লিংকন মজুমদার এলেও এলোনা ইসমাইল আজাদ শাকিল

প্রকাশ:| বুধবার, ৪ জুন , ২০১৪ সময় ১১:৪৫ অপরাহ্ণ

বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে লিংকন নগরীর পাহাড়তলী রেলস্টেশনে এসে তার মামাকে ফোন দেন। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে লিংকনকে কোতয়ালী থানায় আসে। পুলিশ লিংকনকে জিজ্ঞাসাবাদ করছে।

চট্টগ্রাম জেলা ছাত্র ইউনিয়নের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ইসমাইল আজাদ শাকিলের (২৮) সঙ্গে নিখোঁজ হওয়া লিংকন মজুমদার (১৬) ফেরত এসেছেন। তবে শাকিল আবারও রহস্যজনকভাবে ‘নিখোঁজ’ হয়ে গেছেন।
কোতয়ালী থানার এস আই মো.কামরুজ্জামান বলেন, শাকিল ও লিংকন সীতাকুণ্ডে চলে গিয়েছিল। বুধবার সন্ধ্যায় শাকিলই আবার লিংকনকে তার মামার কাছে ফেরত দিয়ে যায়। এরপর শাকিল আবারও অজ্ঞাতস্থানে চলে গেছে।

তিনি বলেন, জিজ্ঞাসাবাদে যতটুকু জানতে পেরেছি, তারা স্বেচ্ছায় বাসা থেকে বের হয়ে গিয়েছিল। কেন বের হয়েছিল সেটা খুবই রহস্যজনক। শাকিলকে আনার চেষ্টা চলছে। দু’জনকে একসঙ্গে বসিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করতে পারলে রহস্য উন্মোচিত হবে।

শাকিল ও লিংকন উভয়ই বিবর্তন নামে একটি পাঠচক্র সংগঠনের সদস্য। শাকিলও ওই সংগঠনের সাবেক সভাপতি। সংগঠনটি পথশিশুদের নিয়ে কাজ করে।

এছাড়া লিংকন নগরীর ইন্ডিপেন্ডেন্ট স্কুল এন্ড কলেজের দশম শ্রেণীর ছাত্র। তার বন্ধু সুদীপ্তসহ তিনজন মিলে ১ জুন বিকেলে নগরীর প্রবর্তক মোড়ে আফমি প্লাজায় গিয়েছিলেন। সেখান থেকে শাকিল ও লিংকন নিখোঁজ হয়ে যান।

তাদের নিখোঁজ হওয়ার ঘটনায় সোমবার (২ জুন) রাতে নগরীর কোতয়ালী থানায় পৃথক দু’টি সাধারণ ডায়েরি দায়ের করা হয়েছে। শাকিলের বাবা রফিকুল আজাদ এবং লিংকনের বাবা অ্যাডভোকেট শিবু মজুমদার বাদি হয়ে জিডি দু’টি করেছেন। জিডি নম্বর যথাক্রমে ১২৪ ও ১২৩।

জিডি দু’টির তদন্তকারী কর্মকর্তা কোতয়ালী থানার এস আই মো.কামরুজ্জামান। শাকিলের বাসা নগরীর ঘাটফরহাদবেগ এবং লিংকনের বাসা চান্দগাঁও এলাকায় বলে জিডিতে উল্লেখ আছে।


আরোও সংবাদ