‘মৌলভী সৈয়দ বঙ্গবন্ধুর আদর্শের নিবেদিত প্রাণ সৈনিক ছিলেন’

প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ১১ আগস্ট , ২০১৬ সময় ০৯:০৬ অপরাহ্ণ

মৌলভী সৈয়দ

চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি আলহাজ্ব নঈম উদ্দিন আহমদ চৌধুরী বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রতিবাদে প্রতিরোধ সংগ্রামে অংশগ্রহণকারী চট্টগ্রাম শহর গেরিলা বাহিনীর প্রধান মৌলভী সৈয়দ আহমদ একজন খাঁটি দেশপ্রেমিক ও বঙ্গবন্ধুর আদর্শের নিবেদিত প্রান সৈনিক ছিলেন। তিনি বঙ্গবন্ধুর হত্যাকে সহজে গ্রহণ করতে পারেন নি। তাই তিনি বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রতিশোধের জন্য সংগ্রামে অবতীর্ণ হয়েছিলেন। মৌলভী সৈয়দ আহমদকে সামরিক সরকার ১৯৭৭ সনে জুলাই মাসে ময়মনসিংহ থেকে গ্রেফতার করে সেনানিবাসে নিয়ে নির্মম নির্যাতনের মাধ্যমে হত্যা করে। যা দেশপ্রেমিক ও বঙ্গবন্ধু প্রেমিকদের কাছে নিষ্ঠুর ও নির্মম একটি ঘটনা। জনাম নঈম উদ্দিন বলেন, বঙ্গবন্ধুরআদর্শকে চিরঞ্জীব রাখার জন্য মৌলভী সৈয়দ আহমদ জীবন উৎসর্গ করে গেছেন। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিকেরা কোন অন্যায়ের কাছে মাথানত করতে জানে না। তার প্রমান মৌলভী সৈয়দ আহমদ ও বগুড়ার খসরু। তিনি বর্তমান প্রজেন্মের মুজিব আদর্শের অনুসারিদের মৌলভী সৈয়দ আহমদ জীবন থেকে শিক্ষা গ্রহণ করে আদর্শবান কর্মী হিসেবে নিজেদের প্রস্তুত করার জন্য আহবান জানান। বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রতিবাদের আত্মদানকারী চট্টগ্রাম শহর গেরিলা বাহিনীর প্রধান চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলার আওয়ামীযুবলীগের সাবেক সভাপতি মৌলভী সৈয়দ আহমদ এর ৩৯ তম আত্মদান বার্ষিকী স্মরণে বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় চার নেতা স্মৃতি পরিষদের উদ্যোগে ১১ আগষ্ট ২০১৬খ্রি. বৃহষ্পতিবার সন্ধ্যায় আন্দরকিল্লাস্থ একটি শ্রমিক সংগঠনের কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত স্মরণ সভায় প্রধান অতিথির ভাষনে তিনি এসব কথা বলেন। সংগঠনের সাধারন সম্পাদক মো. আবদুর রহিম এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত স্মরণ সভায় আলোচনা করেন শিল্পী সুজিত রায়, কতোয়ালী থানা আওয়ামীলীগের নির্বাহী সদস্য আহমদ সোবহান, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট চট্টগ্রাম জেলার সাধারন সম্পাদক খোরশেদ আলম, চট্টগ্রাম সাহিত্য পাঠচক্রের সাধারন সম্পাদক আসিফ ইকবাল, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড চট্টগ্রাম জেলার আহবায়ক ইঞ্জি. পাভেল সিদ্দিকী, মহানগর ছাত্রলীগের সদস্য বোরহান উদ্দিন গিফারী, রাশেদ মাহমুদ পিয়াস, মোস্তফা কামাল, মো. সাখাওয়াত হোসেন, সালেহীনুর জামান চৌধুরী তানভীর, মো. আজিম উদ্দিন, ছাত্রলীগ নেতা চিন্ময়দাশ গুপ্ত, ইরফান জাহাঙ্গীর অভিন, ইমদাদুর রহমান রিয়াদ, মনোজিত দাশ রকেট, মো. রাসেল, জালাল, আনোয়ার হোসেন, মো. আবদুল্লাহ পারভেজ, মো. ইলিয়াছ সানি, আ জ ম রাশেদুজ্জামান হিমেল, অনিক বড়–য়া, মো. আবু রায়হান, আজিজুল হক করিম, দিপ্ত দাশ, মো. আহমদ এস এম এনায়েত উল্লাহ, সফিকুল আমিন, মো. সাজ্জাদুর রহমান, মো. শাহাদাতুর রহমান, সজিব বিশ্বাস, সুব্রত বিশ্বাস, ওসমান সরওয়ার আতাউল কুতুবী, পিংকু সেন, মো. মহিউদ্দিন, ফরহাদুল ইসলাম, এম খায়রুল ইসলাম ছৌধুরী ইমন, মো. কামাল হোসেন, বিকাশ চৌধুরী, মৌলভী সৈয়দ আহমদ এর স্মরন সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ আওয়ামীযুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য সৈয়দ মাহমুদুল হক বলেন, ১৯৭৫ সনের ১৫ আগষ্ট জাতির পিতাকে স্বপরিবারে নির্মমভাবে হত্যা করার পর মৌলভী সৈয়দ আহমদ আমার পিতার আশ্রয়ে থেকে আমাদের বাড়ীতে গোপন আস্তানা গড়ে তুলেছিলেন সেইসময় থেকে তিনি জীবনের পরোয়া না করে বঙ্গবন্ধুর হত্যার প্রতিশোধ নেয়ার জন্য ভারতে সদলবলে পালিয়ে গিয়েছিলেন। দুঃখের বিষয় যে, তৎকালিন ভারত সরকার ১৯৭৭ সালের জুলাই মাসের প্রথম সপ্তাহে মৌলভী সৈয়দ আহমদ এবং তার সহযোগীদের পুশব্যাক করে ময়মনসিংহ বর্ডারে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর হাতে তুলে দেন।