শিপইয়ার্ডে পরিবেশ রক্ষা বিষয়ক উচ্চপর্যায়ের কর্মশালা সম্পন্ন

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি , ২০১৭ সময় ০৯:৩৫ অপরাহ্ণ

জাহাজ ভাঙা শিল্পের উন্নয়নে ও এ শিল্পের দ্বারা পরিবেশ দূষণ থেকে রক্ষার জন্য নেওয়া এসইএনএসআরইসি প্রকল্পের প্রথম ফেজ সমাপ্ত হয়েছে। সোমবার বিকেলে ঢাকার রেডিসন হোটেলে ‘সেইফ এন্ড এনভায়রমেন্টালি সাইন্ডশিপ রিসাইক্লিন ইন বাংলাদেশ (এসইএনএসআরইসি)’ শীর্ষক এ প্রকল্পের সমাপনী অনুষ্ঠিত হয়।

কর্মশালায় প্রধান অতিথি ছিলেন শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু। শিল্প মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মিস পরাগের সভাপতিত্বে এতে অতিথি ছিলেন বাংলাদেশে নিযুক্ত নরওয়ের রাষ্ট্রদুত মিস.সিদসেল ব্লেকেন, বিএসবিআরএ এর পক্ষে বৈদেশিক বিষয়ক সম্পাদক ও পিএইচপি শিপইয়ার্ডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম রিংকু, আইএমও ডাইরেক্টর ড.স্টিফেন মেকলেফ, আইএমও আইটিপিসি ড. জোস মেথেক্যাল, ব্রাসেল কনভেনশনের প্রোগ্রাম অফিসার মিস সোসান উইন্ডফিল্ড প্রমুখ।

শিল্প মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতায় বাংলাদেশ শিপ ব্রেকার্স এন্ড রিসাইক্লিং এসোসিয়েশান (বিএসআরবিএ), ইন্টারন্যাশনাল মেরিটাইম অর্গানাইজেশন (আইএমও), বিআরএস, নওরোজিয়ান ডেভেলপম্যান্ট অথরিটি (নোরাড), দাতা সংস্থা ইউনিডো এ কর্মশালার আয়োজন করে।

এসইএনএসআরইসি প্রকল্পের আওতায় শিপইয়ার্ডগুলোতে কর্মরতদের প্রশিক্ষণ ও অবকাঠামোগত উন্নয়ন করা হবে। যাতে তারা পরিবেশের ক্ষতিকারক উপাদানসমূহ পরিবেশের ক্ষতি ছাড়া নিরাপদে ধ্বংস করতে পারে। প্রকল্পের দ্বিতীয় ধাপে নরওয়ে সরকার এক মিলিয়ন ডলার অনুদান প্রদান করবে যার দ্বারা বাকি কাজগুলো সমাপ্ত করা যায়।

প্রকল্পের বরাদ্দ ধরা হয়েছে প্রাথমিকভাবে ৫০ কোটি টাকা। পর্যায়ক্রমে এ খাতে ২০০ কোটি টাকার প্রকল্প হাতে নেওয়া হবে। সব মিলিয়ে শিপ রিসাইক্লিং সেক্টরে বড় ধরনের কর্মকাণ্ড চলমান রয়েছে। ইতোমধ্যে পিএইচপি ফ্যামিলি তাদের শিপইয়ার্ডকে বড় ধরনের ব্যয় করে নবরূপে সংস্কার করেছে। দাতা সংস্থাগুলো ইয়ার্ডটিকে উন্নয়নের মডেল হিসেবে আখ্যায়িত করে এর আদলে অন্য শিপইয়ার্ডগুলোকে সংস্কার করার আহবান জানিয়েছে।