রাঙামাটি-কাপ্তাই-বান্দরবান সড়ক ১২ দিন পর সচল

প্রকাশ:| শনিবার, ২৪ জুন , ২০১৭ সময় ০৯:১০ অপরাহ্ণ

১২ দিন পর সচল হয়েছে রাঙামাটি-কাপ্তাই-বান্দরবান সড়ক। শনিবার সকাল থেকে রাঙামাটি-ঘাগড়া-বড়াইছড়ি সড়কটি হালকা যানচলাচলের জন্য খুলে দেওয়া হয়। তবে তিন টনের অধিক যান চলাচল করা যাবে না। সড়ক পুরোপুরি ঠিক হতে আরো সময় লাগতে পারে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানানো হয়েছে।

বিজিবি সূত্র জানা গেছে, সম্প্রতি টানা বর্ষণে রাঙামাটি-কাপ্তাই সড়কের প্রায় ২৫টি স্থানে পাহাড় ধসের ঘটনা ঘটে। এতে রাঙামাটি-ঘাগড়া,বড়াইছড়ি-কাপ্তাই সড়ক একেবারে বিধ্বস্ত হয়ে পড়ে। তাই বন্ধ হয়ে যায় যান চলাচল। বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় কাপ্তাই থেকে রাঙামাটি সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা। তবে গত ১৩ জুন পাহাড় ধসের ঘটনার পর কাপ্তাই উপজেলা ওয়াগ্গাছড়া জোন ১৯ বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) সড়ক সংস্কার কাজ শুরু করে।

কর্ণফুলী পেপার মিল থেকে দুইটি সড়ক ও জনপদ বিভাগ থেকে একটি ডোজার মেশিন নিয়ে কাজ শুরু করে বিজিবির ৩৫ সদস্য। তাদের রাত দিন পরিশ্রমের পর চলাচলের উপযোগী হয়েছে কাপ্তাই-রাঙামাটি সড়কটি। অবশেষে সড়ক যোগাযোগ শুরু হওয়ায় কিছুটা স্বস্তি ফিরেছে রাঙামাটি-কাপ্তাই ও বান্দরবানে পাহাড়ি জনপদে। এ অঞ্চলে স্বাভাবিক হতে শুরু হয়েছে যোগাযোগ ও ব্যবসা বাণিজ্য ব্যবস্থা।

এ ব্যাপারে কাপ্তাই উপজেলা ওয়াগ্গাছড়া জোন ১৯-বিজিবি উপ-অধিনায়ক (টুআইসি) মেজর মাহামুদ জানান, কাপ্তাই বড়াইছড়ি সড়কে প্রায় ২৫টি স্থানে পাহাড় ধসে বিধ্বস্ত হয়ে সড়ক যোগযোগ বন্ধ হয়ে যায়। বিজিবি কারো সহযোগীতা ছাড়াই সড়কটি সংস্কার কাজে নামে। মূলত সড়ক সংস্কারের দয়িত্ব সড়ক ও জনপদের। কিন্তু তারা এ কাজে কোনো সহযোগীতা করেনি। আপাতত এ সড়কে তিন টনের অধিক যান চলাচল করা যাবে না। সড়কে ১০টি ব্রিজের সবগুলোই নড়বড়ে। ব্রিজগুলো পুরোপুরি কবে সওজ মেরামত করবে সে বিষয়ে কোনো তথ্য তার কাছে নেই বলে জানান।

তবে এ বিষয়ে দায়সাড়া কথা বললেন রাঙামাটি এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী আদনান আজু। তিনি জানান, সড়কগুলো সংস্কারের পরিকল্পনার প্রয়োজন রয়েছে। তবে রাঙামাটির যেসব স্থানে সড়ক বিধ্বস্ত হয়েছে তা তিনটা ধাপে শুরু করা হবে। আপাতত হালকা যান চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া হয়েছে। এছাড়া রাঙামাটি আসামবস্তি-কাপ্তাই সড়ক যোগাযোগ সচল হয়েছে বলেও জানান তিনি।