রাউজানে ঋনের দায়ে মিথ্যা অপহরনের নাটক এক যুবকের

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ২৪ ডিসেম্বর , ২০১৩ সময় ১১:১৯ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিনিধি, রাউজান ঃ ঋনের দায়ে নিজেকে পালিয়ে অপহরনের মিথ্যা নাটক করলেন রাউজানের এক যুবক। সেই উল্টো পাওনাদারদের আসামী করে অপহরন মামলা দায়ের করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। জানা যায়, রাউজান পৌর এলাকার ৬নং ওয়ার্ড ছিটিয়াপাড়ার বাসিন্ধা বিকাশ দাশ এলাকার বিভিন্ন লোকজন হতে ব্যবসার জন্য কয়েক লক্ষ টাকা ঋন নেয়। ঋন করা টাকা লভ্যাংশসহ প্রায় দ্বিগুন হয়ে যায়। পাওনাদারদের যন্ত্রণায় অতিষ্ট হয়ে আত্ম রক্ষায় বিকাশ বেঁেচ নেয় অভিনব অপহরনের নাটক। এলাকা সূত্রে জানা যায়, হঠাৎ গত ১৯ নভেম্বর সবার অগোচরে আত্ম পোপনে চলে যায় সেই। পরে তার পারিবারিক সদস্যরা বিকাশ অপহরণ হয়েছে বলে প্রচার করে। এব্যাপারে বিকাশের স্ত্রী বাদী হয়ে চট্টগ্রাম জেলা মেজিষ্ট্রেট আদালতে একটি অপহরণ মামলা দায়ের করেন। এ মামলায় আসামী করা হয় টাকা পাওনাদারদের। অপহরণে নাটক সত্য বলে নিশ্চিত করাতে আদালতে মামলা করার পর স্থানীয় সাংবাদিকদের ডেকে সংবাদ সম্মেলনও করেন তার পরিবার। অবশেষে অপহরনের ১০ দিন পর ২৯ নভেম্বর উপজেলার দক্ষিণের জগৎপুর আশ্রম এলাকায় হাত পা বন্ধ অবস্থায় অপহরনকারীরা ফেলে যায় বলে প্রচার করে সাংবাদিকদের কাছে। পুলিশের সহায়তা না নিয়ে বিকাশের স্ত্রী শিল্পী দাশ ্একটি অটো রিক্্রা নিয়ে জগৎপুর আশ্রম থেকে তাকে উদ্ধার করে। তবে অটো রিক্্রার চালক সাত্তার এই প্রতিনিধিকে জানান, হাত পা বন্ধ ছিল না বিকাশের। একটি জায়গায় বসা ছিল বিকাশ। সেখান থেকে তাকে বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়। অপহরণের সব নাটকের ইতিটানলেও শেষ রক্ষা হচ্ছেনা বিকাশের। টাকা পাওনাদারগন প্রতিদিন বাড়িতে ভির করছে টাকা আদায়ে। অতিষ্ট বিকাশ স্থানীয় সন্ত্রাসী দিয়ে তাদের হুমকী দমকী দিচ্ছে বলে জানান। বিকাশ দাশ মিথ্যা অপহরণ মামলা রুজু করে পুলিশ দিয়ে হয়রানী করার অভিযোগ করেছে শম্পা দাশ নামের এক মহিলা। তার দাবি বিকাশ জায়গা বিক্রি করবে বলে পঞ্চাশ হাজার টাকা নিয়েছে। দেয়া টাকা চাইলে মিথ্যা অপহরণ মামলা দিয়ে তার স্বজনদেকে হয়রানী করছে। আবদুল কাদের নিরু নামে একজন অভিযোগ করেছে সেই ৭৮ জাহার টাকা ধার দেয় বিকাশকে। একই ভাবে প্রতারক বিকাশের কাছে লভ্যাংশে ঋন দিয়েছে কাউখালীর বেতবুনিয়া এলাকার উচি মং মারমা ১ লক্ষ ৭৮ হাজার টাকা, রাংগুনিয়া উপজেলার রাণীর হাট এলাকার হাসান চার লক্ষ টাকাসহ একাদিক এনজিও প্রতিষ্ঠান পাবে কয়েক লক্ষ টাকা। বিকাশের বিরুদ্ধে রাউজান থানায় রয়েছে ডাবুয়া এলাকায় মন্দির হতে মুক্তি চুরির মামলা ।


আরোও সংবাদ