শিক্ষার্থীদের মনোবল বৃদ্ধি করতে স্কিল কম্পিটিশানের বিকল্প নেই

প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ২৬ অক্টোবর , ২০১৭ সময় ০৫:৪৪ অপরাহ্ণ

এনআইটির স্কিল কম্পিটিশানে উপাচার্য ড.সরোজ

 

শিক্ষার্থীদের আবিস্কারের মনোবল বৃদ্ধি করতে স্কিল কম্পিটিশানের বিকল্প নেই বলে মন্তব্য করেছেন বিজিসি ট্রাস্ট বিশ^বিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক সরোজ কান্তি সিংহ হাজারী। আর উদ্ভাবনীর স্বীকৃতি পেলে শিক্ষার্থীরা দেশকে অন্য উচ্চতায় নিয়ে যাবে বলেও উল্লেখ করেন তিনি। বৃহস্পতিবার সকালে দিনব্যাপী এনআইটি স্কিল কম্পিটিশান ও উদ্ভাবনী মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। বেসরকারী পলিটেকনিক ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি এ কম্পিটিশানের আয়োজন করেন। মেলায় এনআইটি’র বিভিন্ন পর্বের ১০টি ইঞ্জিনিয়ারিং ডিপার্টমেন্টের শিক্ষার্থীরা মোট ৯৯টি উদ্ভাবনী প্রজেক্ট প্রদর্শন করে।এনআইটির চেয়ারম্যান আহসান হাবিবের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান আলোচক ছিলেন চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি রিয়াজ হায়দার চৌধুরী। বিশেষ অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম নগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম, সিভিও এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবু হাসনাত, এনআইটি এর অধ্যক্ষ কৃষ্ণধন বিশ^াস, নিউজচিটাগাং এর নির্বাহী সম্পাদক মির্জা ইমতিয়াজ শাওন, সংগঠক নোমান উল্লাহ বাহার। সভায় প্রধান অতিথি বলেন, ‘প্রযুক্তির ছোঁয়ায় বিশ^ আজ দুর্বার গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশও পিছিয়ে নেই। শেখ হাসিনা সরকার গ্রাম পর্যায় থেকে শুরু করে সকল স্তরে প্রযুক্তি ব্যবহারে কাজ করে যাচ্ছেন। গত ১০ বছরে বাংলাদেশ যেভাবে ডিজিটালাইজ হয়েছে তা কল্পনা করা যাবে না। আমরা উন্নত বিশে^র দিকে তাকালে দেখতে পাবো তাদের উন্নতির পিছনে কাজ করেছে নতুন নতুন উদ্ভাবন। আজকে এটি কালকে অন্যটি। সকাল থেকে রাত পর্যন্ত জীবনযাত্রার মান উন্নয়নে যা যা প্রয়োজন তা আবিস্কার করেছেন। এক্ষেত্রে সরকার তাদের বিভিন্ন সহযোগিতা করেছে। আমাদের দেশের শিক্ষার্থীরাও অনেক মেধাবী। সুযোগ পেলে তারা অনেক কিছু আবিস্কার করতে পারে। এজন্য এ ধরণের প্রতিযোগিতার ব্যবস্থা করতে হবে। তাহলে তাদের মধ্যে সৃষ্টির অনুভূতি সৃষ্টি হবে। আর এর মধ্যেমে বিশ^ প্রতিযোগিতায় আমাদের দেশ এগিয়ে যাবে।’ মেলায় নগরীর বিভিন্ন পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের শিক্ষক শিক্ষার্থীরা অংশগ্রহণ করেন।