যারা অপকর্ম করেছেন তারা মনোনয়ন পাবেন না: ওবায়দুল কাদের

প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই , ২০১৩ সময় ১০:৫১ অপরাহ্ণ

যেসব সংসদ সদস্য অপকর্ম করেছেন তারা আগামী নির্বাচনে মনোনয়ন পাবেন না বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়ামal-iftaar সদস্য ও যোগাযোগ মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। আওয়ামী লীগ তাদের অপকর্মের দায় নেবেনা বলেও জানিয়েছেন তিনি।

বৃহস্পতিবার নগরীর একটি কমিউনিটি সেন্টারে দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত তৃণমূল সমাবেশ ও ইফতার মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

যোগাযোগ মন্ত্রী বলেন, ‘যেসব জনপ্রতিনিধি ক্ষমতার দাপটে জনস্বার্থ উপেক্ষা করে অপকর্ম করেছেন, ক্ষমতার দাপটে জমিদারি মানসিকতা নিয়ে আচরণ করে জনগণকে দূরে ঠেলে দিয়েছেন, তারা আওয়ামী লীগের মনোনয়নের কথা ভুলে যান। তাদের দায় আওয়ামী লীগ নেবেন‍া।’

তিনি বলেন, ‘যারা ইমেজ সংকটের কারণে দল ও সরকারের ঘাড়ে বোঝা হয়ে আছেন, তারা যত দ্রুত সম্ভব সরে পড়ুন। জমিদারি মানসিকতা পরিহার করুন। আওয়ামী লীগ নেতার সংগঠন, জমিদারের সংগঠন নয়। নেতা নেতার মত আচরণ করুন, জমিদারের মত আচরণ করবেন না। যারা জমিদারের মত আচরণ করে জনবিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছেন তাদের দায় দল নেবেনা।’

নেতাকর্মীদের জনগণের সঙ্গে ভালো আচরণ করার পরামর্শ দিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘ভালো আচরণ করে জনগণকে খুশি করুন। যদি ভালো আচরণ না করেন, তাহলে অনেক ভাল ‍অর্জন ম্লান হয়ে যাবে। নির্বাচনে বাকি মাত্র তিন মাসে। এ তিন মাসে আপনাদের জন্য এজেন্ডা শুধু একটাই, সব‍ার ঘরে ঘরে যান, ভাল আচরণ দিয়ে মানুষের মন জয় করুন।’

তিনি বলেন, ‘একটা বিষয় না বলে পারছিনা, আওয়ামী লীগের শত্রু কিন্তু আওয়ামী লীগ। আমরা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা যতটা না প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে সমালোচনা করি, তার চেয়ে বেশি করি নিজেদের বিরুদ্ধে। নিজেদের সমালোচনা করে আমরা নিজেদের দুর্বলতা প্রতিপক্ষের সামনে উন্মোচন করি।’

পাঁচ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের প্রসঙ্গ উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমাদের অস্তিত্বের ভিত্তিমূলে আঘাত এসেছে। এখন কোন্দল, মশারির ভেতর মশারি খাটানোর রাজনীতি থেকে আমাদের বেরিয়ে আসতে হবে। যারা দলের ভেতর বসে ছুরিকাঘাত করছেন, দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে তাদের শাস্তি পেতে হবে।’

নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ‘এ পরাজয় আমাদের প্রয়োজন ছিল। পরাজয়, ভুল থেকে শিক্ষা নিয়ে নিজেদের সংশোধন করুন। এতে কোন লজ্জা নেই। মানুষের ভালবাসার চেয়ে বড় সম্পদ আর কিছু নেই। কৃতকর্মের জন্য ভুল স্বীকার করে মানুষের কাছে ক্ষমা চান।’

তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগের উপর অনেক আঘাত এসেছে, রক্ত ঝরেছে। পঁচাত্তরে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর যেভাবে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ ঘুরে দাঁড়িয়েছে, এবারও আমরা সেভাবেই ঘুরে দাঁড়াব। আওয়ামী লীগ আবারও ফিনিক্স পাখির মত জেগে উঠবে। এখন দিনের আরাম, রাতের আয়েশ হারাম করে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আগামী নির্বাচনে বিজয়ী হওয়ার জন্য মানসিক ও সাংগঠনিক প্রস্তুতি নিতে হবে।’

দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোছলেম উদ্দিন আহমেদের সভাপতিত্বে সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাংসদ ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, সাবেক মেয়র ও নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী, পটিয়া থেকে নির্বাচত সাংসদ শামসুল হক চৌধুরী, আনোয়ারার সাংসদ সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ, সংরক্ষিত মহিলা সাংসদ বেগম হাসিনা মান্নান ও চেমন আরা তৈয়ব, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান প্রমুখ।