রাউজানে ভন্ড দুলাল বৈদ্য ও মাওলানা ফখরুল আটক

প্রকাশ:| রবিবার, ১২ অক্টোবর , ২০১৪ সময় ১১:২২ অপরাহ্ণ

শফিউল আলম, রাউজানঃ রাউজানের নোয়াপাড়া থেকে ২ ভন্ড বৈদ্যকে আটক করেছে রাউজান থানা পুলিশ। ১২ অক্টোবর রবিবার তাদের আদালর্তে সোর্পদ করা হলে আদালত তাদের জামিন আবেদন নাকচ করে জেল হাজতে প্রেরণ করেন। শনিবার বিকালে উপজেলার ব্যবস্ততম নোয়াপাড়া পথেরহাটের পল্লি মঙ্গল সমিতির পার্শ্বের বৈদ্য বাড়ীর আসর থেকে তাদের দুজনকে আটক করা হয়।
আটকৃত ভন্ড বৈদ্যরা হলেন, নোয়াপাড়া বৈদ্য বাড়ীর গয়েন্দ্র লাল দাশের ছেলে দুলাল চন্দ্র দাশ বৈদ্য (৪৯), হাটহাজারী উপজেলার মার্দাশা গ্রামের নাছির চৌধুরীর ছেলে মাওলানা ফখরুল ইসলাম (৪৩)।
রাউজান থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশ বলেন, গত শনিবার বিকালে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তাদের আটক করা হয়। তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ র্দীঘদিন থেকে তারা বৈদ্য সেজে স্থানীয় লোকজনের কাছ থেকে ঝাড় ফুকের মাধ্যমে প্রতারণা করে টাকা আদায় করছিল। রবিবার তাদের আদালতে সোর্পদ করা হলে আদালত তাদের জেল হাজতে প্রেরণ করেন বলে জানান তিনি।
এদিকে স্থানীয় সূত্র জানিয়েছে, নোয়াপাড়া পথেরহাটের পার্শ্বে দুলাল বৈদ্য ঝাড় ফুকের অসর গড়ে তোলে মানুষজনকে তাবিজ কবজ আর পানি পড়া দিয়ে রোগ বলায় সারার কথা বলে প্রতারণা করে আসছে দীর্ঘদিন থেকে। এ পথে তার ভালই আয় রোজগার হচ্ছিল। তাই ঝাড় ফুকের ব্যবসা আরো জমজমাট করে মুসলিম মক্কেলদের কাছে টানতে মাওলানা ফখরুল ইসলাম নামের আরেক ভন্ড বৈদ্যকে তার সাথে নিয়োগ দেন। তিনি মুসলিম রোগিদের তাবিজ লিখে দিতেন। তার বাড়ী পার্শ্ববর্তি হাটহাজারী উপজেলার মাদার্শা গ্রামে। এছাড়াও বড়–য়াদের আকৃষ্ট করতে একজন চাকমা বৈদ্যকেও সাথে রাখতেন দুলাল বৈদ্য। সূত্র আরো জানায়, দুলাল বৈদ্যঘিরি করে অনেক ধন সম্পদের মালিক হয়েছেন। বানিয়েছেন ২য় তল ভবনের বিলাশ বহুল বাড়ী ও গাড়ী। এছাড়াও তিনি তার ইনকাম থেকে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে দান করতেন বলেও প্রচার রয়েছে এলাকায়।