের গাড়ী ওচালক-শ্রমিকদের উপর হামলা হলে ছাড় দিব কেন।
এই বিষয়ে ট্রাফিক বন্দর জোনের পুলিশের সাথে কথা বলতে চাইলে তারা কেউ সংবাদ মাধ্যম বা ছাত্র প্রতিনিধি কারো সাথে আলোচনা করতে চাই না বলে পরিস্কার জানিয়ে দেন।গত দিন পূর্বে ঢাকায় গাড়ী চাপায় নিহত দুই শিক্ষার্থীর মৃত্যু কে কেন্দ্র করে সারাদেশে ছাত্র আন্দোলন ছড়িয়ে পড়েছে।
একটি বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গেছে যে, ছাত্র-ছাত্রীদের যৌক্তিক আন্দোলনে নব-নির্বাচিত কেন্দ্রিয় ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দারা সংহতি প্রকাশ করে বিবৃতি দিয়েছেন বিভিন্ন গণমাধ্যমে।আন্দোলনে ছাত্ররা ৯টি যৌক্তিক দাবি জাতির মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী ও শিক্ষামন্ত্রী কাছে তুলে ধরেন। এই দাবি দ্রুত পূরণ না হলে ছাত্র-ছাত্রীরা লাগাতার ক্লাস বর্জন এবং আবারো সড়ক,রেল ওনৌ পথে লাগাতার অবরোধ ডাক দিবেন বলে সুত্রে জানাই।
এছাড়া গতকাল বুধবার(১আগস্ট)ইপিজেডস্থ বন্দরটিলায় সিএনজি ছাপায় গ্রীন ভিউ স্কুলে ৫ম শ্রেনীর ছা্ত্র সাজিব(১১) মারাত্মক আহত হয়ে চমেক হাসপাতালের জরুরী বিভাগে চিকিৎসাধীন হয়ে মৃত্যুর সাথে পাঞ্চা লড়ছেন বলে তার পরিবারের আত্মীয় রুবেল প্রতিবেদক কে জানান। সে স্থানীয় নয়াহাট(ওেয়াজ মুন্সি বাড়ীর) মোঃ সবুজের একমাত্র পুত্র বলে সংবাদে জানা গেছে।