ম্যান্ডেলার অবস্থা গুরুতর হলেও স্থিতিশীল

প্রকাশ:| রবিবার, ৯ জুন , ২০১৩ সময় ০৫:১৭ অপরাহ্ণ

দক্ষিণ আফ্রিকার ‘জাতির জনক’ কিংবদন্তী নেতা নেলসন ম্যান্ডেলা গতকাল রবিবার দ্বিতীয় দিনের মতো হাসপাতালে কাটিয়েছেন। তার অসুস্থতার জন্য দক্ষিণ আফ্রিকার নাগরিকদের মধ্যে বিষণ্নতা নেমে এসেছে। পাশাপাশি বিশ্ব নেতারা ম্যান্ডেলার অসুস্থতায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে তার সুস্থতা কামনা করেছেন। গতকাল নাগরিকরা ম্যান্ডেলার সুস্থতার জন্য প্রার্থনা করেছেন। খবর বিবিসি, রয়টার্স, টাইমস অব ইন্ডিয়া ও এএফপির।
mandela
শুক্রবার গভীর রাতে ম্যান্ডেলার শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়। শনিবার খুব ভোরে তাকে প্রিটোরিয়ার একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। গত ডিসেম্বর থেকে এ নিয়ে ম্যান্ডেলাকে (৯৪) চতুর্থবারের মতো হাসপাতালে ভর্তি করা হল। শনিবার দক্ষিণ আফ্রিকার প্রেসিডেন্ট জ্যাকব জুমার দপ্তর থেকে এক বিবৃতিতে ম্যান্ডেলার অবস্থা গুরুতর হলেও স্থিতিশীল বলে জানানো হয়। তবে গতকাল প্রেসিডেন্টের দপ্তর থেকে কিছু জানা যায় নি। এ বছর তৃতীয়বারের মতো হাসপাতালে ভর্তি হলেন দক্ষিণ আফ্রিকার বর্ণবাদবিরোধী এই নেতা। তিনি নিজ দেশে আদিবা নামে পরিচিত। জনপ্রিয় এই নেতার সুস্থতা কামনায় জোহানেসবার্গের রেজিনা মুন্ডি ক্যাথলিক গির্জায় রবিবারের প্রার্থনায় শত শত মানুষ জড়ো হয়। সারাদেশের মানুষ যেন নীরব হয়ে গেছে। তারা আশা করছে সংগ্রামী এই নেতা আরো দীর্ঘদিন বেঁচে থাকবেন তাদের মধ্যে। ম্যান্ডেলার স্ত্রী গ্রাসা ম্যাসেল তার পূর্বনির্ধারিত লন্ডন সফর বাতিল করে স্বামীর পাশে রয়েছেন। শনিবার প্রেসিডেন্ট অফিসের মুখপাত্র ম্যাক মহারাজ বলেন, নিউমোনিয়ায় রোগে ভুগলেও ইতিবাচক দিক হলো ম্যান্ডেলা নিজেই শ্বাস-প্রশ্বাস নিতে পারছেন। প্রেসিডেন্ট জ্যাকব জুমা নিয়মিত ম্যান্ডেলার শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে খোঁজ-খবর রাখছেন।

মান্ডেলার দীর্ঘদিনের বন্ধু এন্ড্রু ম্ল্যানগেনির উদ্ধৃতি দিয়ে দেশটির সানডে টাইমস সংবাদপত্র হেডলাইন করেছে, এখন সময় তাকে বিদায় জানানোর। আগামী মাসে তিনি ৯৫ বছরে পা রাখবেন। ম্যান্ডেলা ১৯৯৪ থেকে ১৯৯৯ সাল পর্যন্ত দেশটির প্রেসিডেন্ট ছিলেন। তিনিই দেশটির প্রথম নির্বাচিত কৃষ্ণাঙ্গ প্রেসিডেন্ট। এর আগে শ্বেতাঙ্গ শাসনামলে দীর্ঘ ২৭ বছর তিনি কারাভোগ করেন। শান্তিতে নোবেল বিজয়ী ম্যান্ডেলাকে শেষবারের মত ২০১০ সালের জুলাইয়ে বিশ্বকাপ ফুটবলের ফাইনাল খেলা শুরুর আগে মাঠে দেখা যায়। এরপর তাকে আর জনসম্মুখে দেখা যায়নি। শান্তিতে নোবেলজয়ী আর্চবিশপ ডেসমন্ড টুটুও তার বন্ধু ম্যান্ডেলার দ্রুত আরোগ্যের জন্য প্রার্থনার আহ্বান জানিয়েছেন। ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন এক টুইটার বার্তায় লেখেন, আমি হাসপাতালে ভর্তি নেলসন ম্যান্ডেলার পাশে রয়েছি। হোয়াইট হাউসও তার জন্য শুভ কামনা জানিয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা পরিষদের মহিলা মুখপাত্র কেইটলিন হেডেন বলেন, আমরা ম্যান্ডেলা, তার পরিবার ও দক্ষিণ আফ্রিকার জনগণের পাশে রয়েছি এবং মহান এ নেতার আশু রোগ মুক্তি কামনা করছি।