রাউজানে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানির অভিযোগ

নিউজচিটাগাং২৪/ এক্স প্রকাশ:| সোমবার, ২৩ জুলাই , ২০১৮ সময় ০৮:৪৮ অপরাহ্ণ

শফিউল আলম, রাউজান:
রাউজানে দুই সন্তানের জননী নাছিমা আক্তার (২৭) এর পরকিয়ার ঘটনা চাপাদিতে এক প্রবাসী ও তার স্ত্রীকে মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে হয়রানির অভিযোগ। আজ সোমবার বিকেলে উপজেলার নোয়াপাড়া পথেরহাট মালঞ্চ রেষ্টুরেণ্টে এক সংবাদ সম্মেলনে রুহুল অমিন সওদাগর বাড়ীর প্রবাসী জালাল আহাম্মদের স্ত্রী রোকসানা আক্তার সাংবাদিকদের কাছে বলেন, আমার জা,দুই সন্তানের জননী নাছিমা আক্তার পরকিয়া প্রেমিক মো:সাদেক, (পিতা-মোঃ হাবিব উল্লাহ) নামের এক সি.এন.জি চালক এর সাথে পালিয়ে যাওয়ার প্রকৃত ঘটনা ভিন্ন দিয়ে প্রবাহীত করতে তার ভাবি বাগোয়ান ইউনিয়নের গশ্চি আজিজ চেয়ারম্যানের বাড়ীর সফিউল আলমের স্ত্রী নাসরিন সোলতানা পারুল, নাছিমা আক্তার কে বাচাতে তার ভাশুর প্রবাসী জালাল আহাম্মদ ও তাঁহার স্ত্রী রোখসানা আক্তারকে আদালতে নারী ও শিশু নির্যাতন (২১/১১/২০১৭ইং) মামলা দিয়ে হয়রানি করছে। উপস্থিত ছিলেন রোকসানার মা, ও ভাই আবু তাহের চাচাত ভাই মোহাম্মদ ইউনুছ মিয়া, এসময় রোকসানা আক্তার অভিযোগ করেন আমার জা, নাছিমা আক্তার গত ০৬/১০/২০১৭ইং তারিখ আনুমানিক ভোর ৫টায় পরকিয়া প্রেমিক সাদেক, (পিতা-মোঃ হাবিব উল্ল্যাহ) নামের এক সি.এন.জি চালক এর সাথে পালিয়ে যায়। ঐদিন ভিকটিমের শাশুরী ফেরদৌস বেগম ঘটনা উল্লেখ করিয়া ০৬/১০/২০১৭ইং রাউজান থানায় ১টি অভিযোগ দায়ের করেন। পরদিন (০৭/১০/২০১৭ইং) ভিকটিমের চাচা মো: নাছের রাউজান থানায় আরো একটি অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগে উল্লেখ আছে যে, মো: ইয়াকুব আলী প্রকাশ শেখ আহম্মদ এর স্ত্রী নাছিমা আক্তারকে নোয়াপাড়া চৌধুরী ঘাটকুল এলাকার হাবিবুল্লাার ছেলে মো: সাদেক নিয়ে গেছে সেখানে আমাদের ব্যপারে কোন অভিযোগ ছিলনা।তাছাড়া নাছিমা আকতার তার স্বামী এয়াকুব আলী প্রকাশ শেখ আহম্মদকে পালিয়ে যাওয়ার পূর্বে গত ০৪/০৭/২০১৭ইং তালাক দিয়েছিল।এরপরও নাছিমার ভাবী নাছরীন সুলতানা পারুল ঘটনা ভিন্ন দিকে প্রবাহীত করতে ভিকটিমের ভাশুর প্রবাসী জালাল আহাম্মদ ও তাঁহার স্ত্রী রোখসানা আক্তারকে জড়িয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন মামলা নং-৬৯৪/২০১৭ইং ফৌজদারী অভিযোগ দিয়ে ভিকটিম ও প্রকৃত ঘঠনায় জড়িতকে বাঁচাতে প্রতারণা মূলক মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানী করা হচ্ছে। যাহার প্রকৃত ঘঠনা সমগ্র এলাকাবাসী, স্থানীয় মেম্বার ও চেয়ারম্যান জানেন বিধায় তার পরও প্রকৃত ঘটনা চাপা রেখে এবং রাউজান থানায় দায়ের করা ২টি অভিযোগ এর সত্যতা আড়াল করে আমাদেরকে মামলাদিয়ে হয়রানী করা হচ্ছে।তিনি প্রকৃত সত্য ঘটনা উৎঘাটনের দাবী জানান।রাউজান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কেপায়েত উল্লাহ বলেন ‘নাছিমা আকতারের নিখোঁজের বিষয়টি প্রেমঘটিত হতে পারে।’ সাংবাদিক সম্মেলনে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন রোকসানা আকতারের মা নুর নাহার বেগম ও ভাই আবু তাহের প্রমুখ। উল্লেখ্য রাউজান উপজেলার নোয়াপাড়া ইউনিয়নের গৃহবধু নাছিমা আকতার গত বছরেরর ৬ অক্টোবর ভোর থেকে নিখোজ রয়েছেন। পরে ২১ নভেম্বর চট্টগ্রামের নারী ও শিশুি র্নযাতন দমন আইনে ভাসুর ও জা কে আসামী করে একটি মামলা করেন নিখোজ নাছিমার ভাবী পারুল আকতার।