মুক্তিযোদ্ধা ভবন নির্মাণ কাজের উদ্বোধন

প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ২০ এপ্রিল , ২০১৭ সময় ১০:৫১ অপরাহ্ণ

প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বোচ্চ সম্মান দিয়ে তাঁদের জীবন মান উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে।
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের পাশাপাশি চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন গৃহহীন মুক্তিযোদ্ধা পুনর্বাসনের লক্ষ্যে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের কল্যাণে গৃহনির্মাণ প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। চসিক এর নিজস্ব অর্থায়নে নগরীর বিভিন্ন ওয়ার্ডের অস্বচ্ছল ১০ জন বীর মুক্তিযোদ্ধাকে তাদের নিজস্ব জায়গায় গৃহনির্মাণ করে দেবে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন। ২০ এপ্রিল ২০১৭ খ্রি. বৃহস্পতিবার, বিকাল ৪ টায়, নগরীর উত্তর কাট্টলীস্থ মরহুম মৌলানা তমিজুর রহমান (মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক সাবেক মন্ত্রী জহুর আহমদ চৌধুরী) এর বাড়ীতে এ কর্মসূচীর আওতায় ‘বীর মুক্তিযোদ্ধা ভবন’ নির্মাণ কাজের শুভ উদ্বোধন করলেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোশেনের মেয়র আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দীন। তিনি ভিত্তি ফলক উম্মোচন ও মোনাজাতের মধ্য দিয়ে ‘বীর মুক্তিযোদ্ধা ভবন’ নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেন। এ উপলক্ষে বীর মুক্তিযোদ্ধা ও সুধী সমাজের সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সামসুদ্দোহা। অনুষ্ঠানে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী, বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ চট্টগ্রাম জেলা কমান্ড এর কমান্ডার মোহাম্মদ সাহাব উদ্দিন, মহানগর কমান্ডের কমান্ডার মোজাফফর আহমদ, মহানগর আওয়ামীলীগের উপদেষ্টা সফর আলী, শেখ মাহমুদ ইসহাক, বীর চট্টগ্রাম মঞ্চের সম্পাদক সৈয়দ ওমর ফারুক, প্যানেল মেয়র-৩ নিছার উদ্দিন আহমদ মঞ্জু, মহানগর আওয়ামীলীগের সদস্য বেলাল আহমদ, কাউন্সিলর সালেহ আহমদ চৌধুরী, জহুরুল আলম জসিম, হাসান মুরাদ বিপ্লব, সংরক্ষিত ওয়ার্ড কাউন্সিলর আবিদা আজাদ, মেয়রের একান্ত সচিব মোহাম্মদ মঞ্জুরুল ইসলাম, আকবরশাহ থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি সাবেক চেয়ারম্যান সুলতান আহমদ, সাধারন সম্পাদক কাজী আলতাফ হোসেন, ১০ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের যুগ্ম আহবায়ক জসিম উদ্দিন চৌধুরী, হাবিবুর রহমান, বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম ইলিয়াছের পুত্র হুমায়ুন কবির বক্তব্য রাখেন। পবিত্র কোরআন থেকে তেলোয়াত করেন আওয়ামীলীগ নেতা আবু সুফিয়ান। অনুষ্ঠানের শুরুতে মেয়র এবং অতিথিদের ফুল ও ক্রেষ্ট দিয়ে বরণ করা হয়। বীর মুক্তিযোদ্ধা ভবনের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির ভাষনে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, বীর মুক্তিযোদ্ধারা দেশের শ্রেষ্ঠ সন্তান। তাঁদের অনেকেই আজও মানবেতর জীবন যাপন করছে। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বোচ্চ সম্মান দিয়ে তাঁদের জীবন মান উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, মুক্তিযোদ্ধাদের মৃত্যুর পর রাষ্ট্রিয় মর্যাদা, মাসিক ভাতা প্রদান,পুনর্বাসন, সন্তানদের সরকারী কোটায় চাকুরী প্রদান সহ নানাভাবে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের প্রনোদনা দিচ্ছে সরকার। মেয়র বলেন, বীর মুক্তিযোদ্ধাদের পরিবারের সন্তানদের সকলকে পিতার পদাঙ্ক অনুসরন করে দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে সুনাগরিক হতে হবে। দুঃখের বিষয় অনেক মুক্তিযোদ্ধার সন্তান কারনে অকারনে বিপথে পা দিচ্ছে যা কারও কাম্য নয়। মেয়র তার ভিশন তুলে ধরে বলেন, নগরবাসী তাকে নির্বাচিত করেছে সেবার জন্য। মেয়র পদকে ব্যবহার করে ভাগ্য পরিবর্তন করার জন্য নয়। চট্টগ্রাম নানাদিক থেকে গুরুত্বপূর্ণ একটি এলাকা। এ চট্টগ্রামে কাঙ্খিত উন্নয়নের পথে যুগে যুগে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে চট্টগ্রামকে পেছনে ফেলে রাখা হয়েছে। আজ সুযোগ এসেছে মাথা উচুঁ করে দাঁড়াবার। তাই চট্টগ্রামের উন্নয়নে নানামূখি কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। মেয়র তাঁর পরিকল্পনা সমূহ বাস্তবায়নে নগরবাসীর সার্বিক সহযোগিতা কামনা করে বলেন, নাগরিকদের প্রদেয় ট্যাক্সের উপর উন্নয়ন নির্ভর করে। তিনি আশা করেন নগরবাসী তাদের দায়িত্ব যথানিয়মে পালন করে সিটি কর্পোরেশনকে সেবার দায়িত্ব পালন করতে সুযোগ করে দেবে।