শিক্ষাবোর্ড চেয়ারম্যানের নিকট কিন্ডারগার্টেন ঐক্য পরিষদের আবেদন

প্রকাশ:| রবিবার, ৩০ এপ্রিল , ২০১৭ সময় ১০:৫৩ অপরাহ্ণ

রবিবার বেলা ১২টায় চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ড চেয়ারম্যান প্রফেসর সাহেদা ইসলাম মহদয়াকে বাংলাদেশে কিন্ডারগার্টেন স্কুল এন্ড কলেজ ঐক্য পরিষদের পক্ষ থেকে ২০১৭ সালের ৮ম শ্রেণিতে অধ্যয়নরত অনুমোদনহীন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্র/ছাত্রীদের জে.এস.সি পরীক্ষার রেজিষ্ট্রেশনের বিষয়ে আবেদন পত্র প্রদান করেন। সংগঠনের সভাপতি এম ইকবাল বাহার চৌধুরী স্বাক্ষরিত আবেদন পত্রে উল্লেখ করেন যে, স্বাধীনতাত্তোর বাংলাদেশের কিন্ডারগার্টেন তথা বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলো সমাজের ও দেশের বিত্তবান, শিক্ষানুরাগী দেশ ও জনদরদি ব্যক্তিদের সদিচ্ছার কারণে গড়ে উঠে তৃণমূল পর্যয় থেকে গড়ে উঠে দেশের শিক্ষার প্রসারে এক উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রেখেছে। এ প্রতিষ্ঠান গুলোর শিক্ষার মান আজ বিশ্বব্যাপি সমাদৃত। যাহা সরকারের শিক্ষার সফল কর্মসূচিতে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রেখেছে। এছাড়াও এ সকল প্রতিষ্ঠান গুলো স্ব-উদ্দেগ্যে প্রতিষ্ঠিত হয়ে লক্ষ লক্ষ শিক্ষিত বেকারদের কর্ম-সংস্থানের ব্যবস্থা করেছে। যাহা সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ডের এক বিশাল অংশীদার বিদায় সরকার ইতিমধ্যে প্রতিটি স্কুলকে প্রাথমিক শ্রেণি থেকে নবম শ্রেণি পর্যন্ত বই প্রদান করেছে। শুধু বই নয়, এই বই গুলো আনার জন্য ডিসি মহোদয় স্বাক্ষরিত একটি টাকার চেক ও প্রদান করেন। সে জন্য বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনাকে আন্তরিক ভাবে কৃতজ্ঞতা জানাছি। বর্তমানে চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ডের অধিনে অনুমোদনহীন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা প্রায় ১০০০ (এক হাজার)। এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শুধু ৮ম শ্রেণিতে অধ্যায়নরত আছেন প্রায় ২০,০০০ (বিশ হাজার) শিক্ষার্থী। এই ব্যক্তি মালিকানাধীন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান তথা কিন্ডারগার্টেন গুলো না হলে সরকারি বা বোর্ড কর্তৃক অনুমোদিত প্রতিষ্ঠানের পক্ষে স্বল্প সংখ্যাক শিক্ষক ও অবকাঠামো দিয়ে এ বিশাল শিক্ষার্থীকে ৮ম শ্রেণীতে পাঠদানের মাধ্যমে সুনাগরিক হিসেবে গড়ে তোলা সম্ভবপর নয়। বিধায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেন্ত্রী শেখ হাসিনা শিক্ষার উন্নয়ন ও প্রসারে নিরক্ষরতা মুক্ত বাংলাদেশ বির্নিমাণে দেশের শিক্ষানুরাগী ও বিত্তবানদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন। তাঁর ডাকে সাড়াদিয়ে আমরা দেশ ও জাতীর বৃহত্তর কল্যাণের কথা চিন্তা করে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা বিনির্মাণে এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলো প্রতিষ্ঠিত করেছি। তাই মৌলিক অধিকার ‘শিক্ষা’ সম্প্রসারনে প্রধানমন্ত্রীর আহ্বানের পূর্ণ বাস্তবায়নের জন্য অন্যান্য বছরের মত এই বছর ও সহজ শর্তে অনুমোদনহীন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের এ বিশাল শিক্ষার্থীদেরকে জে.এস.সি পরীক্ষার রেজিষ্ট্রেশনের সুযোগ দানের জন্য শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান মহোদয়া বরাবরে ঐক্য পরিষদের পক্ষ থেকে আবেদন পেশ করেন। শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান মহোদয়া আবেদন পত্র গ্রহণ করেন। পরে এক হোটেলে নেতৃবৃন্দ এক সংক্ষিপ্ত সভা সংগঠনের চট্টগ্রাম বিভাগীয় মহাসচিব মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম খানের সঞ্চালনায় সভাপতি এম ইকবাল বাহার চৌধুরীর সভাপতিত্বে গুরুত্বপূর্ণ বক্তব্য রাখেন মিসেস আমেনা বাতেন, সাজিদ ইকবাল, মৃদুল বড়–য়া, আবু ইউনুছ,আলতাফ হোসেন, নজরুর ইসলাম, দেলোয়ার হোসেন, তোফায়েল হোসেন, আবছার উদ্দিন, ইঞ্জিনিয়ার মুরাদ,সেলিম মাহাবুবু, আব্দুল গফুর, মোঃ রফিক, এনায়েত হোসেন, মোঃ শামীম, এম.এ রহমান প্রমুখ।


আরোও সংবাদ