‘শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কোন ধরনের অনিয়ম বিশৃঙ্খলা সহ্য করা হবে না’

প্রকাশ:| রবিবার, ৭ আগস্ট , ২০১৬ সময় ০৮:২১ অপরাহ্ণ

কেবিচট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন পরিচালিত পোস্তাপাড় আছমা খাতুন সিটি কর্পোরেশন মহিলা কলেজ, পোস্তাপাড় আছমা খাতুন সিটি কর্পোরেশন বালক উচ্চ বিদ্যালয়, ফতেয়াবাদ সিটি কর্পোরেশন বহুমুখি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ, গুল-এ-জার বেগম মুসলিম বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়,কুলগাঁও সিটি সিটি কর্পোরেশন উচ্চ বিদ্যালয়, বলুয়ারদিঘী সিটি কর্পোরেশন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, পাঠানটুলি সিটি কর্পোরেশন বালক উচ্চ বিদ্যালয়, হালিশহর আহমদ মিয়া সিটি কর্পোরেশন বালিক উচ্চ বিদ্যালয়, পূর্ব মাদারবাড়ী সিটি কর্পোরেশন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, দক্ষিণ পতেঙ্গা সিটি কর্পোরেশন উচ্চ বিদ্যালয় সহ ১০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের গভর্ণিং বডি ও স্কুল পরিচালনা কমিটির প্রথম সভা ৭ আগস্ট রবিবার বিকেলে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন কে বি আবদুচ ছত্তার মিলনায়তনে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দীন এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। সভায় ২৩ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোহাম্মদ জাবেদ,চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন সচিব মোহাম্মদ আবুল হোসেন, প্রধান শিক্ষা কর্মকর্তা মিসেস নাজিয়া শিরীন সহ কমিটি সমূহের সদস্য সচিব ও সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। কমিটির সভায় সভাপতির বক্তব্যে সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন কলেজ ও স্কুল পরিচালনা কমিটির সদস্যদেরকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার মান বৃদ্ধি,সঠিক পাঠদান,শিক্ষার পরিবেশ ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নের স্বার্থে দায়িত্ব পালনের আহ্বান জানান। মেয়র ছাত্র ছাত্রীদের নীতি নৈতিকতায় সমৃদ্ধ হয়ে মূল্যবোধ সম্পন্ন সু নাগরিক হিসেবে গড়ে তোলার জন্য শিক্ষকদের নৈতিক শিক্ষা দেয়ার পরামর্শ দেন। মেয়র গুণগত শিক্ষা প্রদানে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান ও শিক্ষকদের আন্তরিক হওয়ার নির্দেশ দেন। তিনি বলেন, কম সময়ের মধ্যে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ই এম এস পদ্ধতি চালু করার বিষয়টি সভায় অবহিত করেন। মেয়র সংশ্লিষ্ট সকলকে সতর্ক করে দিয়ে বলেন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কোন ধরনের অনিয়ম বিশৃঙ্খলা বা দলাদলি সহ্য করা হবে না। যদি কোন কারনে কোন শিক্ষকের বিরুদ্ধে কোন অনিয়ম প্রমাণিত হয়, তাহলে সংশ্লিষ্ট শিক্ষকের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এ ক্ষেত্রে কোন ধরনের ছাড় পাওয়ার সুযোগ থাকবে না। প্রসঙ্গক্রমে সিটি মেয়র বলেন, ধর্ম সম্পর্কে প্রকৃত জ্ঞাণ না থাকার কারনে দেশের কতিপয় তরুন সমাজ বিভ্রান্ত হয়ে জঙ্গী ও ও সন্ত্রাসি অপকর্মে লিপ্ত হতে দেখা যাচ্ছে। তার কারন হিসেবে তিনি বলেন, বিভ্রান্ত শিক্ষার্থীদের মধ্যে অনেকেরই স্ব স্ব ধর্ম সম্পর্কে সঠিক জ্ঞাণ নেই। তিনি ধর্মীয় জ্ঞাণ দান সহ ধর্ম কর্ম সঠিকভাবে মেনে চলার জন্য শিক্ষার্থীদের অনুপ্রাণিত করার পরামর্শ দেন। তিনি শিক্ষকদের মানুষ গড়ার কারিগর উল্লেখ করে তাদেরকে নিজ নিজ বিবেক ও বুদ্ধি দ্বারা পরিচালিত হওয়ার আহবান জানান।