শাহ্ আলী রজা আলীম মাদ্রাসার সালানা জলসা

প্রকাশ:| রবিবার, ১৬ এপ্রিল , ২০১৭ সময় ০৯:১০ অপরাহ্ণ

আনোয়ারা উপজেলার ওষখাইন আলী নগরস্থ শাহ আলী রজা (রহ.) আলিম মাদ্রাসার বার্ষিক সালানা জলসা গত ১৬ এপ্রিল দিনব্যাপী বিভিন্ন কর্মসূচীর মাধ্যমে দরবার শরীফের সাজ্জাদানশীন পীরজাদা মোহাম্মদ ইলিয়াছ রজা (ম.জি.আ.) এর সভাপতিত্বে মাদ্রাসা প্রাঙ্গনে অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন আহলে সুন্নাত কেন্দ্রীয় সমন্বয় কমিটির প্রধান সমন্বয়ক জননেতা আল্লামা এম.এ মতিন। প্রধান আলোচক ছিলেন উপাধ্যক্ষ আল্লামা জুলফিকার আলী চৌধুরী। বিশেষ অতিথি ছিলেন দক্ষিণ জেলা ইসলামী ফ্রন্টের সাধারণ সম্পাদক মাস্টার মুহাম্মদ আবুল হোসাইন, সমাজসেবক মো. আতিকুর রহমান চৌধুরী, শাহজাদা আলহাজ্ব মাওলানা কামাল উদ্দিন, পীরজাদা মাওলানা মুহাম্মদ ইউনুচ দরবেশ, অধ্যক্ষ মাওলানা আব্দুল খালেক শওকী। আলোচকদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, আল্লামা আবুল হাসান মুহাম্মদ ওমাইর রেজভী, মাওলানা এনাম রেজা কাদেরী, মাওলানা ওমর ফাকারু জব্বারী, মাওলানা আবু তালেব নঈমী, মাওলানা জামাল উদ্দিন। স্বাগত বক্তব্য রাখেন মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটির পরিচালক শাহজাদা মাওলানা আব্দুল কাদের চাদমিয়া। মাওলানা সোলাইমান আলকাদেরী ও মাওলানা মশিউর রহমানের সঞ্চালনায় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ইসলামী ফ্রন্ট আনোয়ারা উপজেলা নেতা মুহাম্মদ নাসির উদ্দিন সিদ্দিকী, মাষ্টার এয়াকুব আলী, ডি.আই.এম. জাহাঙ্গীর আলম, মুহাম্মদ হাসান, অধ্যক্ষ মাওলানা আবুল মনসুর রেজভী, মাওলানা সাঈদুর রহমান, ছাত্রসেনা নেতা এইচ.এম এনামুল হক, যুবসেনা নেতা মুহাম্মদ ছালেহ জহুর, মুহাম্মদ আব্দুল করিম, মুহাম্মদ সোলাইমান, রাশেদুল ইসলাম, মুহাম্মদ শহিদুল ইসলাম প্রমুখ। প্রধান অতিথির বক্তব্যে মাওলানা এম.এ মতিন বলেন, সংখ্যাগরিষ্ট মুসলিম রাষ্ট্রে ইসলামী শিক্ষাকে সংকোচনের সরকারী ষড়যন্ত্র জনগন কখনো মেনে নেবেনা। ধর্মীয় শিক্ষা বন্ধহলে দেশে জঙ্গীবাদী তৎপরতা চরম আকার ধারণ করবে। জঙ্গীদের নিয়ে সরকারের নতুন নাটক দেখে দেশবাসী সংখিত। তিনি সরকার কর্তৃক কওমি সনদের স্বীকৃতির তীব্র সমালচনা করে বলেন একদেশে দুই ধরণের ইসলামী শিক্ষা কার্যক্রম চলতে পারে না। মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের অধিনে একই কারিকুলামে পাঠদান কার্যক্রম চালু এবং অভিলম্বে কওমি সনদের স্বীকৃতি বাতিলের দাবী জানান। তিনি প্রতিটি দরবার এবং তৎসংলগ্ন এলাকায় দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলার জন্য দরবারের আওলাদ গণের প্রতি আহবান জানান। পরিশেষে সালাতুসালাম, দেশ, জাতি ও মানবতার কল্যাণে বিশেষ মুনাজাতের মাধ্যমে অনুষ্ঠানে সমাপ্তি ঘোষণা হয়।