‘মুক্তিযোদ্ধা ও বঙ্গবন্ধুকে তরুণ প্রজন্মকে জানাতে হবে’

নিউজচিটাগাং২৪/ এক্স প্রকাশ:| শনিবার, ১ সেপ্টেম্বর , ২০১৮ সময় ০৮:২৩ পূর্বাহ্ণ

নগরীর উত্তর পতেঙ্গা কাটগড়স্থ কে-স্কয়ার-২মিলনায়তনে ৩১ আগস্ট শুক্রবার দিনব্যাপি স্বাধীনতার মহান স্থপতি, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৩তম শাহাদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে শিকড় ফাউন্ডেশন চট্টগ্রাম-এর উদ্যোগে আলোচন সভা অনুষ্ঠিত হচ্ছে।
‘বেদনাবিধুর ১৫ আগস্ট ১৯৭৫: আমাদের করণীয়’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে প্রখ্যাত সাংবাদিক ও কলামিস্ট আবদুল গাফ্ফার চৌধুরীর গ্রন্থনায় ‘পলাশী থেকে ধানমন্ডি’ নামক চলচ্চিত্র প্রদর্শনী সকাল ১০টায়, মধ্যাহ্ন ভোজ দুপুর পৌনে দুই টায়।বিকেল সাড়ে ৩টায় আলোচনা সভা।
এতে আলোচক হিসাবে উপস্থিত ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব সৈয়দ হাসান ইমাম। অনুষ্ঠানে সংগঠনের সভাপতি আবদুল মালিক ও সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার সওগাতুল আনোয়ার খান সহ নগর আঃলীগ সদস্য কামরুল হাসান বুলু, প্রাক্তণ শ্রমিক নেতা ও সংস্কৃতি সংগঠক মোঃ ইসহাক,৪১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর হাজী ছালেহ আহম্মদ চৌধুরী,আঃলীগ নেতা মোহাম্মদ আলী, ওয়াহিদুল আলম মাষ্টার,মুক্তিযুদ্ধা আবু তাহের,মুক্তিযুদ্ধা ফসিউল আলম ,আবুল কালাম আবু,সেলিম আফজাল,মোঃ সেলিম, নুরুল আলম,আলী আকবর চৌধুরী,নগর যুবলীগ সদস্য ওয়াহিদ হাসান,শাকিল হারুন,নজরুল ইসলাম মিন্টু,মঈনুল ইসলাম,ছাত্রলীগ নেতা জাহাঙ্গীর হোসেন শান্ত,জাহিদুল হাসান দুর্লভ,নারী নেত্রী মিসেস শারমিন ফারুখ সুলতানা,আফরোজা খানম সহ বিভিন্ন সামাজিক,সাংস্কৃতিক,মানবাধিকার,ক্রীড়া ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
‘বেদনাবিধুর ১৫ আগস্ট ১৯৭৫: আমাদের করণীয়’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে এক মাত্র আলোচক হিসাবে উপস্থিত ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব সৈয়দ হাসান ইমাম।এসময় তিনি বলেন,মুক্তিযোদ্ধা ও বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে আজকের তরুণ প্রজন্ম কে জানাতে হবে। আরা দেশীয় সুষ্ঠ সাহিত্য-সংস্কৃতির উপর শিশু-কিশোরদের চর্চা ভিত্তিক পাঠ্যভাসে মনোনিবাস দিতেই হবে।
তিনি‘পলাশী থেকে ধানমন্ডী ‘র’উপর আলোচনা করতে গিয়ে আবেকপ্লুত হয়ে পড়েন। কি বেদনাবিধুর ছিল তা,১৫ আগস্ট ১৯৭৫সালে যারা সেই সময় ছিলেন বা শুনেছেন শুধু তারাই জানবেন।বাংলাদেশের ইতিহাসে যেন,এই রকম জঘন্যতম ঘটনা আর কারো সময় না ঘটে তার জন্য নাগরিকদের সচেতন হবার দৃঢ় আহবান করেন।
তিনি বাংলার শেষ স্বাধীন নবাব সিরাজের পরাজয় বর্ণনা করতে গিয়ে একদল মীর জাফরও ঘসেটি বেগম কে বর্তমান প্রজন্ম দের ভালো স্মরণ করে আজীবন চিহিৃদ রাখতে বিশেষ অনুরোধ জানান।