রোটারী গভর্নর নির্বাচিত সুফি মুহাম্মদ মিজানুর রহমান

প্রকাশ:| বুধবার, ২৮ মে , ২০১৪ সময় ১০:৫০ অপরাহ্ণ

সুফি মুহাম্মদ মিজানুর রহমানপিএইচপি ফ্যামিলি’র চেয়ারম্যান বিশিষ্ট শিল্পপতি রোটারিয়ান সুফি মুহাম্মদ মিজানুর রহমান রোটারী ইন্টারন্যাশনাল ডিস্ট্রিক্ট ৩২৮২ বাংলাদেশ এর (২০১৬-২০১৭) গভর্নর নির্বাচিত হয়েছেন।

বুধবার রোটারী ইন্টারন্যাশনালের ডিস্ট্রিক্ট গভর্নর পিডিজি এম. আমিনুজ্জামান ভূঁইয়া এ ঘোষণা দেন।

রোটারীয়ান আলহাজ্ব সুফি মুহাম্মদ মিজানুর রহমান এদেশের রোটারীর ৭৫ বছরে প্রথম একমাত্র আর্চ ক্লাম্প সোসাইটি মেম্বার। পৃথিবীতে রোটারীর ইতিহাসের একমাত্র কাপল আর্চ ক্লাম্প সোসাইটি মেম্বার।

সুফি মুহাম্মদ মিজানুর রহমান ১৯৪৩ সালের ১২ই মার্চ নারায়নগঞ্জের রূপগঞ্জের কাঞ্চন গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। কাঞ্চনে স্কুল জীবনে পড়াশোনা শেষে একে একে তিনি শিক্ষার বিভিন্ন ধাপ শেষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কমার্সে গ্র্যাজুয়েশন ডিগ্রী অর্জন করেন।

সুফি মিজান বাংলাদেশের শিল্প বাণিজ্য অঙ্গনে অতি পরিচিত এবং ব্যতিক্রমধর্মী এক নামই নয়, বলিষ্ঠ ব্যক্তিত্ব ও কর্মদক্ষতার ধ্যান-ধারনার বৈশিষ্ট্যে ভরপুর একজন পরিপূর্ণ মানুষ। অক্লান্ত পরিশ্রম, অসাধারন মেধা, সততা ও নিষ্ঠা তাকে দেশের অন্যতম শিল্প ব্যক্তিত্বের অবস্থানে নিয়ে গেছে।

গত ৪০ বছরে সুফি মিজান নিরলস পরিশ্রম করে পিএইচপি ফ্যামিলি’র মাধ্যমে আমদানী-রপ্তানী স্টিল, পাওয়ার গ্লাস, টেক্সটাইল, শিপ ব্রেকিং রি-সাইক্লিং, বিটুমিন, রাবার, ফিশারিজ, পেট্রো ক্যামিকেল, এভিয়েশন, মিডিয়া, এগ্রো সহ বিভিন্ন ইন্ডাষ্ট্রি প্রতিষ্ঠা ছাড়াও শিক্ষাখাতে স্কুল, কলেজ ও ইউনিভার্সিটি প্রতিষ্ঠা করেন।

মানব কল্যাণে তিনি স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা সেবার জন্য হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা করেছেন। পিএইচপি পরিবারের ২৫টির অধিক প্রতিষ্ঠানে ১০,০০০ হাজারের অধিক লোক কর্মরত আছেন। রোটারীয়ান মিজান মাতৃভাষা বাংলা ছাড়াও হিন্দি, উর্দু, ফারসী, আরবী, ইংরেজীসহ বেশ কয়েকটি ভাষায় অনর্গল কথা বলতে পারেন। ইতিমধ্যে ভালো বক্তা হিসাবে দেশে-বিদেশে সমাদৃত হয়েছেন। তিনি রোটারীতে ২০০০ সালে যোগদান করেন।

২০১২-২০১৩ সালে রোটারী ক্লাব অব আগ্রাবাদ-এর প্রেসিডেন্ট হিসাবে দায়িত্ব পালনের পর ২০১৩-২০১৪ সালে তিনি অ্যাসিস্টেন্ট গভর্নর হিসাবে দায়িত্ব প্রাপ্ত হন। গত দুই বৎসর ধরে রোটারিয়ান মিজান রোটারী ইন্টারন্যাশনালের সঙ্গে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলিকে নিরক্ষতার অভিশাপ হতে মুক্ত করার মানসে কাজ করে যাচ্ছেন। বর্তমানে বাংলাদেশকে নিরক্ষরতার হাত থেকে মুক্ত করার জন্য রোটারী ইন্টারন্যাশনাল থেকে শীর্ষ পদে তিনি দায়িত্ব প্রাপ্ত হয়েছেন।

সুফি মুহাম্মদ মিজানুর রহমান ও তার স্ত্রী রোটারিয়ান তাহমিনা মিজান সাত পুত্র ও এক কন্যার জনক। তাদের ১৭ জন নাতি-নাতনী রয়েছে।