শাহজালাল ইসলামী ব্যাংকের পরিচালক সোলায়মানকে সাতদিনের রিমান্ড

প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ৩ জুলাই , ২০১৪ সময় ০৭:৩১ অপরাহ্ণ

শাহজালাল ইসলামী ব্যাংকের পরিচালক সোলায়মান শাহজালাল ইসলামী ব্যাংকের পরিচালক ও সাবেক চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সোলায়মানকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সাতদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন চট্টগ্রামের একটি আদালত।

বৃহস্পতিবার চট্টগ্রাম মুখ্য মহানগর হাকিম মো. মশিউর রহমান এ রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

শুনানি শেষে মোহাম্মদ সোলায়মানকে ফেরত নেওয়ার পথে ছবি তুলতে গেলে তার সমর্থক-অনুসারীরা দৈনিক সমকাল ও চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের সাংবাদিকদের ওপর হামলা চালান। এতে দৈনিক সমকাল ও চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের চার সাংবাদিক আহত হন।

নগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (প্রসিকিউশন) মুহাম্মদ রেজাউল মাসুদ বলেন, মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা দুদকের সহকারী পরিচালক রফিকুল ইসলাম শাহজালাল ব্যাংকের পরিচালক মোহাম্মদ সোলায়মানকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ১০ দিনের রিমান্ড চেয়েছিলেন। শুনানি শেষে আদালত সাতদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন।

চলতি বছরের ১৩ এপ্রিল নগরীর কোতোয়ালি থানায় শাহজালাল ব্যাংক কর্তৃপক্ষ মোহাম্মদ সোলায়মানের বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে একটি মামলা দায়ের করে। মামলাটি পরে দুদকের সিডিউলভুক্ত হয়।

গত ২৬ জুন ওই মামলায় সোলায়মানকে ঢাকার বিজয়নগরের আকরাম টাওয়ার থেকে সোলায়মানকে গ্রেফতার করা হয়।

বৃহস্পতিবার দুপুর দেড়টার দিকে তাকে চট্টগ্রামের আদালতে হাজির করে পুলিশ। আধা ঘণ্টারও বেশি সময়ের শুনানি শেষে রিমান্ড মঞ্জুরের পর তাকে আদালত থেকে বের করা হচ্ছিল।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, আদালতে শুনানির সময়ও সোলায়মানের ছবি না তোলার জন্য তার কয়েকজন সমর্থক সাংবাদিকদের হুমকি দেন। পরে সোলায়মানকে বের করার সময় ছবি তুলতে গেলে কয়েকজন চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের ক্যামেরাম্যান শফিক আহমদ সজীবের ওপর হামলা করেন। প্রতিবাদ করতে গেলে তারা একই টেলিভিশনের রিপোর্টার জামশেদুল করিম, দৈনিক সমকালের প্রতিবেদক আহমদ কুতুব এবং ফটোসাংবাদিক মো. রাশেদের ওপর হামলা চালান।

সমকালের প্রতিবেদক আহমেদ কুতুব জানান, হামলায় সজীবের মাথা ফেটে গেছে। জামশেদুল হাতে মারাত্মক চোট পেয়েছেন। সে এবং রাশেদও শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত পেয়েছেন।

খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে। এ সময় দুর্বৃত্তরা সাংবাদিকদের দেখে নেওয়ার হুমকি দেন বলেও জানান আহমেদ কুতুব।

নগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (প্রসিকিউশন) মুহাম্মদ রেজাউল মাসুদ বলেন, সাংবাদিকদের সঙ্গে আসামি মোহাম্মদ সোলায়মানের লোকজনের হাতাহাতি হয়েছে। এতে চারজন সাংবাদিক আহত হয়েছেন। সুনির্দিষ্ট কোনো অভিযোগ পেলে ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবো।

এদিকে সাংবাদিকদের উপর হামলার ঘটনায় চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি এজাজ ইউসুফী ও সাধারণ সম্পাদক হাসান ফেরদৌস, চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সভাপতি আলী আব্বাস ও সাধারণ সম্পাদক মহসিন চৌধুরী এবং টিভি জার্নালিস্ট এসোসিয়েশনের সভাপতি শামসুল হক হায়দরী ও সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী ফরিদ তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন। সাংবাদিক নেতারা অবিলম্বে হামলাকারী দুর্বৃত্তদের গ্রেপ্তারের দাবি জানিয়েছেন।