মেসি-নেইমারে শীর্ষস্থান পুনরুদ্ধার বার্সার

প্রকাশ:| সোমবার, ২১ সেপ্টেম্বর , ২০১৫ সময় ০৭:৪৫ অপরাহ্ণ

মেসি-নেইমারে শীর্ষস্থান পুনরুদ্ধার বার্সারআগের ১৮ বারের দেখায় বার্সেলোনাকে একবারও হারাতে পারেনি লেভান্তে। বরং বার্সার সামনে পড়লেই গোলবন্যায় ভেসে গেছে দলটি।

তাই রোববার লা লিগায় লেভান্তের বিপক্ষে বার্সার জয়টা অনুমিতই ছিল। দেখার বিষয় ছিল ব্যবধানটা কত গোলের হয়। আগের দুই ম্যাচে লেভান্তেকে ১০ গোল দেওয়া বার্সা এই ম্যাচেও বড় ব্যবধানেই জয় পেয়েছে।

লিওনেল মেসির জোড়া গোল আর নেইমার-মার্ক বারত্রার একটি করে গোলে লেভান্তেকে ৪-১ গোলে হারিয়েছে বার্সা।

লা লিগায় নিজেদের প্রথম চার ম্যাচের চারটিতেই জিতল বার্সা। এর ফলে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী রিয়াল মাদ্রিদকে হটিয়ে পয়েন্ট তালিকার শীর্ষস্থানও পুনরুদ্ধার করেছে কাতালানরা। একদিনের জন্য শীর্ষে ওঠা রিয়াল নেমে গেছে দ্বিতীয় স্থানে। চার ম্যাচে তিন জয়ে তাদের সংগ্রহ ১০ পয়েন্ট। সমান ম্যাচে শতভাগ সাফল্য ধরে রাখা বার্সা ১২ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে অবস্থান করছে।

গত মৌসুমে লা লিগায় দুই ম্যাচে লেভান্তেকে ১০ গোল দিয়েছিল বার্সা। এবারও গোল উৎসবে মেতে উঠতে রোববার রাতে ঘরের মাঠ ক্যাম্প ন্যুয়ে খেলতে নামে বার্সা। এই ম্যাচে লুইস সুয়ারেজকে অবশ্য মাঠে নামাননি বার্সা কোচ এনরিক। উরুগুইয়ান স্ট্রাইকারকে ছাড়াই ম্যাচের শুরু থেকে আক্রমণের পর আক্রমণে লেভান্তের রক্ষণভাগকে ব্যস্ত রাখেন মেসি-নেইমাররা। কিন্তু প্রথমার্ধে লেভান্তের গোলরক্ষক রুবেন মার্টিনেজকে পরাস্ত করে একবারও বল জালে জড়াতে পারেননি তারা।

১৫ মিনিটে গোলপোস্টে প্রথম শট নেন বার্সার সেরা তারকা মেসি। তার শট প্রথমে লেভান্তের এক খেলোয়াড়ের পা লেগে প্রতিহত হলে ফিরতি শট নেন আর্জেন্টাইন তারকা। কিন্তু এবার বলটি ধরে ফেলেন গোলরক্ষক রুবেন। ২২ মিনিটে নেইমারের একটি প্রচেষ্টাও রুখে দেন তিনি।

লেভান্তের দুই খেলোয়াড়ের মাঝে দিয়ে বল টেনে নিয়ে যাচ্ছেন নেইমার

২৮ মিনিটে পাল্টা আক্রমণে একটি ভালো সুযোগ পেয়েছিল লেভান্তে। বক্সে ঢুকেও পোস্টে শট নিতে ব্যর্থ হন অতিথি স্ট্রাইকার রজার। দুই মিনিট পরই বার্সাকে এগিয়ে দেওয়ার দারুণ এক সুযোগ পেয়েছিলেন মুনির এল হাদ্দাদি। অনেকটা দূর থেকে বল টেনে নিয়ে গিয়ে বক্সে ঢুকে শেষ পর্যন্ত লেভান্তের গোলরক্ষককে পরাস্ত করতে ব্যর্থ হন এই স্প্যানিশ ফরোয়ার্ড।

৩৬ মিনিটে মেসিকে আবার গোলবঞ্চিত করেন রুবেন। বক্সের সামনে থেকে মেসির বাঁ পায়ের জোরালো শট বাঁদিকে ঝাঁপিয়ে পড়ে ঠেকিয়ে দেন লেভান্তের স্প্যানিশ গোলরক্ষক। ৪০ মিনিটে দানি আলভেজের ক্রস থেকে বল পেয়ে একটি দারুণ হেড করেছিলেন মেসি। কিন্তু তার হেড ক্রসবারের সামান্য ওপর দিয়ে চলে যায়।

প্রথমার্ধের নির্ধারিত সময়ের শেষ মিনিটে ডি বক্সের সামনে লেভান্তের এক খেলোয়াড় মেসিকে টেনে ধরলে ফ্রি-কিক পায় বার্সা। তবে ফ্রি-কিক থেকে বল পোস্টের বাইরে দিয়ে মারেন মেসি। ফলে গোলশূন্য স্কোরলাইন নিয়েই বিরতিতে যেতে হয় স্বাগতিকদের।

হতাশায় জার্সিতে মুখ লুকাচ্ছেন লিওনেল মেসি

অবশ্য দ্বিতীয়ার্ধের ৫০ থেকে ৬১, মাত্র ১১ মিনিটেই লেভান্তের জালে তিনবার বল জড়ায় বার্সা। ৫০ মিনিটে বার্সাকে ১-০ গোলে এগিয়ে দেন মার্ক বারত্রা। আর তার গোলে সহায়তা করেন দলের সেরা তারকা মেসি। বক্সের ভেতর দাঁড়ানো বারত্রাকে দারুণ এক ক্রস দেন আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড। বুক দিয়ে বল নামিয়ে জালে জড়িয়ে দেন স্প্যানিশ সেন্টার ব্যাক বারত্রা।

ছয় মিনিট পরই দুই ব্রাজিলিয়ান- আলভেজ ও নেইমারের নৈপুণ্যে ব্যবধান দ্বিগুণ করে বার্সা। বক্সের ডান দিক দিয়ে ঢুকে লেভান্তের এক খেলোয়াড়কে কাটিয়ে ক্রস দেন আলভেজ। তার ক্রস ধরতে ব্যর্থ হন লেভান্তের গোলরক্ষক রুবেন। বল পোস্টের সামনেই পড়লে শট নেন নেইমার। ব্রাজিল অধিনায়কের শট প্রথমে লেভান্তের এক খেলোয়াড়ের পায়ে লেগে প্রতিহত হলেও ফিরতি শটে বল জালে জড়িয়ে দেন তিনি।

এরপর ৬০ মিনিটে বক্সের ভেতর লেভান্তের এক খেলোয়াড় নেইমারকে ফেলে দিলে পেনাল্টি পায় বার্সা। পরের মিনিটে পেনাল্টি থেকে স্কোরলাইন ৩-০ করেন মেসি। জোরালো শটে লেভান্তের গোলরক্ষককে ফাঁকি দেন চারবারের ফিফা বর্ষসেরা এই খেলোয়াড়।

পেনাল্টি কিক নিচ্ছেন লিওনেল মেসি, গোলও করেছেন।

পাঁচ মিনিট পর একটি গোল শোধ করেন লেভান্তের ভিক্টর ক্যাসাডিসাস। অবশ্য এই গোলে বার্সা গোলরক্ষক টের স্টেগেনের দায়ও কম ছিল না। বক্সের ভেতর লেভান্তের ফরোয়ার্ড ভেরজার ক্রস পাঞ্চ করতে যান তিনি, কিন্তু ব্যর্থ হন। এই সুযোগে ফাঁকা পোস্টে বল জড়াতে কোনো ভুল করেননি বদলি হিসেবে মাঠে নামা ভিক্টর।

৭৫ মিনিটে বক্সের ভেতর লেভান্তের এক খেলোয়াড় মেসিকে টেনে ধরলে আবার পেনাল্টি পায় বার্সা। কিন্তু পেনাল্টি থেকে এবার গোল করতে ব্যর্থ হন মেসি। বল ক্রসবারের ওপর দিয়ে উড়িয়ে মারেন বার্সা ফরোয়ার্ড। এবার লিগে দ্বিতীয়বারের মতো পেনাল্টি থেকে গোল করতে ব্যর্থ হলেন মেসি। এর আগে নিজেদের প্রথম ম্যাচে পেনাল্টি মিস করেছিলেন তিনি।

অবশ্য পেনাল্টি মেসি করলেও নির্ধারিত সময়ের শেষ মিনিটে অসাধারণ এক গোল করেন মেসি। বক্সের সামনে মেসিকে বল বাড়িয়েছিলেন বারত্রা। বল পেয়ে লেভান্তের তিন খেলোয়াড়কে কাটিয়ে বাঁ পায়ের জোরালো শটে বল জালে জড়িয়ে দেন ফুটবলের খুদে জাদুকর মেসি, পূরণ করেন নিজের জোড়া গোল। ফলে শেষ পর্যন্ত ৪-১ গোলের বড় জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে এনরিকের দল।