রেলে নতুন কালোবিড়াল, তোপের মুখে মন্ত্রী

প্রকাশ:| বুধবার, ২০ মে , ২০১৫ সময় ০৮:১২ অপরাহ্ণ

রেলের খালাসি পদে বেতন মাত্র চার হাজার একশ’ টাকা। এই চাকরির জন্য চার লাখ টাকা ঘুষ দিয়েছেন প্রার্থীরা। সঙ্গে মন্ত্রী-এমপিদের সুপারিশও ছিল। তারপরও চাকরি হয়নি। আরো বেশি টাকা ঘুষ নিয়ে এই পদে নিয়োগ দেয়া হয়েছে।

বুধবার দুপুরে জাতীয় সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত রেলপথ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে এই অভিযোগ উত্থাপন করা হয়। এনিয়ে বৈঠকে ব্যাপক হৈ চৈ হয়। সদস্যদের সম্মিলিত তোপের মুখে পড়েন রেলমন্ত্রী মো. মুজিবুল হক।

সদস্যরা দাবি করেন, মন্ত্রী-এমপিদের সুপারিশ উপেক্ষা করে মন্ত্রীর পিএসসহ মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ রেলওয়ের কর্মকর্তারা এই নিয়োগ দিয়েছেন। আর এ থেকে তারা কোটি কোটি টাকা বাণিজ্য করেছে।

এই নিয়োগ বাতিল করে তারা নতুন করে নিয়োগের পাশাপাশি নিয়োগ বাণিজ্যের ঘটনা তদন্তে সংসদীয় সাবকমিটি গঠনের দাবি জানালেও শেষ পর্যন্ত তা হয়নি। তবে আগামী বৈঠকের আগে রেলওয়ের মহাপরিচালককে সংসদীয় কমিটির সভাপতির কাছে বিস্তারিত প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

বৈঠক সূত্র জানায়, নিয়োগ প্রক্রিয়ায় অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ উত্থাপন করেন বিরোধী দল জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য মোহাম্মদ নোমান। তার দাবি, এমপিদের সুপারিশে কোনোর প্রার্থীর চাকরি হয়নি। তবে মন্ত্রীর অফিস থেকে তালিকা করে টাকার বিনিময়ে চাকরি দেওয়া হয়েছে।

তার সঙ্গে একমত পোষণ করে ওয়ার্কাস পার্টির ইয়াসিন আলী ও আওয়ামী লীগের মো. আলী আজগর বলেন, মন্ত্রী প্রতিশ্রুতি দিলেও তাদের সুপারিশে কারো চাকরি হয়নি।

রেলে নতুন কালোবিড়াল, তোপের মুখে মন্ত্রীআলোচনার এক পর্যায়ে এ নিয়ে হৈ চৈ শুরু করেন উপস্থিত সদস্যরা।

এসময় মন্ত্রী মুজিবুল হক বলেন, ‘অনেকের সুপারিশই রাখা হয়েছে। সভাপতির সুপারিশ অনুযায়ী তিন জনের চাকরি হয়েছে।’

এ বক্তব্যে সভাপতি আপত্তি জানিয়ে বলেন, তার তালিকা থেকে শেষের দিকের তিন জনের চাকরি হলেও মন্ত্রণালয় থেকে তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করে তারপর চাকরি দেওয়া হয়েছে। তালিকা অনুযায়ী চাকরি হলে প্রথম তিন জনের চাকরি হতো।

এরপর কমিটির সদস্যরা সম্মিলিতভাবে মন্ত্রীকে একের পর এক প্রশ্ন করতে থাকেন। তারা বলেন, চার লাখ টাকা দিয়েও চাকরি হয়নি। যারা আরো বেশি টাকা দিয়েছে তাদের হয়েছে। আগেও এই নিয়োগকে কেন্দ্র করে কালো বিড়ালের ধরা পড়েছিল, যা সরকার ও মন্ত্রণালয়ের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ করেছে। তাই এ বিষয়ে সতর্ক হওয়া জরুরি।

এসময় তারা ওই নিয়োগ বাতিল করে নতুন নিয়োগের ব্যবস্থা করার দাবি জানান। একইসঙ্গে মন্ত্রীর একান্ত সচিব কিবরিয়া মজুমদারসহ নিয়োগ বাণিজ্যের সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে তদন্ত কমিটি গঠনের দাবি তোলেন।

সূত্র জানায়, এনিয়ে তুমুল হট্টগোলের এক পর্যায়ে কমিটির সরকারদলীয় সদস্য খালিদ মাহমুদ চৌধুরী পরিস্থিতি সামাল দেন। তিনি বলেন, ‘ঘটনা যাই হোক এনিয়ে সংসদীয় তদন্ত কমিটি হলে তা নিয়ে পত্র-পত্রিকায় লেখালেখি হবে। যা আমাদের মন্ত্রী ও সরকারের ভাবমূর্তির ওপর আঘাত হানবে। তাই এটা না করাই ভালো।’

পরে মন্ত্রী রেলের মহাপরিচালককে তদন্ত করে প্রতিবেদন দিতে বলেন। ওই প্রতিবেদন পাওয়ার পর কমিটির বৈঠকে আলোচনা সাপেক্ষে করণীয় নির্ধারণের সিদ্ধান্ত হয়।

বৈঠক শেষে বেরিয়ে কমিটি সভাপতি এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী সাংবাদিকদের বলেন, ‘নিয়োগে অনিয়মের বিষয়টি নিয়ে সংসদীয় কমিটির বৈঠকে আলোচনা হয়েছে। রেলের ডিজিকে আগামী বৈঠকের আগে এ সংক্রান্ত বিস্তারিত প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে। এরপর আলোচনার মাধ্যমে পরবর্তী করণীয় নির্ধারণ করা হবে।’

এছাড়া বৈঠকে রেলওয়ের অবৈধ বিলবোর্ড আগামী এক মাসের মধ্যে উচ্ছেদ ও রেলওয়েতে একটি হেল্পলাইন চালুর সুপারিশ করা হয়েছে বলে তিনি জানান।