রাজশাহীতে কালবৈশাখীতে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি, নিহত ১

প্রকাশ:| শনিবার, ৪ এপ্রিল , ২০১৫ সময় ০৭:৪৮ অপরাহ্ণ

রাজশাহীতে শনিবার (০৪ এপ্রিল) মৌসুমের প্রথম কালবৈশাখী ঝড়ে কাঁচা ঘর-বাড়ি বিধ্বস্তসহ ফসলের ব্যাপক ক্ষয়-ক্ষতি হয়েছে।

ঝড়ের কবলে পড়ে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) অজ্ঞাতপরিচয় এক বৃদ্ধা ভিক্ষুকের মুত্যু হয়েছে। সন্ধ্যায় পুরাতন ফোকলোর চত্বর থেকে তার মৃতদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

বিকেল ৫টার দিকে রাজশাহী মহানগরীসহ জেলার বিভিন্ন উপজেলায় আঘাত হানে কালবৈশাখী ঝড়। এ অঞ্চলের ওপর দিয়ে ঘণ্টায় ৭০/৮০ কিলোমিটার বেগে ঝড় বয়ে যায়। এর সঙ্গে বজ্রসহ বৃষ্টিপাত হয়েছে।

প্রথম দমকা হাওয়ার পর বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে রাজশাহী মহানগরীর পুরো এলাকা। ঝড়ে আম, লিচুসহ ফসলের ব্যাপক ক্ষতির আশঙ্কা করছে সংশ্লিষ্টরা।

বিকেল সাড়ে ৫টা পর্যন্ত বয়ে যাওয়া এ ঝড়ে মহানগরীর সাহেব বাজার, গোরহাঙ্গা রেলগেট, নওদাপাড়া, বায়া, বিমানবন্দর থানার মোড়, শালবাগান এবং লক্ষ্মীপুর এলাকার রাস্তার ধারের বিভিন্ন গাছপালা ভেঙে গেছে। বিভিন্ন এলাকায় সাইনবোর্ড ভেঙে গেছে। পাশাপাশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে রাস্তার পাশের অস্থায়ী দোকান।

মহানগরীর বাইরে রাজশাহীল তানোর, গোদাগাড়ী, পবা, পুঠিয়া, বাগমারা, বাঘা, চারঘাট ও মোহনপুর উপজেলায় ঝড়ে আম, লিচু বাগান ও পানের বরজের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির খবর পাওয়া গেছে। কিছু স্কুল-কলেজের টিন উড়ে গেছে। কাঁচা ঘরবাড়ি ভেঙে যাওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

রাজশাহী আবহাওয়া পর্যাবেক্ষণাগারের পর্যবেক্ষক দেবল কুমার মৈত্ জানান, ঝড়ের গতিবেগ ছিল- ঘণ্টায় ৭০ থেকে ৮০ কিলোমিটার। এ সময় রাজশাহী মহানগরীতে ১২ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। তবে, ঝড় থেমে গেলেও বিভিন্ন স্থানে বৃষ্টি চলছে বলে জানান তিনি।

রাজশাহীর ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের সিনিয়র স্টেশন অফিসার শরীফুল ইসলাম জানান, ঝড়ের পর মহানগরীর ভদ্রা ও সাগরপাড়সহ বিভিন্ন এলাকায় রাস্তার ওপর গাছ ও গাছের ডালপালা পড়ে যাওয়ার খবর পেয়েছেন তারা। বর্তমানে গাছ ও ডালপালা সরিয়ে রাস্তা পরিষ্কারের কাজ চলছে।

রাজশাহী বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের প্রকৌশলী শাহীনুল ইসলাম জানান, ঝড়ের পরে বিভিন্ন জায়গা থেকে বিদ্যুতের খুঁটির ওপর গাছ পড়ে যাওয়ায় সংবাদ পাওয়া গেছে। ইতোমধ্যে সেসব স্থানে লাইন মেরামতের জন্য গাড়ি ও লোক পাঠানো শুরু হয়েছে। কাজ শেষ করতে সময় লাগবে।


আরোও সংবাদ