রাঙামাটিতে পৌর বিএনপি’র কাউন্সিল সম্পন্ন

প্রকাশ:| রবিবার, ৬ সেপ্টেম্বর , ২০১৫ সময় ০৮:০২ অপরাহ্ণ

রাঙামাটিতে পৌর বিএনপি’র কাউন্সিল সম্পন্নরাঙামাটি প্রতিনিধিঃ সারা বাংলাদেশের মতো রাঙামাটিতেও আওয়ামীলীগ বিএনপিকে ধ্বংস করার পায়তারা করছে কারণ রাঙামাটির আওয়ামীলীগ,বিএনপিকে ভয় পায়। সেই কারণে রাঙামাটিতে বিএনপিকে বিভিন্ন প্রকার অপপ্রচার ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে বিলুপ্তির অপচেষ্টা করছে। এই ঐতিহাসিক মুহুর্তে সকল বিএনপি নেতাকর্মী কাছে আহব্বান জানাচ্ছি কোন প্রকার ষড়যন্ত্রের কাছে মাথা নত করবেন না। আমাদের মাঝে নেতৃত্বের প্রতিযোগিতা থাকতে পারে মতের পরিবর্তন থাকতে পারে, কিন্তু তারপরেও সকল নেতাকর্মীদেরকে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক ও রাঙামাটি জেলা বিএনপির সভাপতি এডভোকেট দীপেন দেওয়ান।
রোববার রাঙামাটি শহরের কাঠালতলীর ডিপ্লোমা ইঞ্জিনির্য়াস ইন্সটিটিউট মিলনায়তনে পৌর বিএনপির কাউন্সিল উপলক্ষ্যে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে দীপেন দেওয়ান এসব কথা বলেন। এর আগে সকালে কাউন্সিল উপলক্ষ্যে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন করে কাউন্সিল অনুষ্ঠানের সূচনা করেন প্রধান অতিথি সহ পৌর বিএনপির সভাপতি-সম্পাদক ও নয়টি ওয়ার্ডের নেতৃবৃন্দ।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্ত্যেবে দীপেন দেওয়ান আরো বলেন, শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান জনগনের প্রয়োজনে এই দল গঠন করেছেন কাজেই এই দলকে ধ্বংস করার যতই পায়তারা করা হোক না কেন এই দল ধ্বংস হবে না। কারণ বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল জনগণের দল। তিনি বলেন, ৫ জানুয়ারি ভুয়া ও পাতানো নির্বাচন দিয়ে ক্ষমতা দখল করে বিরোধী মতের সকল মানুষের উপর দমনপীড়ন নির্যাতন চালিয়ে যাচ্ছে এ অবৈধ সরকার। দেশের জনগন তা কোনদিন সহ্য করবে না। তিনি বলেন আমরা সকলে ঐক্যবদ্ধ থেকে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের মাধ্যমে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নির্দেশে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তুলব। কাউন্সিলের মাধ্যমে যোগ্য নেতৃত্ব সৃষ্টি হয়ে আসবে। আর আমরা সকলেই ঐক্যবদ্ধ থেকে আগামীতে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া আন্দোলনের যে ঘোষনাই দেন সাথে সাথে সকল নেতাকর্মীদেরকে সাথে নিয়ে আন্দোলনে শরীক হওয়ার প্রত্যয় ব্যাক্ত করেন।
প্রধান বক্তার বক্তব্যে রাঙামাটি জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক হাজী মোঃ শাহ আলম বলেন, আমাদের লড়াই ভোটার অধিকার আদায়ের লড়াই গণতান্ত্রিক অধিকার আদায়ের লড়াই, সংবাদপত্রের অধিকার আদায়ের লড়াই, মানবাধিকার আদায়ের লড়াই। শেখ হাসিনা হচ্ছে একদলীয় শাসন ব্যবস্থার ধারক অবৈধ সরকার। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে আন্দোলনের মাধ্যমে স্বৈরাচার সরকারকে পতন করে নির্দলীয়, নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে সব দলের অংশগ্রহণে মধ্যবর্তী নির্বাচন দিতে হবে। তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, আমাদের কাউন্সিল করতে পুলিশের অনুমতি নিতে হচ্ছে। বিএনপি হচ্ছে সুশৃংখল দল আমরা এ পর্যন্ত চারটি কাউন্সিল করেছি কোথাও কোন বিশৃংখলা হয় নাই। তিনি বলেন, দেশের মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার সভা সমাবেশ করার বর্তমান সরকার সেই সাংবিধানিক অধিকার হরণ করছে।
তিনি আরো বলেন, শিক্ষা ব্যবস্থাকে দুর্নীতির মাধ্যমে চীরতরে ধ্বংস করে দেওয়া ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে তারই ধারাবাহিকতায় গত শুক্রবার রাঙামাটিতে শিক্ষক নিয়োগের জন্য অত্র এলাকার হাজার হাজার ছেলেমেয়ে পরীক্ষা দিয়েছে সেই ছেলেমেয়েদের মধ্যে যারা ছাত্রলীগ যুবলীগ ও আওয়ামী রাজনীতির সাথে জড়িত তারা ছাড়া আর কারো চাকরি হবেনা বলে ঘোষনা দেওয়া হয়েছে। এর মাধ্যমে অনেক অযোগ্য ব্যক্তিদেরও শিক্ষকতার মতো মহান পেশায় যুক্ত করে শুধু শিক্ষা ব্যবস্থাকে ধ্বংস করা হবেনা ভবিষ্যৎ প্রজন্ম কে অনিশ্চিত অন্ধকারে ঠেলে দওেয়ার আরেকটি ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে। তিনি রাঙামাটি জেলা পরিষদের এই সিদ্ধান্তের তীব্র নিন্দা জানান। তিনি বলেন যারা মেধা ও যোগ্যতার ভিত্তিতে পরিক্ষায় উত্তীর্ণ হবেন তাদেরকেই শিক্ষক হিসিবে নিয়োগ দেওয়া হোক।
রবিবার ডিপ্লোমা ইঞ্জিনির্য়াস ইন্সটিটিউট মিলনায়তনে আয়োজিত কাউন্সিলে পৌর বিএনপির সভাপতি সাইফুল ইসলাম চৌধুরী ভুট্টোর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক এস,এম শফিউল আজমের পরিচালনায় বিশেষ অতিথি ছিলেন রাঙামাটি জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি হাজী জহির আহম্মেদ সওদাগর, সুজিত দেওয়ান জাপান, রবীন্দ্র লাল দে, সাংগঠনিক সম্পদক এডভোকেট এডভোকেট সাইফুল ইসলাম পনির, সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক দীপন তালুকদার, যুগ্ম সম্পদক ও উপজেলা বিএনপির সভাপতি এডভোকেট মামুনুর রশিদ মামুন, যুগ্ম সম্পাদক আবু বক্কর, জেলা স্বোচ্ছাসেবক দলের সভাপতি দেবজ্যতি চাকমা, জেলা শ্রমিক দলের সভাপতি মোঃ মমতাজ মিয়া, জেলা যুবদলের সভাপতি সাইফুল ইসলাম শাকিল, সাধারণ সম্পাদক মোঃ ইলিয়াছ, জেলা ওলামা দলের সভাপতি আবুল কাশেম, জেলা ছাত্রদলের সভাপতি আবু সাদাৎ মোঃ সায়েম, সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম তালুকদার,পৌর ছাত্রদলের সভাপতি ফারুক আহম্মেদ সাব্বির সহ বিএনপি ও অঙ্গ-সহযোগি সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
কাউন্সিলে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এস,এম, শফিউল আজম সভাপতি এবং মাহবুবুল বাসেত অপু সাধারণ সম্পাদক মনোনীত হন। কাউন্সিলরদের প্রত্যক্ষ ভোটে মোঃ মাহফুজ উদ্দিন মাহফুজ ৭৭ ভোট পেয়ে সাংগঠনিক সম্পাদক পদে নির্বাচিত হন, তার নীকটতম প্রতিদ্বন্ধি বাচ্চু মিয়া পান ৪২ ভোট।


আরোও সংবাদ