যাঁরা ইসলামের বিরুদ্ধে অবস্থান নেয় তারা আমাদের শত্রু-শফি

প্রকাশ:| শুক্রবার, ১৮ এপ্রিল , ২০১৪ সময় ১০:১৬ অপরাহ্ণ

যাঁরা ইসলামের বিরুদ্ধে অবস্থান নেয় তারা আমাদের শত্রু-শফি
মুহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন,কক্সবাজার প্রতিনিধি
হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের আমির আল্লামা শাহ আহমদ শফি বলেছেন, বর্তমান ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগ কেউ আমাদের শত্রু নয়, যারা ইসলামের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে দেশে নাস্তিকের বিষবাষ্প সৃষ্টি করেছেন তারাই আমাদের শত্রু। হেফাজত ইসলাম এ দেশের মুসলমানদের ঈমান-আক্বিদা সংরক্ষণে শান্তিপূর্ণভাবে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছে। এ আন্দোলনকে শাহবাগের ‘কথিত’ নান্তিকেরা ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে জঙ্গিবাদের ধূঁয়া তুলে অপপ্রচারে নেমেছেন। নাস্তিকদের ‘জারজ’ সন্তান আখ্যা দিয়ে হেফাজতের আমির শাহ আহমদ শফি আরো বলেন, নাস্তিকদের কোন পরিচয় নেই; তাদের নেই কোন ধর্ম বিশ্বাস, দেশের সার্বভৌমত্বের ও বিশ্বাস নেই। তাদের এ দেশ ছেড়ে অন্য যেকোন দেশে পালিয়ে যাওয়া উচিত। তিনি বলেন, বর্তমান আওয়ামী লীগের সরকার যদি আমাদের ১৩ দফা দাবী না মানেন, তাহলে আমাদের করার কিছুই নাই। ইসলাম আক্বিদা রক্ষায় হেফাজতের ১৩ দফা দাবী থেকে আমরা ক্বিয়ামত পর্যন্ত সরে যাবনা। আর যারা কোরান সুন্নাহ মানেনা তারাই নাস্তিক।
শুক্রবার (১৮ এপ্রিল) বিকাল ২টার দিকে কক্সবাজারের পেকুয়া বাজার মাঠে স্থানীয় একামুতুদ্দিন ও পেকুয়া বাজার হকার ব্যবসায়ী সংগঠনের যৌথ আয়োজিত বিশাল ইসলামী মহা-সম্মেলনে প্রধান অথিতির বক্তব্যে হেফাজতের আমির উপরোক্ত কথাগুলো বলেছেন। এসময় হেফাজতের আমির শাহ আহমদ শফি আরো বলেন, দেশে কিছু গোষ্টী কওমী মাদ্রাসা নিয়ে বেফাঁস কথাবার্তা বলে উস্কানি দিচ্ছে, সংঘাত সৃষ্টি করছেন। বলা হচ্ছে কওমী মাদ্রাসায় জঙ্গিবাদের ট্রেনিং দেওয়া হয়; মৌলবাদ সৃষ্টি করা হয়। এসব মিথ্যা ও বিভ্রান্তিকর দাবী করে তিনি আরো বলেন, যারা প্রকাশ্যে অস্ত্র হাতে নিয়ে মানুষ হত্যা করে তাদের সন্ত্রাসী, জঙ্গিবাদ বলা হচ্ছেনা। আর কওমী মাদ্রসার ছাত্র-শিক্ষকদের বিনা কারণে সন্ত্রাসী, জঙ্গি বলা হচ্ছে। এ দেশের লাখ লাখ ধর্মপ্রাণ মুসলমান নর-নারীদের সহায়তায় কওমী মাদ্রাসাগুলোতে দ্বীন ইসলামের শিক্ষা-বিস্তারে কাজ করছে। এখানে কোন ধরনের জঙ্গিবাদের ট্রেনিং হয়না। তিনি চ্যালেঞ্জ ছূঁড়ে দিয়ে বলেন, কওমী মাদ্রাসায় জঙ্গিবাদের ট্রেনিং হয়; সেকথা কেউ প্রমাণ দিতে পারবেন না। অযথা উল্টোপাল্টা কথা বলে এদেশের ইসলাম ও কওমী মাদ্রাসাকে নিয়ে নাস্তিকেরা অপপ্রচারে নেমেছেন। তিনি এসব অপপ্রচার বন্ধে এ দেশের ইসলামপ্রিয় তৌহিদী জনতাকে সোচ্চার হওয়ার জন্য আহবান জানান।

হেফাজত ইসলাম পেকুয়া উপজেলা শাখার সভাপতি মাওলানা জালাল আহমদের সভাপতিত্বে অনুষ্টিত ইসলামী মহা-সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন, পেকুয়া উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ও সদর ইউনিয়ন জামায়াতের আমির মাওলানা নুরুজ্জামান মনজু, হেফাজতের কেন্দ্রীয় নেতা মাওলানা আজিজুল হক আল মাদানী, একামুতুদ্দিন সংগঠনের সভাপতি আবদু রহিম বাদশা, পেকুয়া বাজারের ব্যবসায়ী সমিতির নেতা ডা: এনএম আবুল বশর, হকার ব্যবসায়ী সমিতির নেতা মো: আব্বাস, মাওলানা শেখ ফরিদ, মাওলানা ক্বারী নুর সোলতান, মৌলানা আবুল বশর, ডা: আশেক উল্লাহ, মৌলানা আজগর আলী প্রমূখ। এদিকে হেফাজতের আমির সম্মেলনস্থল ঘিরে কড়া পুলিশি প্রহারা ছিল। বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার প্রতিনিধিদের তৎপরতা ছিল। শেষে হেফাজতের আমির দেশ ও মুসলিম উম্মার শান্তি ও অগ্রগতি কামনা করে মোনাজাত করেন।


আরোও সংবাদ