যৌতুকের জন্য স্ত্রীকে হত্যা করে লাশ ভাসিয়ে দেয়ার কথা স্বীকার করল স্বামী

প্রকাশ:| বুধবার, ৫ ফেব্রুয়ারি , ২০১৪ সময় ০৫:২৫ অপরাহ্ণ

নগরীর বাকলিয়া থানার বলিরহাট এলাকার যৌতুকের জন্য স্ত্রী আরজু আক্তারকে (২২) হত্যা করে লাশ ভাসিয়ে দেয়ার কথা স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছেন মো. সেলিম (৩০)।

মঙ্গলবার চট্টগ্রাম মহানগর হাকিম নূরে আলম ভূঁইয়ার আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন তিনি। সেলিম পেশায় একজন কাঠমিস্ত্রি। স্ত্রীসহ বলিরহাট এলাকায় বসবাস করতেন। পাঁচ মাসের একটি কন্যা শিশু রয়েছে তাদের।

বাকলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মহসিন বলেন, ‘আরজু আক্তারের লাশটি খাল থেকে উদ্ধারের পর তার ভাই বাদী হয়ে একটি অপমৃত্যু মামলা করেছিলেন। মামলাটি তদন্ত করতে গেলে খুনের রহস্য বের হয়ে আসে। এরপর সেলিমকে গ্রেপ্তার করে আদালতে হাজির করলে তিনি খুনের দায় স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দেন।’

আদালত সূত্রে জানা গেছে, বিয়ের পর থেকেই যৌতুকের জন্য স্ত্রীকে নির্যাতন করতেন সেলিম। গত বছরের ৯ সেপ্টেম্বর স্ত্রীকে আবারো মারধর করেন এবং এক পর্যায়ে কাঠের পিঁড়ি দিয়ে মাথায় আঘাত করেন। এতে আরজু জ্ঞান হারিয়ে ঢলে পড়লে সেলিম পরনের শাড়ি খুলে তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে লাশ বাড়ির পেছনে কর্ণফুলী নদীর একটি শাখা খালের জোয়ারের পানিতে ভাসিয়ে দেন। হত্যাকাণ্ডের পরদিন পুলিশ ওই খাল থেকে লাশটি উদ্ধার করে।

এ ঘটনায় দায়ের হওয়া অপমৃত্যু মামলা তদন্ত করতে গিয়ে আরজুকে হত্যা করার বিষয়টি বেরিয়ে এলে গত ২১ জানুয়ারি অপমৃত্যু মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা বাকলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আবদুল্লাহ একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। সর্বশেষ সোমবার রাতে বাকলিয়া খাজা রোড থেকে সেলিমকে গ্রেপ্তার করে পুলিশের একটি দল। মঙ্গলবার তাকে আদালতে পাঠানো হলে তিনি দায় স্বীকার করে জবানবন্দি দেয়।