যুক্তরাজ্যে প্রবেশ করতে দেয়া হয়নি…

প্রকাশ:| বুধবার, ২৩ ডিসেম্বর , ২০১৫ সময় ১১:০০ অপরাহ্ণ

যুক্তরাজ্যের গেটউইক বিমানবন্দরে গত ১৫ ডিসেম্বর যুক্তরাষ্ট্রগামী ১১ সদস্যের এক ব্রিটিশ মুসলিম পরিবারকে আটকে দেয়ার পর এ পর্যন্ত কমপক্ষে আরো ১০ ব্রিটিশ মুসলিমকে দেশটিতে প্রবেশ করতে দেয়া হয়নি।

আর কখনোই যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করতে দেয়া হবে না- এমন ভয়ে তারা প্রকাশ্যে কোনো কথাও বলছেন না।

বুধবার যুক্তরাজ্যের প্রখ্যাত ইমাম আজমল মাসরুর তার ফেসবুক বার্তায় এসব তথ্য জানিয়েছে বলে জানায় ব্রিটিশ গণমাধ্যম ইন্ডিপেন্ডেন্ট।

তিনি তার ফেসবুক পাতায় লেখেন, গত ১৭ ডিসেম্বর যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশের ক্ষেত্রে হিথ্রু ‍বিমান বন্দর থেকে তার ভিসাও ফেরত দেয়া হয়েছে। বিষয়টি প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরুনকে জানানো হয়েছে বলেও জানান তিনি।

৪৪ বছর বয়সী এই ইমাম তার ফেসবুক পোস্টে লিখেন, ‘তারা প্রকাশ্যে কিছু বললে তাদের আর যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করতে দেয়া হবে না- এই ভয়ে তারা অত্যন্ত ভীত। আমি এসব ভয় পাই না। প্রকাশ্যে সত্য বলতে আমার কোনো ভয় নেই।’

তিনি আরো লিখেন, ‘জাতি বিদ্বেষের মতো বাজে প্রবণতা নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেছে। এটা বন্ধ করতে হবে।’

তিনি জানান, তিনি দীর্ঘক্ষণ হিথ্রু বিমান বন্দরে অপেক্ষা করার পর তার পরিচয় জানতে পেরে কর্মকর্তারা তাকে জানান, তিনি যুক্তরাষ্ট্র ভ্রমণ করতে পারবেন না।

ইন্ডিপেন্ডেন্ট জানায়, আজমল মাসরুর সব সময় ইসলামি চরমপন্থার বিরুদ্ধে কথা বলে এসেছেন। এ বিষয় কথা বলার জন্য তাকে যুক্তরাজ্যের মার্কিন দূতাবাসে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল।

এখন পর্যন্ত বিষয়টি নিয়ে কোনো কারণ দর্শানো না হলেও বা কেউ ক্ষমা প্রার্থনা না করলেও যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তারা তার প্রতি সহানুভূতি প্রকাশ করেছেন এবং ঘটনাটি তদন্তের আশ্বাস দিয়েছেন। তার মতে ডোনাল্ড ট্রাম্প ধর্মীয় বিদ্বেষের বিষ ছড়িয়ে দিচ্ছেন।

এর আগে ১১ সদস্যের এক ব্রিটিশ মুসলিম পরিবারকে যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলেসে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা দেয় কর্তৃপক্ষ। এ বিষয়ে এখানো কোনো ব্যাখ্যা দেয়নি তারা।

দ্য গার্ডিয়ানের এক প্রতিবেদনে জানানো হয়, শিশুসহ ১১ সদস্যের ব্রিটিশ মুসলিম পরিবারটিকে গত ১৫ ডিসেম্বর যুক্তরাজ্যের গেটউইক বিমানবন্দরে আটকে দেয়া হয়।