শান্তি র‌্যালী, বিশেষ সভা, রাঙামাটি শহরে ১৪৪ ধরা বলবৎ

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ১৩ জানুয়ারি , ২০১৫ সময় ০৭:৫৮ অপরাহ্ণ

এম.নাজিম উদ্দিন,রাঙামাটিঃ রাঙামাটি শহরে ১৪৪ ধারা ভঙ্গকারীদের কঠোর হস্তে দমন করতে My beautiful pictureআইন শৃঙ্খলা বাহিনীকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। সেই সাথে রাঙামাটি শহরে কান্ঠা,মারবেল,জালের গুলতি,বর্ষাসহ আঘাত করতে সক্ষম এমন দ্রব্যাদি বিক্রয় সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ করা হয়েছে। রাঙামাটিতে উদ্বুদ্দ সংঘাতময় পরিস্থিতিতে দুই দিনের কারফিউ শেষে মঙ্গলবার সকালে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত শান্তি ও সংহতি প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে বিশেষ সভায় জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট ও জেলা প্রশাসক মোঃ সামসুল আরেফিন এই নির্দেশ প্রদান করেন।
সভায় রাঙামাটি শহরে বিশৃঙ্খলাকারীদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনতে আইন শৃঙ্খলাবাহিনীকে নির্দেশ দেয়া হয়। সভা শেষে রাঙামাটি শহরে শান্তি ও সংহতি প্রতিষ্ঠায়,জেলা প্রশাসনের আয়োজনে একটি শান্তি র‌্যালী বের করা হয়।
সকালে রাঙামাটি জেলা প্রশাসনের সম্মেলন কক্ষে রাঙামাটি জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট ও জেলা প্রশাসক মোঃ সামসুল আরেফিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত শান্তি ও সংহতি সভায় রাঙামাটি সাংসদ ঊষাতন তালুকদার,মহিলা সংসদ সদস্য ফিরোজা বেগম চিনু,সাবেক পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী দীপংকর তালুকদার,রাঙামাটি রিজিয়ন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল রেদওয়ান আহম্মেদ,রাঙামাটি বিজিবি সেক্টর কমান্ডার মোঃ শওকত ওসমান,রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নিখিল কুমার চাকমা,ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার আবুল কালাম আজাদ,পৌরসভা মেয়র সাইফুল ইসলাম চৌধুরীসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজি,সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
পার্বত্য সমস্যা সমাধানে সরকারকে বিশেষ উদ্যোগ গ্রহণের আহবান জানিয়ে পাহাড়ী-বাঙ্গালীর সম্প্রীতি ও সোহার্দ্য রক্ষায় স্থানীয় ব্যক্তিবর্গকে ভূমিকা রাখার উপর গুরুত্বারোপ করা হয়। রাঙামাটিতে ভবিষ্যতে যাতে অনাকাঙ্খিত ঘটনা সংঘটিত হতে না পারে সে জন্য প্রত্যেক পাড়ায়,মহল্লায়,পাহাড়ী-বাঙ্গালী নেতৃবৃন্দের সমন্বয়ে কমিটি গঠন করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।
বক্তারা বলেন,রাঙামাটি শহরে বহিরাগতরাই সমস্যার সৃষ্টি করছে। তারাতো জানেনা কার বাড়ী কোথায় তাই যে কোন ধ্বংসাত্মক কাজ করতে তাদের বিবেকে বাধে না। তাই আঞ্চলিক রাজনৈতিক দল গুলোর মিছিল মিটিংএ বহিরাগতদের দিয়েই তারা সমাবেশ করছে। বক্তারা বলেন,কোন দল সমাবেশ করবে তা কি রকম করবে তা আগেই প্রশাসনকে জানাতে হবে। তারা বলেন,সমাবেশ করার অনুমতি নিয়ে যদি ধ্বংসাত্মক কর্মকান্ড করেন তাহলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া দরকার। রাঙামাটি শহরে যেভাবে ধ্বংসাত্মক কর্মকান্ড চালানো হচ্ছে সেই ভাবে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয় না বলে তারা এই কাজ গুলো করতে সাহস পাচ্ছে। এদিকে রাঙামাটি শহরে বিকাল ৫ টার পর থেকে ১৪৪ ধারা বলবৎ থাকবে বলে জেলা মেজিষ্ট্রেট ঘোষণা দেন।