শিল্পীর অক্লান্ত অধ্যাবসায়ের শৈল্পিক শিল্পকর্ম

প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ৬ এপ্রিল , ২০১৭ সময় ১১:২০ অপরাহ্ণ

প্রেম প্রকৃতির সঙ্গে যেখানে মিশে রয়েছে শিল্পীর গভীর উপলব্ধি। এক একটি শিল্পকর্ম যেন কাঠের বুকে জেগে ওঠা রক্তজবা।  খোদাইকৃত প্রতিটি চিত্রকর্মের সঙ্গে জুড়ে দেওয়া চরণগুলো দিয়েছে অন্যরকম এক অনুভূতি। এ যেন শিল্পীর অক্লান্ত অধ্যাবসায়ের শৈল্পিক শিল্পকর্ম।

তাই তো শিল্পী সুকান্ত চৌধুরী অনুভূক্তি ব্যক্ত করতে গিয়ে বলেন, ‘আমার কর্মই আমার ভাবনা, আমার চিন্তা, আমার অব্যক্ত কথামালার শৈল্পিক  স্বীকারোক্তি’।
বৃহস্পতিবার (৬ এপ্রিল) জেলা শিল্পকলা একাডেমির আর্ট গ্যালারিতে ৬ দিনব্যাপী এ প্রদর্শনীর উদ্বোধনী দিনে শিল্পী সুকান্ত চৌধুরীর ‘প্রেম প্রকৃতির খোদাইকাব্য’এমনি অনুভব জাগিয়েছে আগত দর্শনার্থীর কাছে।
শিল্পকলা একাডেমির অনিরুদ্ধ মুক্তমঞ্চে এ প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী বলেন, চট্টগ্রামে যা প্রয়োজন তা নেই। এখানে প্রয়োজন একটি আর্ট গ্যালারি। যা শিল্পচর্চার মাধ্যম হয়ে উঠবে। একটি আর্ট গ্যালারি তৈরি হলে শিল্পচর্চা আরো বিকশিত হবে। তাই মুসিলম হলকে কেন্দ্র করে আড়াইশ কোটি টাকা ব্যয়ে একটি কমপ্লেক্স তৈরি করার উদ্যোগ হাতে নেওয়া হচ্ছে। প্রতিটি বাড়ির প্রতিটি রুমে এক একটি শিল্পকর্ম থাকা অত্যাবশ্যক। যা মানুষের শৈল্পিক রুচির অভিব্যক্তি।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন ভাস্কর অলক রায় ও শিল্পী আহমেদ নেওয়াজ। এছাড়াও  সুব্রত বড়ুয়া রনি, অালিয়ঁস ফ্রঁসেজের গুরুপদ চক্রবর্তী উপস্থিত ছিলেন।
ভাস্কর অলক রায় বলেন, চিত্রকলা ও কাঠ খোদাইয়ের মিলন ঘটিয়ে দীর্ঘ সময় ধরে সুকান্ত চৌধুরী কাজ করে চলেছেন। তারই প্রয়াস এ শিল্পকর্ম। যা সকলের মন ছুয়েছে।
প্রদর্শনীতে ‘কোরক দ্যূতি’ ‘যে কুসুম চুমিল ভূতল আরি পাশে অলি জুটবে কি’ ‘এ কী লাবণ্য পূর্ণ প্রাণে’ শিরোনামে ৪০টি কাঠ খোদাই চিত্রকর্ম স্থান পেয়েছে।
১১ এপ্রিল পর্যন্ত বিকেল ৪টা থেকে রাত ৮টা প্রদর্শনীটি উন্মুক্ত থাকবে।