লংগদুতে পানিবন্দি হাজারো মানুষ: চিকিৎসা সহায়তায় সেনাবাহিনী

প্রকাশ:| শুক্রবার, ২২ সেপ্টেম্বর , ২০১৭ সময় ০৮:১৪ অপরাহ্ণ

রাঙামাটি জেলার দূর্গম উপজেলা লংগদু। এ উপজেলার প্রায় বেশিরভাগ ইউনিয়ন এখন পানিবন্দি।

মানবেতর জীবন কাটাচ্ছে হাজার হাজার মানুষ। বেশ কয়েক মাসের অবিরাম টানা বর্ষণে নামা পাহাড়ি ঢলে বন্যার পানিতে ভাসছে উপজেলার লংগদু। বিস্তীর্ণ নিচু এলাকা তলিয়ে গেছে পানিতে।

স্থানীয়দের তথ্য সূত্রে জানা গেছে, লংগদু উপজেলার বিস্তীর্ণ নিচু এলাকা প্লাবিত হয়েছে। উপজেলার আটারকছড়া, ইয়ারংছড়ি, সোনাই, মালাদ্বীপ, কালাপাকুজ্যা, মাইনিুখ, গাথাছড়া, ছোট মাহিল্যা, গোলশাখালী, জারুলবাগান, ফোরেরমূখ ও ভাসান্যাদম ভাসছে বন্যার পানিতে। এ পর্যন্ত কয়েক হাজার পরিবারের বাড়িঘর প্লাবিত হয়েছে। দুর্গতদের অনেকে আশ্রয় নিয়েছেন আত্মীয়ের বাড়ি আর অনেকে সরকারি আশ্রয় কেন্দ্রে। তবে পানিবন্দিদের ত্রাণ ও চিকিৎসা সহায়তা দিয়েছে লংগদু সেনা জোন।

লংগদু সেনা জোন কমান্ডার লেফটেন্যান্ট কর্নেল আবদুল আলীম চৌধুরীর জানান,  উপজেলার দূর্গম পাহাড়ী এলাকায় ইয়ারাংছড়ি। এ এলাকায় প্রায় ৭০০ অধিক মানুষ পানিবন্দি। ভোগছে বিভিন্ন পানিবাহিত রোগে। দীর্ঘদিন ধরে চিকিৎসার অভাবে অনেকে দুর্ভোগে পরেছে। তাই খবর পেয়ে লংগদু উপজেলার ইয়ারাংছড়ির পানিবন্দি মানুষদের চিকিৎসা  সহায়তা প্রদানে করেছে লংগদু সেনা জোন।

লংগদু স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সহযোগিতায় ওই এলাকার প্রায় ৭০০ পাহাড়ি-বাঙালী, নারী-পুরুষ ও শিশুদের বিনামূল্যে চিকিৎসা প্রদান করা হয়। এছড়া পানিবন্দি রোগিদের মাঝে বিনামূল্যে ঔষধও বিতরণ করা হয়েছে।

ইয়ারাংছড়ির পানিবন্দিদের মাঝে চিকিৎসা সেবা দেন- লংগদু জোনের মেডিক্যাল অফিসার  ক্যাপ্টেন মোঃ রুবেল আজাদ, উপজেলা  স্বাস্থ্য কর্মকর্তা  ডাঃ  বিশ্বজিৎ মহাজন,  থানা মেডিক্যাল অফিসার ডাঃ মোঃ নুরুল হুদা ও উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিক্যাল অফিসার মীর আহম্মেদ।

তিনি আরও জানান, উপজেলার দুর্গম এলাকার পানি বন্দি গরীব ও অসহায় জনসাধারন যারা সহজে উপজেলা সদরে এসে চিকিৎসা সেবা নিতে পারে না, তাদের প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সেবা এই ফ্রি মেডিক্যাল ক্যাম্পেইনর কার হয়েছিল। এ ধারবাহিকতা ভবিষ্যতেও অব্যাহত থাকবে। এছাড়া তাৎক্ষনিক কোন রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দিলেও লংগদু সেনা জোন জরুরী চিকিৎসা সহায়তা দিবে।


আরোও সংবাদ