শিক্ষার আলোতে আলোকিত নাগরিক গড়েতে চসিক শিক্ষা বিভাগ কাজ করছে

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ২ সেপ্টেম্বর , ২০১৪ সময় ০৬:১৭ অপরাহ্ণ

strong>কদম মোবারক সিটি কর্পোরেশন বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন ভবনের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠানে সিটি মেয়র আলহাজ্ব মোহাম্মদ মনজুর আলম
শিক্ষার আলোতে আলোকিত নাগরিক গড়েতে চসিক শিক্ষা বিভাগ কাজ করছে
চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব মোহাম্মদ মনজুর আলম বলেছেন, শিক্ষার আলোতে আলোকিত নাগরিক গড়ে তোলার জন্য সিটি কর্পোরেশন প্রতিবছর অবকাঠামো উন্নয়ন সহ শিক্ষা খাতে প্রায় ২৫ কোটি টাকা ভর্তুকি দিচ্ছে। তিনি বলেন, সুশিক্ষা, আধুনিক শিক্ষা, প্রযুক্তিনির্ভর শিক্ষা অর্জনের লক্ষে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন চেষ্টা করে যাচ্ছে। মেয়র কদম মোবারক সিটি কর্পোরেশন বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের ভবন নির্ধারিত সময়ে মানসম্মত ও নিখুঁত নির্মাণ কাজ শেষ করতে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেন। তিনি কদম মোবারক কবরস্থানের দেয়াল, মসজিদের মিনার নির্মাণ এবং ডিব টিউবওয়েল বসানোর কাজ শুরু করার উপর গুরুত্বারোপ করেন। তিনি বলেন, চট্টগ্রামের ধর্মীয় নিদর্শন, ইতিহাস ও ঐতিহ্য সংরক্ষণে সিটি কর্পোরেশন আন্তরিক। ২ সেপ্টেম্বর ২০১৪ খ্রি. মঙ্গলবার সকালে কদম মোবারক সিটি কর্পোরেশন বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন ভবন নির্মাণ কাজের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন ও ফলক উন্মোচন উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির ভাষণে মেয়র এ সব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ৩২ নং আন্দরকিল্লা ওয়ার্ড কাউন্সিলর জহর লাল হাজারী। অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলর নিয়াজ মোহাম্মদ খান, মিসেস আনজুমান আরা বেগম, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আলী আহমেদ, সচিব রশিদ আহমদ, প্রধান শিক্ষা কর্মকর্তা অধ্যাপক মুহম্মদ শহীদুল্লাহ, নির্বাহী প্রকৌশলী আবু ছালেহ, সমাজসেবক আলহাজ্ব মোহাম্মদ শাহাব উদ্দিন, হারুন জামান, আলাউদ্দিন আলীনুর ও অত্র স্কুলের প্রধান শিক্ষক মোখলেছুর রহমান, প্রকৌশলী ফরহাদুল আলম সহ অন্যরা। মেয়র ভিত্তি প্রস্তরের ফলক উন্মোচন করে, মাটি কেটে এবং মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নতুন ভবন নির্মাণ কাজের শুভ উদ্বোধন করেন। মোনাজাত পরিচালনা করেন মাওলানা হারুন-উর রশিদ চৌধুরী।
উল্লেখ্য যে, কদম মোবারক সিটি কর্পোরেশন বালক উচ্চ বিদ্যালয় নতুন ভবনটির ৬ তলা ফাউন্ডেশন সহ প্রাথমিক পর্যায়ে ৪ তলা নিমার্ণে ব্যয় হবে ১ কোটি ৫২ লক্ষ টাকা। সিটি কর্পোরেশনের রাজস্ব খাত হতে এ শিক্ষা ভবন নির্মিত হচ্ছে।

শিক্ষার আলোতে আলোকিত নাগরিক গড়েতে চসিক শিক্ষা বিভাগ কাজ করছে১
কৃষ্ণ কুমারী সিটি কর্পোরেশন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের বার্ষিক মেধা,ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠান

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব মোহাম্মদ মনজুর আলম বলেছেন, অপর্নাচরণ ও কৃষ্ণ কুমারী বিদ্যালয় ২ টির জন্য ১০ কোটি টাকা ব্যয়ে টাওয়ার নির্মাণ করা হচ্ছে। তিনি বলেন, শিক্ষায় আলোকিত সুনাগরিক গড়ার ক্ষেত্রে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন ইতিহাসে এক বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। মেয়র বলেন, প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৪ হাজার শিক্ষার্থী সহ সিটি কর্পোরেশন পরিচালিত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সমূহে ৭০ হাজার শিক্ষার্থী প্রতিবছর শিক্ষার সুযোগ পাচ্ছে। যা বাংলাদেশে নয় পৃথিবীর কোন সিটি কর্পোরেশনে এ ধরনের নজীর নেই। জনাব মনজুর আলম বলেন, শিক্ষা ক্ষেত্রে দেয় ভর্তুকি আমরা পুঁজি বিনিয়োগ মনে করি। দেশ ও জাতির উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ, উন্নত ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশের জন্যই সিটি কর্পোরেশন শিক্ষা খাতে বিপুল পরিমাণ অর্থ ব্যয় করে যাচ্ছে। মেয়র বলেন, দেশ পরিচালনা করছে নারীরা। বর্তমানে অধ্যয়নরত ছাত্রীরা যদি শতভাগ সফলতা অর্জন করে সুশিক্ষিত হতে পারে তারাও একদিন এ দেশ পরিচালনার সুযোগ পাবে। তিনি বলেন, সিটি কর্পোরেশন উচ্চশিক্ষার স্বার্থে পর্যায়ক্রমে আরো কলেজ গড়ে তুলবে। সিটি মেয়র আলহাজ্ব মোহাম্মদ মনজুর আলম মানুষ সৃষ্ট জলাবদ্ধতা নিরসন ও বর্জ্য ব্যবস্থাপনা সঠিকভাবে সম্পাদনে সচেতনতা সৃষ্টির জন্য শিক্ষক ও ছাত্রীদের আহবান জানান। ২ সেপ্টেম্বর ২০১৪খ্রি. মঙ্গলবার দুপুরে স্থানীয় মুসলিম ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে কৃষ্ণ কুমারী সিটি কর্পোরেশন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের বার্ষিক মেধা, ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরষ্কার বিতরণ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির ভাষণে সিটি মেয়র এ সব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ২২ নং এনায়েত বাজার ওয়ার্ড কাউন্সিলর এম. এ মালেক। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন শিক্ষা স্ট্যান্ডিং কমিটির চেয়ারম্যান কাউন্সিলর রেখা আলম চৌধুরী, চসিক প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আলী আহমেদ, সচিব রশিদ আহমদ, প্রধান শিক্ষা কর্মকর্তা অধ্যাপক মুহম্মদ শহীদুল্লাহ, প্রধান শিক্ষিকা মর্জিনা আখতার বেগম।
পরে মেয়র আলহাজ্ব মোহাম্মদ মনজুর আলম মেধা পুরষ্কার, ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতায় বিজয়ী শিক্ষার্থীদের হাতে পুরষ্কার তুলে দেন।