মেয়র সাংবাদিক বান্ধব একজন নতুন প্রজন্মের প্রতিনিধি

নিউজচিটাগাং২৪/ এক্স প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ২৯ মার্চ , ২০১৮ সময় ০৮:৪১ অপরাহ্ণ

বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন ও চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সাথে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়রের মতবিনিময়

চট্টগ্রাম এর সার্বিক উন্নয়ন সরকারের কার্যক্রম ও চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের নানামুখি সেবাধর্মী কার্যক্রমের বিষয়ে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দীন বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন ও চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দের সাথে মতবিনিময় করেন।

২৯ মার্চ বৃহষ্পতিবার, দুপুরে নগরভবনে কেবি আবদুচ ছত্তার মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। মতবিনিময় সভায় বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল, মহাসচিব ওমর ফারুক, চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি আবু সুফিয়ান, বর্তমান সভাপতি কলিম সরোয়ার, চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি নাজিম উদ্দিন শ্যামল, সাধারন সম্পাদক হাসান ফেরদৌস, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি শাবান মাহমুদ, বর্তমান সভাপতি আবু জাফর সূর্য, বিএফইউজে চট্টগ্রাম এর সহ সভাপতি শহীদ উল আলম,যুগ্ম সাধারন সম্পাদক তপন চক্রবর্তী, সাবেক যুগ্ম সাধারন সম্পাদক আসিফ সিরাজ, চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সদ্য বিদায়ী সভাপতি ও পেশাজীবি নেতারিয়াজ হায়দার, সাবেক নেতা এম নাসিরুল হক, রফিকুল বাহার, সহ বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন, চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়ন,চট্টগ্রাম প্রেসক্লাব এর বর্তমান ও সাবেক নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। মতবিনিময় সভায় চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের নানামুখি কার্যক্রমের তথ্যচিত্র বড় পর্দায় উপস্থাপন করা হয়। মতবিনিময়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী বলেন চট্টগ্রাম এর মেয়র সাংবাদিক বান্ধব একজন নতুন প্রজন্মের প্রতিনিধি। চট্টগ্রাম এর মেয়রের সাফল্যের সাথে সাংবাদিকদের সাফল্যও জড়িত। দেশের রাজধানী ঢাকা যদি বিবেচনায় মাথা হয় তাহলে চট্টগ্রাম মানুষের হৃদপিন্ড। যদি কোন কারনে হৃদপিন্ডের রক্তের সঞ্চালন বন্ধ হয়ে যায় তাহলে মানুষের মাথাও অকেজো হয়ে যায়। তিনি সরকার এবং চট্টগ্রাম এর সাফল্যের গাঁথা সাধারন মানুষের কাছে পৌছে দেয়ার আহবান জানান।
মতবিনিময়ে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, সাধারন মানুষ মেয়রের নিকট সবকিছুই প্রত্যাশা করে। যানজট,পানি,বিদ্যুৎ ও গ্যাসের সমস্যা হলেও মেয়রের নিকটই সমাধান পেতে চায়। তিনি তার ২ বছর ৮ মাসের কার্যক্রমের বিশদ ব্যাখ্যা তুলে ধরে বলেন, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন এলাকায় বসবাসকারী হতদরিদ্র,দরিদ্র ও আর্থিকভাবে অক্ষম নাগরিকদের হোল্ডিং ট্যাক্স সর্বনি¤œ পর্যায়ে নিয়ে আসা হয়েছে। দরিদ্রদের জন্য হোল্ডিং রাখাা স্বার্থে বছরে মাত্র ৫১ টাকা হোল্ডিং ট্যাক্স ধার্য করা হয়েছে। তিনি নাগরিক সেবার ক্ষেত্রে গণমাধ্যমের ইতিবাচক ভূমিকা প্রত্যাশা করে বলেন,জনমত গঠনে গণমাধ্যমের ভূমিকা প্রশংসনীয়। স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার ভিত্তিতে তিনি তার কার্যক্রম পরিচালনার বিষয় তুলে ধরে বলেন, নানামুখি প্রতিকূলতা ও চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করে নাগরিক প্রত্যাশা পূরন করতে হচ্ছে। তিনি কাঁচা রাস্তা পাকা করা, সড়ক আলোকায়ন করা,পরিচ্ছন্ন কাজে আমুল পরিবর্তন সাধন করা সহ উন্নয়নের তথ্য চিত্র তুলে ধরে বলেন, নির্ধারিত সেবার বাইরে শিক্ষা ও স্বাস্থ্য খাতে সেবা দিচ্ছে চসিক। এ দুটি খাতে বছরে প্রায় ৫৬ কোটি টাকা ভর্র্তূকি দিতে হয়। নাম মাত্র ফিতে বছরে ১ লক্ষ নগরবাসীর স্বাস্থ্যসেবা দেয়া হয়। এছাড়াও বছরে প্রায় ৬০ থেকে ৭০ হাজার শিক্ষার্থী চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে শিক্ষার সুযোগ পাচ্ছে। তিনি মনে করেন অতীতের যে কোন সময়ের চেয়ে বর্তমানে চট্টগ্রাম পরিবেশ বান্ধব ও বাসপোযুগি একটি নগরী। মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন তার মেয়াদের মধ্যে নাগরিক প্রত্যাশা পূরন এবং তাঁর ভিশনানুযায়ী গ্রিন ও ক্লিন সিটি করার ক্ষেত্রে গণমাধ্যমের সহযোগিতা প্রতশা করেন।


আরোও সংবাদ