রেলকে গণপরিবহন হিসেবে গড়ে তুলতে চাই

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি , ২০১৭ সময় ০৯:৩৮ অপরাহ্ণ

বাংলাদেশ রেলওয়েকে গণপরিবহন হিসেবে রূপান্তরিত করতে কাজ করে যাচ্ছেন উল্লেখ করে রেলের মহাপরিচালক মো.আমজাদ হোসেন বলেছেন, রেলের চলমান অবকাঠামো উন্নয়ন, ইঞ্জিন ও বগি ক্রয় এবং বিভিন্ন প্রকল্পের কাজ শেষ হলে রেলের অতীত গৌরব ফিরে আসবে।

মঙ্গলবার বিকেলে রেলওয়ে পোলেগ্রাউন্ড মাঠে বাংলাদেশ রেলওয়ের ৩৮ তম বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

বাংলাদেশ রেলওয়ে ক্রীড়া নিয়ন্ত্রণ বোর্ড দুইদিনের ক্রীড়া প্রতিযোগিতার আয়োজন করে। সোমবার প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো.ফিরোজ সালাহ উদ্দিন।

বাংলাদেশ রেলওয়ে ক্রীড়া নিয়ন্ত্রণ বোর্ডের সভাপতি ও রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের মহাব্যবস্থাপক মো.আবদুল হাই’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাপনী রেলের অতিরিক্ত অনুষ্ঠানে রেলের মহাপরিচালক (আই) কাজী রফিকুল আলম, মো.শামসুজ্জামান (আরএস), মো.হাবিবুর রহমান(অপারেশন) বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।

রেলের মহাপরিচালক বলেন, এক সময় ক্রাড়াঙ্গণে রেলের বিরল পদচারণা ছিল। কিন্তু এখন অনেক পিছিয়ে পড়েছি। অবশ্য পিছিয়ে পড়ার অনেক যৌক্তিক কারণও রয়েছে।

তিনি বলেন, এক সময় রেলওয়ের ক্রিকেট ও ফুটবল টিম জাতীয় দলে খেলেছে। এখন কোন খেলায় অংশ নিতে পারে না। এই অবস্থা থেকে আমাদের উঠে আসতে হবে। কঠোর অনুশীলনের মাধ্যমে ক্রীড়ার সেই অতীত ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনতে হবে। ক্রীড়াঙ্গণে পদচারণা বাড়াতে হবে।

নতুন খেলোয়াড় সৃষ্টি করতে শূন্যপদে নিয়োগ দেওয়া হবে জানিয়ে তিনি বলেন, জনবল সংকটের কারণে বিভিন্ন সমস্যা হচ্ছে। এসব সমস্যা থেকে উত্তোরণে শিগগির শূন্যপদে নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু হবে।

মাঠ নিয়ে জটিলতা সৃষ্টি হওয়ার কারণে এবার সময়মতো ক্রীড়া প্রতিযোগিতার আয়োজন করা সম্ভব হয়নি জানিয়ে তিনি বলেন, প্রতি বছর এ মাঠে বাণিজ্য মেলা অনুষ্ঠিত হয়। ফলে এবারও তারা মেলা শুরু করতে চেয়েছিল। তাই প্রতিযোগিতার আয়োজন নিয়ে অনিশ্চয়তার সৃষ্টি হয়। তবে সব বাধা কাটিয়ে আমরা সফলভাবে আয়োজন করতে পেরেছি।

সভাপতির বক্তব্যে রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের জিএম মো.আবদুল হাই বলেন,সারা দেশ থেকে ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে আসেন। এর মাধ্যমে রেল পরিবারের মিলন মেলায় পরিণত হয়।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে পশ্চিমাঞ্চলের মহাব্যবস্থাপক মো.খায়রুল আলম, রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের প্রধান প্রকৌশলী মো.শহীদুল ইসলাম, প্রধান সংকেত ও টেলিযোগাযোগ প্রকৌশলী চন্দন কান্তি দাস, চিফ কমার্শিয়াল ম্যানেজার সরদার শাহাদাত আলী, প্রধান যন্ত্র প্রকৌশলী মঞ্জুর-উল-আলম চৌধুরী, চিফ কমান্ডেন্ট মো.আমিনুর রশিদ, রেলওয়ে পশ্চিমাঞ্চলের প্রধান প্রকৌশলী মো.রমজান আলী, পশ্চিমাঞ্চলের চিফ কমান্ডেন্ট মো.শাহ আলম ভূঁইয়া প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।