লোহাগাড়ায় শিবিরের সশস্ত্র হামলায় গুরতর আহত যুবলীগ কর্মী

প্রকাশ:| বুধবার, ৮ জানুয়ারি , ২০১৪ সময় ০৮:৩৬ অপরাহ্ণ

আবুল কালাম আজাদ, লোহাগাড়া>>
লোহাগাড়ায় শিবিরের সশস্ত্র হামলায় গুরতর আহত যুবলীগ কর্মীচট্টগ্রামের লোহাগাড়ায় প্রত্যন্ত অঞ্চলে দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন পরবর্তী জামায়াত-শিবিরের তান্ডব এখনো থামেনি। প্রতিদিন উপজেলার কোন না কোন এলাকায় সহিংসতা চালিয়ে যাচ্ছে দলটির কর্মী-সমর্থকরা। সর্বশেষ ৬ জানুয়ারী সোমবার রাত ১১টায় উপজেলার চরম্বা নোয়ারবিলা মারশি পুকুর পাড় এলাকায় স্থানীয় যুবলীগ কর্মী মহিউদ্দিন (২৫) কে স্থানীয় নাফারটিলা বাজার থেকে বাড়ি ফেরার পথে ১০/১২ জনের একদল সশস্ত্র শিবির কর্মী তার মাথা, হাত, পা ও পিঠে এলোপাথাড়ি কুপিয়ে মারাত্মকভাবে জখম করে। সে এখনো উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গুরতর আহত অবস্থায় চিকিৎসাধীন রয়েছেন। গতকাল বুধবার দুপুরে লোহাগাড়া থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ শাহজাহান পিপিএম ঘটনাস্থল পরিদর্শন ও উপজেলা স্বাস্থ কমপ্লেক্সে আহত যুবলীগ কর্মীকে দেখতে যান বলে জানা যায়।
এছাড়াও গত ৫ জানুয়ারী নির্বাচনে ভোট গ্রহণের পর ও আগের রাতে জামায়াত-শিবির কর্মীরা লোহাগাড়ার বিভিন্ন সংখ্যালঘু এলাকায় ব্যাপক ককটেল বিস্ফোরণ, অগ্নিসংযোগ ও লুটপাট চালায়। আগের রাতে আতংক ছড়ায় ও লিফলেট বিতরণ করে। যাতে ভোটাররা ভোট কেন্দ্রে না যায়। নির্বাচন ঠেকাতে চরম্বা, বড়হাতিয়া, আমিরাবাদ, কলাউজান হিন্দুহাট এলাকায় এ অপতৎপরতা চালায়। পদুয়া রুদ্র পাড়ায় ফনীন্দ্র রুদ্রের বসতবাড়ি পুড়ে দেয়। সেখানে তারা নির্বাচন প্রতিহত করার ঘোষণা দিয়ে লিফলেট বিলি করে। একইভাবে আমিরাবাদ বণিকপাড়া ও আশপাশ এলাকায় ব্যাপক ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায়। একদল মুখোশধারী জামায়াত-শিবির কর্মী ভোটের দিন সংখ্যা লঘু এলাকার লোকজনকে ভোট কেন্দ্রে আসার সময় বাঁধা দেয়। তাদের বাধা না মেনে ভোট কেন্দ্রে আসায় কলাউজান হিন্দুহাট এলাকায় সুখেন্দ্র বাবুর মিষ্টির দোকানসহ চারটি দোকানে অগ্নিসংযোগ করে। ফলে সংখ্যালঘুদের মাঝে আতংকের সৃষ্টি হয়। পরদিন উপজেলা ভাইসচেয়ারম্যান নিবাস দাশ সাগর বিভিন্ন সংখ্যালঘু এলাকায় লোহাগাড়া থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ শাহজাহান পিপিএমকে সাথে নিয়ে পরিদর্শন করেন। পুলিশ প্রশাসন সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তা বিধানে সর্বাত্মক সহযোগিতার আশ্বাস দেন।
এদিকে, লোহাগাড়ার বিভিন্ন স্থানে সন্ত্রাসের প্রতিবাদে এক সমাবেশ গত ৭ জানুয়ারী সকাল সাড়ে ১০টায় অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলার উত্তর কলাউজান হিন্দু হাটে এ সমাবেশের আয়োজন করা হয়। সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন কলাউজান ইউপি চেয়ারম্যান এ ওয়াহেদ। সমাবেশে সন্ত্রাস প্রতিরোধের লক্ষ্যে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। এতে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদ ভাইসচেয়ারম্যান নিবাস দাশ সাগর। সমাবেশে প্রতি পাড়া-মহল্লায় সন্ত্রাস প্রতিরোধ কমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।