শিরোপা জিতেছে চট্টগ্রাম আবাহনী

প্রকাশ:| শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর , ২০১৫ সময় ১০:১৮ অপরাহ্ণ

শক্তিশালী ভারতীয় ক্লাব ইস্টবেঙ্গলকে হারিয়ে শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্লাব কাপের প্রথম আসরের শিরোপা জিতেছে চট্টগ্রাম আবাহনী।

Screenshot_46শুক্রবার চট্টগ্রামের এমএ আজিজ স্টেডিয়ামে কলকাতার ঐতিহ্যবাহী দলটির বিপক্ষে পিছিয়ে পড়েও ৩-১ গোলে জেতে স্বাগতিকরা।

আয়োজক হিসাবে সফলই চট্টগ্রাম আবাহনী। সফল আয়োজন, সঙ্গে শিরোপাও করায়ত্ত করল তারা। ফাইনালে জয়ের নায়ক নাইজেরিয়ান ফরোয়ার্ড এলিটা কিংসলে। তিনি করেছেন জোড়া গোল। বাকিটা হেমন্ত ভিনসেন্ট বিশ্বাস। এই গোলের যোগানদাতা আবার কিংসলেই।

ম্যাচে তুমুল উত্তেজনা ছিল প্রথম থেকেই। তবে প্রথম লিড নেয় ভারতীয় ক্লাব ইস্ট বেঙ্গল। ১১ মিনিটে পাল্টা আক্রমণে গোল করে সফরকারীরা। আবাহনীর বক্সে ইস্ট বেঙ্গলের ডিফেন্ডার অভিনব বাগের শট রেজাউল রেজার মাথায় লেগে গতিপথ বদলে জড়ায় জালে। প্রাণপণ ঝাঁপিয়ে পড়েও বলটি রুখতে পারেননি চট্টগ্রাম আবাহনীর গোলরক্ষক রাসেল মাহমুদ লিটন। ১-০তে এগিয়ে যায় পশ্চিম বাংলার ক্লাবটি।

এরপর ম্যাচে ফিরতে মরিয়া হয়ে ওঠে চট্টগ্রাম আবাহনী। এর মধ্যে কয়েকটি গোলের সুযোগও নষ্ট করে তারা। ৩০ মিনিটে জাহিদের ফ্রিক কিক বাঁক খেয়ে গোলপোস্টে ঢোকার মুহূর্তে ইস্ট বেঙ্গলের গোলরক্ষক দিবেন্দ্যু সরকার কর্নারের বিনিময়ে রক্ষা করেন। এর মিনিট খানেক পর হেমন্তের দূরপাল্লার তীব্রগতির শট চলে যায় পোস্ট কাপিয়ে।

৩৫ মিনিটে আবাহনীর মিঠুন কর্নার করেন। প্রতিপক্ষের এক ডিফেন্ডারের মাথায় লেগে সেই বল চলে যায় হেমন্তর পায়ে। তার গড়ানো শটটি লক্ষ্যভ্রষ্ট হলে গোল শোধের সুযোগ হারায় চট্টলার দলটি। এর মিনিট আটেক পর ইস্ট বেঙ্গলের সীমানার বা প্রান্তে বল পান জাহিদ। তিনি ডান পায়ের বাঁক খাওয়ানো শট নেন। সেটা দিব্যেন্দু কোনমতে ঠেকিয়ে রক্ষা করেন দলকে।

তবে প্রথমার্ধের অতিরিক্ত সময়ে পাল্টা আক্রমণে চট্টগ্রাম আবাহনীকে স্বস্তি উপহার দেন নাইজেরিয়ান ফরোয়ার্ড এলিটা কিংসলে। বা প্রান্ত থেকে মিঠুনের বাঁকানো ক্রসে দুর্দান্ত হেড লক্ষ্যভেদ করেন কিংসলে। উল্লাসে কেঁপে ওঠে গ্যালারি। ১-১ ব্যবধানে সমতা আনে স্বাগতিক শিবির।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকেই আক্রমণে যায় চট্টগ্রাম আবাহনী। তার ফলও তারা পেয়ে যায় ৫৪ মিনিটে। ডান প্রান্ত থেকে জাহিদের গড়ানো ফ্রি কিকে গোল করে দলকে ২-১ ব্যবধানে লিড এনে দেন এলিটা কিংসলে। এর মিনিট দুয়েক পর আবারো স্বাগতিক শিবিরে উল্লাস। এবার হেমন্ত। এলিটার লম্বা পাসে গোল করেন হেমন্ত। চট্টগ্রাম আবাহনী এগিয়ে যায় ৩-১ ব্যবধানে।

শেষ পর্যন্ত গোল শোধের জন্য অনেক চেষ্টাই করেছে ইস্ট বেঙ্গল। কিন্তু পারেনি। আর তাই শেষ বাশি বাজার পর শিরোপা জয়ের উল্লাসে ফেটে পড়ে চট্টগ্রাম আবাহনী শিবির। গ্যালারীও তখন উৎসবে মাতোয়ারা।