রোপা আমন ধান চাষে ব্যস্ত কৃষক

mirza imtiaz প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ৪ সেপ্টেম্বর , ২০১৮ সময় ১১:৫৬ পূর্বাহ্ণ

রোপা আমন ধানের চারা ফসলি মাঠে রোপনে ব্যস্ত সময় পার করছেন কৃষকরা। বীজতলা থেকে চারা তুলে ফসলের মাঠে রোপন করছেন চাষীরা। এর মধ্যে হাইব্রিড ও উফশী জাতের ধান বেশী চাষাবাদ করা হবে। কয়েকদিনের বৃষ্টির পানিতে আমনের জমি তৈরি, বীজতলা থেকে চারা তুলে তা জমিতে লাগানো চলছে সর্বত্র। বৃষ্টির পানিতে এই ধান ভালো হয় বলে রোপা আমন ধান চাষে খরচও কম লাগে।

কৃষক ও হাজার হাজার কৃষি শ্রমিক রোপা আমন নিয়ে ফসলের মাঠে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছে। বীজতলা থেকে চারা উত্তোলন করে তা জমিতে ধান লাগানোর কাজে মাঠ জুড়ে যেন কর্মব্যস্ততার মহোৎসব। উপজেলা জুড়ে মাঠের পর মাঠ ফুরসৎ নেই কারো। কৃষকদের যেন নাওয়া–খাওয়ার সময় নেই, মাঠের পাশে একটু ছায়াতে বসেই সেরে নিচ্ছে কৃষক শ্রমিকের দুপুরের আহার। আর কৃষাণীরা ব্যস্ত কৃষকদের আহারের জোগানে ।

কৃষকরা জানান, আমন আবাদ শুরুর প্রথমদিকে বৃষ্টি না থাকায় বিদ্যুৎ চালিত পাম্প, ডিজেল চালিত পাম্প এর মাধ্যমে সেচ দিয়েও অনেকে আমন ধানের চারা রোপন করেছেন। বর্তমানে খরার কারণে মাঠে ধানের চারা রোপন করতে অনেকের কষ্টসাধ্য হয়ে পড়ে। পাশাপাশি শ্রমীকের মুজুরী অধিক হওয়ায় তারা হিমসিম খাচ্ছেন। ৭৫০ থেকে ৮০০ টাকা হাজিরায় শ্রমিক নিয়ে চাষাবাদ করতে হচ্ছে তাদের।

কৃষি কর্মকর্তা জানান, আমনের জমিতে কীটনাশক বিহীন রোগবালাই মুক্ত ধান উৎপাদনে কৃষকদের সার্বিক পরামর্শ ও সহযোগিতা করা হচ্ছে। এজন্য বিভিন্ন সময় কৃষকদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থাও করা হয়েছে। আবহাওয়া অনুকুলে থাকলে লক্ষ্য মাত্রা অর্জন হতে পারে বলে আশা ব্যক্ত করেন তিনি। কৃষি কর্মকর্তা বুলবুল আহমেদ জানান উফশী, ব্রিধান–৪৮, ব্রিধান–২৮, ব্রিধান–৫৫, পারিজা, জিরাশাইল এবং নেরিকা জাতের আমনই বেশী চাষাবাদ হয়েছে। আশা করা হচ্ছে প্রাকৃতিক কোন দুর্যোগ ছুঁতে না পারলে লক্ষমাত্রা পূরণ সম্ভব হবে।