যৌন হয়রানির সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করার দাবি

প্রকাশ:| শনিবার, ৩০ মে , ২০১৫ সময় ০৮:৫৭ অপরাহ্ণ

ctg brackযৌন হয়রানি, ধর্ষণসহ যে কোন ধরণের নারী ও শিশু নির্যাতনের ঘটনায় দ্রুততম সময়ের মধ্যে দৃষ্টান্তমূলক সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করার দাবি এসেছে বেসরকারি উন্নয়ন প্রতিষ্ঠান ব্র্যাক আয়োজিত একটি সভা থেকে।

শনিবার দুপুর ১২টায় নগরীর আগ্রাবাদস্থ বাংলাদেশ ব্যাংক কলোনি উচ্চ বিদ্যালয় বেসরকারি উন্নয়ন প্রতিষ্ঠান ব্র্যাক, যৌন হয়রানি প্রতিরোধে সচেতনতা তৈরিতে মেয়েদের জন্য নিরাপদ নাগরিকত্ব (মেজনিন) কর্মসূচি কমিউনিটি ওয়াচগ্রুপ সভার আয়োজন করে।

সভায় বক্তারা বলেন, যৌন হয়রানিকে উত্ত্যক্তকরণ, টিজিং বা যে নামেই অভিহিত করা হোক না কেন এটি নারী নির্যাতনের একটি হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। পুরুষতান্ত্রিক মানসিকতা, সমাজে ও পরিবারে নারীর প্রতি সম্মানের অভাব এবং এর প্রতিফলন হিসেবে সম্প্রতি যৌন হয়রানি সামাজিক ব্যাধি হিসেবে পরিনত হয়েছে।

বক্তারা আরো বলেন, ‘যৌন হয়রানির মাধ্যমে নারীর মৌলিক মানবাধিকার সর্বোপরি বেঁচে থাকার অধিকার লঙ্ঘিত হচ্ছে।’

যৌন হয়রানি নির্মূলকরণে মিডিয়ার ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ উল্লেখ করে মিডিয়া কর্মীদেরকে এ বিষয়ে আরও বেশী সংবাদ প্রকাশসহ যথাযথ ভূমিকা রাখার আহবান জানান বক্তারা।

আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন- চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সিনিয়র সহ-সভাপতি কাজী আবুল মনসুর, আজকের সূর্যোদয়ের জুবায়ের সিদ্দিকি, আলোকিত বাংলাদেশের নিপুল কুমার দে, বাংলাদেশ ব্যাংক কলোনি উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সদস্য মোঃ নুরুল আলম, ব্র্যাকের সেক্টর স্পেশালিষ্ট মেহেদী হাসান ও জুনিয়র সেক্টর স্পেশালিস্ট নাজিম উদ্দীন প্রমুখ।

প্রসঙ্গত ‘নারী ও কিশোরীদের প্রতি সব রকম সহিংসতা ও যৌন হয়রানি নির্মূলকরণে’ ব্র্যাকের জেন্ডার জাস্টিস অ্যান্ড ডাইভারসিটি বিভাগ এক বছরের পাইলটিং শেষে ‘মেয়েদের জন্য নিরাপদ নাগরিকত্ব (মেজনিন)’ কর্মসূচি বাস্তবায়ন করছে। এই কর্মসূচি যৌন হয়রানির বিরুদ্ধে ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষক, অভিভাবক, বিভিন্ন পর্যায়ের সরকারী কর্মকর্তা, আইনজীবি, আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী পুলিশ বাহিনী, সাংবাদিকদের কার্যকর অংশগ্রহণ নিশ্চিত করার মাধ্যমে যৌন হয়রানির বিরুদ্ধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলার লক্ষে কাজ করছে।

উল্লেখ্য মেজনিন কর্মসূচি চট্টগ্রামে ৪৪টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়সহ সারাদেশে ৪০৫টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে সচেতনতামূলক কাজ করে যাচ্ছে।