রাউজান উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ত্রিমুখী লড়াইয়ের আভাশ

প্রকাশ:| বুধবার, ১৯ মার্চ , ২০১৪ সময় ০৮:৫৮ অপরাহ্ণ

শফিউল আলম, রাউজান প্রতিনিধিঃ রাউজান উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ত্রিমুখী লড়াইয়ের আভাশ পাওয়া যাচ্ছে। আগামী ২৩ মার্চ উপজেলা পরিষদের নির্বাচনকে কেন্দ্র করে চেয়ারম্যান ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীরা এলাকায় বিরামহীন প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে। সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত সময়ে প্রার্থীরা এলাকায় ভোটারদের দ্বারে দ্বারে গিয়ে নিজ নিজ প্রতিকে ভোট চেয়ে বেড়াচ্ছেন । দুপুর ২ টার থেকে রাত ৯ টা পর্যন্ত সময়ে প্রার্থীরা মাইক দিয়ে এলাকায় প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন । উপজেলা নির্বাচন উপলক্ষে রাউজানের বিভিন্ন এলাকার হাট বাজার, অফিস, চায়ের দোকান, ষ্টেশনগুলোতে এলাকার লোকজনের মধ্যে চলছে আলাপ আলোচনা প্রার্থীদের মধ্যে কে যোগ্য কাকে ভোট দিলে এলাকার মানুষ সেবা পাবে। এলাকার লোকজন উপজেলা নির্বাচন নিয়ে আলোচনায় মেতে উঠেছে । এলাকার লোকজনের সাথে কথা বলে জানা গেছে রাউজান উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে তিন চেয়ারম্যান প্রার্থী আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী এহেসানুল হায়দার চৌধুরী বাবুল প্রতিক দোয়াত কলম, আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মুসলিম উদ্দিন খান প্রতিক কাপ পিরিচ, বিএনপির প্রার্থী আনোয়ার হোসেন প্রতিক আনারস এর ত্রিমুখি প্রতিদ›িদ্ধতা হবে । নির্বাচনী প্রচার প্রচারণায় আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী এহেসানুল হায়দার চৌধুরী বাবুল প্রতিক দোয়াত কলম, আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মুসলিম উদ্দিন খান প্রতিক কাপ পিরিচ এগিয়ে রয়েছে । বিএনপির প্রার্থী আনোয়ার হোসেন প্রতিক আনারস প্রচার প্রচারণায় শুধু কিছু কিছু এলাকায় পোষ্টার দিলে ও আর কোন প্রচারণা চলছেনা । এলাকার লোকজন ধারণা করছেন রাউজানের বিভিন্ন এলাকার বিএনপির নেতা কর্মী ও সমর্থকেরা নিরব থাকলে ও ভোটের দিন বিএনপি কর্মী সমর্থকেরা বিএপির প্রার্থীকে ভোট দেবেন । এলাকায় ঘুরে মানুষের সাথে কথা বলে জানা গেছে, কিছু কিছু এলাকায় গত ২০০৮ সালের সংসদ নির্বাচনের পর বর্তমান সরকার আসলে বিএনপির অনেক নেতা কর্মী ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগে যোগ দিয়ে ঠিকাদারী, ইটের ভাটার ব্যবসা কাঠ ব্যবসা করে বিশাল অর্থ বিত্তের মালিক হয় ।আওয়ামী লীগের দুর্দিনে যারা কাজ করেন ঐ সব নেতা কর্মীরা নবাগত আওয়ামী লীগ নেতাদের নির্যাতনের ও শিকার হয় । গত সংসদ নির্বাচনের পুর্বে ঐ সব সুবিধাবাদী নব্য আওয়ামী লীগ নেতারা সরে পড়ে। গত জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর আওয়ামী লীগ আবারো ক্ষমতায় আসলেও সুবিধাবাদী নব্য আওয়ামী লীগ নেতারা আবারো ক্ষমতাসীন দলের মধ্যে প্রবেশ করেন । রাউজান উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে নব্য সুবিধাবাদী আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীরা দিনে আওয়ামী লীগ রাতে বিএনপির শীর্ষ পর্যায়ের নেতা কর্মীদের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করে বিএনপির প্রার্থীর পক্ষে কাজ করছেন বলে এলাকার লোকজন জানান । উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মধ্যে ঘাপটি মেরে বসে থাকা সুবিধাবাদী নব্য আওয়ামী লীগ নেতারা বিএনপির প্রার্থী আনোয়ার হোসেনের পক্ষে কাজ করতে পারে বলে আশংকা করছেন এলাকার লোকজন । রাউজান উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে চেয়ার ম্যান পদে আওয়ামী লীগের প্রার্থী এহসানুল হায়দার বাবুল, বিদ্রোহী প্রার্থী মুসলিম উদ্দিন খান, বিএনপির প্রার্থী আনোয়ার হোসেনের মধ্যে ত্রিমুখি প্রতিদ›িদ্ধতা হবে এ্টাই নিশ্চিত ধরে নিচ্ছে এলাকার মানুষ । রাউজান উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের প্রার্থী নুর মোহাম্মদ আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আবুল কাসেম জাতীয় পার্টির প্রার্থী শফিক উল আলমের মধ্যে প্রতিদ›িদ্ধতা হবে বলে ধারণা করছেন এলাকার লোকজন । বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী ওবাইদুল আকবর রোমানের তেমন কোন প্রচার প্রচারণা নেই । উপজেলা নির্বাচনে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী আওয়ামী লীগের প্রার্থী ফৌজিয়া খানম িিমনা, আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আইরুন নিছা নিলু বিএনপির মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী ফরিদা আকতারের সাথে ত্রিমুখি প্রতিদ›িদ্ধতা হবে বলে ধারনা করা হচ্ছে । আগামী ২৩ মার্চ রবিবার রাউজান উপজেলা পরিষদের নির্বাচন অনুষ্টিত হবে । উপজেলা নির্বাচনে রাউজানে ভোটার সংখ্যা দই লক্ষ ছত্রিশ হাজার আটশত বায়ান্ন জন । মোট ভোট কেন্দ্র তিরাশিটি, মোট ভোট কক্ষ ছয়শত বায়ান্নটি । রাউজান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সহকারী রিটানিং অফিসার কুল প্রদীপ চাকমা বলেন, উপজেলা পরিষদেও নির্বাচন অনুষ্টানের যাবতীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েংছে । রাউজান উপজেলা তিরাশিটি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে উনত্রিশটি ভোট কেন্দ্র ঝুকিপুর্ণ হিসাবে চিহ্নিত করা হয়েছে । ঝুকির্পূণ ভোট কেন্দ্রে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হবে । নির্বাচন অনুষ্টানের জন্য সেনাবাহিনী, বর্ডার গার্ড, র‌্যাব, পুলিশ, আনসার সদস্যরা দায়িত্ব পালন করবে বলে হচ্ছে ।


আরোও সংবাদ