রাজনৈতিক অস্থিরতার ফলে শিশুদের মানসিক বিকাশ বাধাগ্রস্ত হচ্ছে

প্রকাশ:| শুক্রবার, ২২ নভেম্বর , ২০১৩ সময় ১১:৫৭ অপরাহ্ণ

চট্টগ্রামে শিশুসাহিত্য সম্মেলনে আবু হাসান শাহরিয়ার
নিউজচিটাগাং২৪.কম>>
শিশুবাংলাদেশ শিশুসাহিত্য একাডেমি আয়োজিত শিশুসাহিত্য সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেছেন, শিশুরা জন্য শ্রেষ্ঠ জায়গা হচ্ছে শিশুসাহিত্য। কিন্তু রাজনীতিতে দুর্বৃত্তায়ন এবং অস্থিরতার ফলে আমাদের শিশুদের মানসিক বিকাশ বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। সেই সাথে শিশুসাহিত্যও দারুণ ব্যাহত হচ্ছে। বক্তারা আরো বলেন, শিশুদের স্বপ্নের জায়গা তৈরি করে দিতে হবে আমাদের। এ লক্ষ্যে এগিয়ে আসতে হবে সাহিত্যিক, শিক্ষক ও অভিভাবকদের। কেননা আমাদের অসচেতনতার কারণে শিশুরা সৃজনশীল ও মননশীল চর্চা থেকে দূরে সরে যাচ্ছে। এতে করে শিশুসাহিত্য রচনায় চরম সংকট তৈরি হচ্ছে। গতকাল শুক্রবার চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাব চত্বরে বেলুন উড়িয়ে দিনব্যাপী সম্মেলনের উদ্বোধন করেন দৈনিক আমাদের সময় সম্পাদক কবি আবু হাসান শাহরিয়ার। সাহিত্যিক ও শিক্ষাবিদ অধ্যক্ষ আনোয়ারা আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে কবি আবু হাসান শাহরিয়ার বলেন, শিশুসাহিত্যে অনেক কাজ হয়েছে। কিন্তু অনেক মহৎ কাজ করা যায়নি । অস্থিরতার মধ্যে শিশুসাহিত্য হতে পারে না। তিনি আরো বলেন, লেখকের মধ্যে যদি শিশুমনটি না থাকে তাহলে কবি হওয়া যায় না। এজন্য লেখককে বুঝতে হবে শিশুর মনস্তাত্বিক বিষয় আশয়। তাদের জন্য সাহিত্য রচনা করতে গেলে আমাদের অনেক বেশি সচেতন হতে হবে। কোনোভাবে সাহিত্য রচনা করে তাদের উপহার দিলে তাদের মেধা চরমভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে। এই বিষয়টি অবশ্যই শিশুসাহিত্যিকদের মাথায় রাখতে হবে। বাংলাদেশ শিশুসাহিত্য একাডেমির পরিচালক, কবি ও শিশুসাহিত্যিক রাশেদ রউফের স্বাগত বক্তব্যের মধ্যদিয়ে আলোচনায় অংশ নেন শিশুসাহিত্যিক ফাহমিদা আমিন, কবি আসলাম সানী, কবি-ছড়াশিল্পী তপংকর চক্রবর্তী ও কবি ওমর কায়সার। অনুষ্ঠান সঞ্চালন করেন আবৃত্তি শিল্পী আয়েশা হক শিমু। অনুষ্ঠানে ফাহমিদা আমিন বলেন, যুগে যুগে এদেশের শিশুসাহিত্যে ফুটে উঠেছে দেশ, প্রকৃতি, মাটি ও মানুষের কথা। কবি আসলাম সানী বলেন, বায়ান্নের ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে এদেশের প্রতিটি আন্দোলনে ছড়া মানুষের মনে প্রেরণা যুগিয়েছে। এ কারণে এদেশের শিশুসাহিত্য অনেক বেশি উন্নত। সভাপতির বক্তৃতায় অধ্যক্ষ আনোয়ারা আলম বলেন, যারা শিশুসাহিত্য রচনা করি আমাদের দায়িত্ব অনেক। এই দায়িত্ব পালনে অবহেলা করা যাবে না। কারণ এখনকার সময়ের শিশুরা অনেক সচেতন। তারা ভালো বুঝতে পারে। অতএব তাদের ঠকানো যাবে না। অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বে বাংলাদেশের শিশুসাহিত্যে সংকট ও সম্ভাবনা শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। কবি সৈয়দ আহমদ আলী আজিজের সভাপতিত্বে সেমিনারে আলোচক ছিলেন কবি ও শিশুসাহিত্যিক শাহাবুদ্দিন নাগরী, কথাসাহিত্যিক মোস্তফা হোসেইন, কবি নাসের মাহমুদ, চিত্রশিল্পী উত্তম সেন, ছড়াশিল্পী আনজীর লিটন, প্রবীর বিকাশ সরকার,বদরুল বোরহান, তাহমিনা কোরাইশী, সোহেল মল্লিক ও হুমায়ুন কবির ঢালী। অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করেন কবি জিন্নাহ চৌধুরী।

অনুষ্ঠানের তৃতীয় পর্বে বিকেলে গল্পকার দীপক বড়–য়ার সভাপতিত্বে লেখা পাঠ ও কথামালায় অংশ নেন প্রফেসর রীতা দত্ত, প্রদীপ দেওয়ানজী, বিশ্বজিৎ চৌধুরী, আকতার হোসাইন, সনজীব বড়–য়া, অরুণ শীল, রহমান হাবীব, তাহমিনা কোরাইশী, এয়াকুব সৈয়দ, সৈয়দ খালেদুল আনোয়ার, উত্তম সেন, বদরুল বোরহান, তপংকর চক্রবর্তী, সৌরভ সাখাওয়াত, কৌমুদী নার্গিস, সৈয়দ আহমদ আলী আজিজ, গোফরান উদ্দিন টিটু, মর্জিনা আখতার, নাসের মাহমুদ, আনজীর লিটন, আসলাম সানী, আমানউদ্দীন আবদুল্লাহ, মুহাম্মদ আমানউল্লাহ, জহুর উশ শহীদ, ফজল হোসেন, সনজিত দে, অধ্যাপক উদিতি দাশ সোমা, অধ্যাপক সাবিরা সুলতানা, অমিত বড়–য়া, ওবায়দুল সমীর, আখতারুল ইসলাম, হুমায়ুন কবীর ঢালী, আয়াত আলী পাটোয়ারী, শিবু কান্তি দাশ, সৌমিত্র দেব, এম আর মনজু, নান্টু কুমার দাশ, আকাশ আহমেদ, নজরুল জাহান, রমজান আলী মামুন, জুবাইর জসীম, সাজিদ মোহন, মিলন বনিক, রোকেয়া হক, বিশ্বজিৎ বড়–য়া, অমিত বড়–য়া, নাসির উদ্দীন শাহ, আখতারী ইসলাম, শাহরিয়ার ফারজানা, সৈয়দা সেলিমা আকতার, নুরুন্নাহার বেগম, নিশাত হাসিনা শিরীন, সিতাংশু কর, মো. সাজ্জাদ আলী, মো. কামাল উদ্দিন, ইফতেখার মারুফ, আরিফ রায়হান, রাজন বড়–য়া, সাহিদা রহমান মুন্নী, অপু বড়–য়া, জোবাইর জসীম, সাজিদ মোহন প্রমুখ। অনুষ্ঠানের শেষে আবৃত্তি প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন সংগঠক এস এম আবদুল আজিজ, লায়ন জাহাঙ্গীর মিঞা, ডা. সাহেলা আবেদীন ও সাহিত্যিক মোস্তফা হোসেইন। ধন্যবাদ বক্তব্য দেন চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মহসিন চৌধুরী।