রেলওয়ে বুকিং ক্লার্কের খুনের ঘটনায় জড়িতদের বিচারের দাবিতে চট্টগ্রামে বিক্ষোভ

প্রকাশ:| শনিবার, ৫ অক্টোবর , ২০১৩ সময় ০৪:৫৩ অপরাহ্ণ

রেল কঢাকার কমলাপুরে রেলওয়ে বুকিং ক্লার্কের খুনের ঘটনায় জড়িতদের বিচারের দাবিতে চট্টগ্রামে বিক্ষোভ ও সমাবেশ করেছেন রেলওয়ের কর্মচারীরা।

শনিবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে চট্টগ্রাম রেলওয়ে স্টেশনে রেলওয়ে শ্রমিক কর্মচারী সংগ্রাম পরিষদের উদ্যোগে এ কর্মসূচি পালন করেন তারা।

বিক্ষোভ সমাবেশে রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের প্রধান পরিবহন কমকর্তা (সিওপিএস) মো. মিয়াজাহান বলেন,‘জনগণের সেবা করার উদ্দেশ্যে আমরা (রেল কর্মচারীরা) জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করি। ট্রেনে আগুন, ইট-পাথর নিক্ষেপসহ নানা সহিংসতা উপেক্ষা করে আমরা ট্রেন পরিচালনা করছি।এরপরও রেল কর্মচারীদের হত্যা নির্যাতন করা সত্যিই অমানবিক।’

মিয়াজাহান বলেন,‘ঈদে ঘরমুখী মানুষের যাত্রা নির্বিঘ্ন করতে রেলের লোকজনের ছুটি বাতিল করা হয়েছে। সবটুকু দিয়ে তারা যাত্রীদের সেবা করে যাচ্ছেন। কিন্তু এতকিছুর পরও রেলের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের উপর নির্যাতন থামছে না। কারা এ ঘটনা ঘটিয়েছে আমরা এর তদন্ত চাই। দোষীদের খুঁজে বের করে দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবি জানাই।’

এ সময় তিনি রেল কর্মচারীদের ঈদে ঘরমুখী মানুষের ভোগান্তির কথা বিবেচনা করে কোন ধরণের কঠোর কর্মসূচি থেকে বিরত থাকার আহবান জানান।

তিনি বলেন,‘ঈদে ঘরমুখী মানুষের কথা চিন্তা করে ধৈর্য সহকারে শান্তিপূর্ণ ভাবে কর্মসূচি পালন করতে হবে।’

বিক্ষোভ সমাবেশে বিভাগীয় রেলওয়ে ম্যানেজার (ডিআরএম) সুকুমার ভৌমিক, চট্টগ্রাম রেল স্টেশনের ব্যবস্থাপক এএ সামসুল আলম, বাংলাদেশ রেলওয়ে শ্রমিক কর্মচারী সংগ্রাম পরিষদ আহবায়ক মোখলেছুর রহমান, চট্টগ্রাম রেলওয়ে স্টেশন মাস্টার মাহবুবুল আলম, হেড বুকিং ক্লাক মো. রায়হান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করেন চট্টগ্রাম রেলস্টেশনে কর্মরত বুকিং ক্লার্করা। মিছিলটি চট্টগ্রাম রেলস্টেশনের বিভিন্ন প্লাটফরম প্রদক্ষিণ করে।

এদিকে রেল কর্মচারীদের বিক্ষোভ কর্মসূচি থাকলেও ঈদের অগ্রিম টিকেট বিক্রিতে কোন ব্যঘাত সৃষ্টি হচ্ছে না বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন।

প্রসঙ্গত, শুক্রবার দিনগত রাতে দায়িত্বরত অবস্থায় ঢাকার কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনে রেলের এক কর্মচারীকে খুন করে টিকিট বিক্রির লক্ষাধিক টাকা লুট করে দুর্বৃত্তরা।


আরোও সংবাদ