রাষ্ট্রের সর্বস্তরে বাংলা চালুর দাবিতে তরুণদের ঐক্যবদ্ধ হবে

নিউজচিটাগাং২৪/ এক্স প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ২২ মার্চ , ২০১৮ সময় ০৭:৫৮ অপরাহ্ণ

চট্টগ্রামে স্বাধীনতার বইমেলায় ড. আহমদ রফিক

ইমরান এমি, নিজস্ব প্রতিবেদক:
ভাষাসৈনিক ও লেখক ড. আহমদ রফিক বলেছেন বইপাঠ একটি ঐতিহ্য, প্রাতিষ্টানিক পাঠ্য বইয়ের পাশাপাশি সৃজনশীল বই পাঠ করতে হবে, তরুণদের বই পাঠে আগ্রহী হতে হবে, শুধু প্রশ্নের উত্তরের জন্য না পড়ে, জ্ঞান আহরনের জন্যও পাঠদানে মনোযোগি হওয়ার আহবান জানান।
বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় চট্টগ্রাম জেলা শিল্পকলা মিলায়তনে চট্টগ্রাম একাডেমির উদ্যোগে আয়োজিত স্বাধীনতার বইমেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের উদ্বোধকের বক্তব্য রাখতে গিয়ে বর্ষীয়ান লেখক ও ভাষাসংগ্রামী ড. আহমদ রফিক এ কধা বলেন। চট্টগ্রাম একাডেমির চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. অনুপম সেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আলোচক ছিলেন দৈনিক সুপ্রভাত বাংলাদেশের উপদেষ্ঠা সম্পাদক কবি অধ্রাপক আবুল মোমেন, প্রাবন্ধিক মযহারুল ইসলাম বাবলা, সংগঠক সৈয়দ সিরাজুল ইসলাম কমু, চট্টগ্রাম একাডেমির পরিচালক জিন্নাহ চৌধুরী।
ড. আহমদ রফিক আরো বলেন, ৫২সালে পাকিস্তানিরা যখন আমাদের বাংলা ভাষাকে রাষ্ট্রভাষা হিসাবে অস্বীকার করে উর্দু করে রাষ্ট্র ভাষা করার জন্য ষড়যন্ত্র শুরু করেছে তখন আমরা তরুণরা রাজপথে থেকে মিছিল সমাবেশ করেছি, স্লোগান ধরেছি “ রাষ্ট্রভাষা বাংলা চাই, সর্বস্তরে বাংলা ভাষা চালু কর, প্রাসঙ্গিক শহীদ স্মৃতি অমর হোক” স্লোগান ধরে আমরা আমাদের মাতৃভাষা বাংলা ছিনিয়ে এনেছি। দেশের প্রতি তরুণদের দায়বদ্ধতা রয়েছে তাদের সর্বস্তরে বাংলা চালুর দাবিতে ঐক্যবদ্ধ হয়ে আন্দোলন করতে। এখনো উচ্চ পর্যায়ে ঔপনৈবেশিক ভাষা চলছে, বাংলাভাষা আজ উপেক্ষিত, যা চরমভাবে সংবিধান লঙ্গন।
দেশকে এগিয়ে নিতে শিক্ষার বিকল্প নেই মন্তব্য করে তিনি বলেন, শ্রেণীগত স্বার্থকে প্রাধন্য দিতে গিয়ে আমরা জাতিকে শিক্ষিত হিসাবে গড়ে তুলতে পারিনি, অশিক্ষিত নিরক্ষর জাতি সমাজ ও রাষ্ট্রের জন্য বোঁঝা, শিক্ষিত না হওয়ার কারণে মধ্যপ্রাচ্যে গিয়ে আমাদেও যুবক, যুবতী ও নারীরা বিভিন্ন বিপদের শিকার হচ্ছে।
ঢাকার বইমেলার সাথে চট্টগ্রামের বইমেলার প্রতিযোগিতা নামবে না কেণ? ঢাকা বই বিক্রি হলে চট্টগ্রামে হবে না কেন, বই ক্রয় কওে কেউ দেউলিয়া হয় না, তবে এক্ষেত্রে লেখক ও প্রকাশকদেও খেয়াল করতে হবে, বইয়ের মান উন্নত রুচিশীল হবে, তাহলে বইয়ের প্রতি পাঠক আগ্রহ বাড়বে, আয়োজকদের ধণ্যবাদ জানিয়ে তিনি বলেন বইমেলাকে আনুষ্ঠানিকতার মধ্যে সীমাবদ্ধতা রাখলে হবে না, বইমেলাকে সত্যিকারের রুপ দিতে হবে, তাহলে ঢাকার মতো চট্টগ্রামেও বইমেলা সফল হবে।
আগামীকাল শুক্রবার সকাল ১০টায় চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা। সাড়ে ১০টায় কবি-সাংবাদিক ওমর কায়সারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হবে লেখক-পাঠক সম্মিলন। প্রধান অতিথি থাকবেন বাংলাদেশ টেলিভিশন চট্টগ্রাম কেন্দ্রের মহাব্যবস্থাপক মনোজ সেনগুপ্ত। বিকেল তিনটায় আবৃত্তি ও সংগীত প্রতিযোগিতা। বিকেল পাঁচটায় লেখক ড. বদরুল হুদা খানের সভাপতিত্বে শবনম খানম শেরওয়ানী শিক্ষাবৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে থাকবেন চট্টগ্রামের বিভাগীয় কমিশনার মো. আবদুল মান্নান। বিশেষ অতিথি থাকবেন হাসান মাহমুদ চৌধুরী সিআইপি ও আহসানুল করিম। সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায় ছড়া উৎসব। এতে প্রধান অতিথি থাকবেন খ্যাতিমান শিশুসাহিত্যিক আমীরুল ইসলাম