রমজানে ৫-১০ টাকা বাড়লে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই

প্রকাশ:| সোমবার, ১ জুন , ২০১৫ সময় ০৮:২১ অপরাহ্ণ

আসন্ন রমজানে নিত্যপণ্যের দাম ৫-১০ টাকা বৃদ্ধি পেলে আতঙ্কিত হওয়ার কিছুই নেই বলে জানিয়েছেন মৌলভী বাজার ডাল ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো. শফিকুল ইসলাম। তিনি বলেন, ‘গত কয়েক দিনে ভোক্তারা ক্রয় কমিয়ে দিয়েছে। এজন্য আমরা ভর্তুকি দিয়ে পণ্য বিক্রি করছি। রমজানে ৫-১০ টাকা বাড়লে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই।’

সোমবার দুপুরে রাজধানীর রাজধানীর মৌলভী বাজার ব্যবসায়ীদের সঙ্গে রমজানের দ্রব্যমূল্য স্থিতিশীল নিয়ে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র সাঈদ খোকনের সঙ্গে এক মতবিনিময় সভায় তিনি এ কথা বলেন। পরে মেয়র তার বক্তব্যে রমজানে নিত্যপণ্যের দাম স্থিতিশীল রাখার আহ্বান জানান।

অনুষ্ঠানে ব্যবসায়ী নেতা হাজী আবুল হাসেন মেয়রের প্রতি অনুরোধ করে বলেন, ‘সিটি করপোরেশনের নিরাপত্তার জন্য স্ট্রিট লাইটিং প্রয়োজন। আপনি তা ঠিক করার ব্যবস্থা করুন। আমরা ব্যবসায়ীরা চরম নিরাপত্তাহীনতায় আছি।’

হাজী আব্দুস সালাম বলেন, ‘আমরা ব্যবসায়ীরা এখন থেকে হাজার কোটি টাকা সরকারকে রাজস্ব দেই। কিন্তু এ এলাকার রাস্তা-ঘাট এতই নাজুক যে ক্রেতারা এখানে আসতে চান না। দয়া করে রাস্তাগুলো ঠিক করে দিন।’

সভায় ব্যবসায়ী নেতারা বলেন, ‘আমরা বাবা-মা সবই পাইছি। এর পাশাপাশি ভাই-ব্রাদারও পেয়েছি। এখন শুধু উদ্যোগ ও সমাধানের পালা। আমাদের যানজট, রাস্তা-ঘাট, ড্রেন, লাইটের সমস্যা রয়েছে। এখন আমাদের মতামতের ভিত্তিতে কাজ করতে হবে। আমরা সিটি করপোরেশনকে সিটি করাপশনে (দুর্নীতি) দেখতে চাই না।’

৩১ নং কাউন্সিলর রফিকুল ইসলাম রাসেল বলেন, ‘মৌলভী বাজার কাঁচা বাজারটি পাকা করার ব্যবস্থা করুন। কমিউনিটি সেন্টারটি খুবই ঝুঁকিতে। ভূমিকম্প হলেই ধসে পড়ার আশঙ্কা আছে। তাছাড়া সামান্য বৃষ্টি হলেই এলাকায় হাটু পানি হয়। ড্রেনের ব্যবস্থা করেন।’

পরে মেয়র বলেন, ‘আপনাদের সুখে-দুঃখে আছি, থাকবো। আপনাদেরও আমার সঙ্গে থাকতে হবে। উন্নত দেশগুলোতে রমজানে নিত্যপণ্যের দাম কমে। আর আমাদের দেশে উল্টো। এই দাম স্থিতিশীল রাখতে হবে।’

মেয়র বলেন, ‘আপনার দ্রুত একটি রেজুলেশন দেন। আমি ৭ দিনের মধ্যে ওয়ার্ক ওর্ডার দিয়ে দিবো। আগামী ১০ দিনের মধ্যে ড্রেনের ব্যবস্থা করে দেবো।’

মেয়র আরো বলেন, ‘আগে নগরীর ২০ শতাংশ বাতি চলতো না। এখন ৮০ থেকে ৯৫ শতাংশ বাতি জ্বলে। এর পরেও যদি কোথাও বাতি না জ্বলে আমাকে জানাবেন। সঙ্গে সঙ্গে হয়ে যাবে।’

অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন, ডিএনসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আনছার আলী খান, কমিশনার হুমায়ুন কবির, কাউন্সিলর হাজী দেলোয়ার হোসেন, মোশারফ হোসেন, হাসিবুর রহমান মালিক, রফিকুল ইসলাম রাসেল প্রমুখ।