মীরসরাইয়ে পুকুর থেকে কলেজ ছাত্রীর গলিত লাশ উদ্ধার

প্রকাশ:| সোমবার, ১১ নভেম্বর , ২০১৩ সময় ১০:১৯ অপরাহ্ণ

মীরসরাইয়ে পুকুর থেকে এ্যানী চৌধুরীর (১৯) নামে এক কলেজ ছাত্রীর গলিত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ্যানী চট্টগ্রাম সিটি (বিশ্ববিদ্যালয়) কলেজে দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী।ভাসতে থাকা তরুণীর লাশ ২
সোমবার দুপুরে উপজেলার ১৫নং ওয়াহেদপুর ইউনিয়নে সাতবাড়িয়া গ্রামের একটি পুকুর থেকে তার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। পরিবারের ধারণা শশুর বাড়ির স্বজনরা এ্যানিকে হত্যার পর লাশ পুকুরে ফেলে দিয়েছে।
পুলিশ জানায়, গত শনিবার থেকে তিনি নিখোঁজ ছিলেন। দুপুরে পুকুরে ভাসমান অবস্থায় লাশ দেখতে পেয়ে স্থানীয়রা খবর দেয়। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে গলিত লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। এ্যানীর গলায় ও হাতে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছেন মিরসরাই থানার উপ-পরিদর্শক মো. আক্কাস।
পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, চট্টগ্রামের বোয়ালখালী উপজেলার সম্ভু কান্তি চৌধুরীর মেয়ে এ্যানী চৌধুরীর সঙ্গে মিরসরাই উপজেলার ওয়াহেদপুর ইউনিয়নের সাতবাড়িয়া গ্রামের তুষার দে এর ছেলে রাজিব দে’র দুই বছর আগে বিয়ে হয়। রাজিব গ্রামীণ ব্যাংকে চাকরি করেছেন।
এ্যানীর বাবা সম্ভু কান্তি চৌধুরী জানান, বিয়েতে এক লাখ টাকার আসবাবপত্র এবং দাবিকৃত তিন ভরি স্বর্ণালঙ্কার মধ্যে যৌতুক হিসেবে আড়াই ভরি স্বর্ণ দেওয়া হয়েছে। কিন্তু আরো স্বর্ণের জন্য বিয়ের পর থেকে স্বামী রাজিব দে, শ্বাশুড়ি মীরা রানী দে, ননদ দীপ্তি আমার মেয়ের ওপর শারীরিক নির্যাতন করতো। তারা এ্যানীকে হত্যা করে পুকুরে ফেলে দিয়েছে।
এ্যানীর মামা তাপষ চৌধুরী জানান, মেয়েটি খুবই মেধাবী। এসএসসিতে আলকরণ সিটি করপোরেশন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে জিপিএ-৫ এবং এইচএসসিতেও চট্টগ্রাম সিটি কলেজ থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে।
মিরসরাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইমতিয়াজ ভূঁইয়া জানান, পুকুর থেকে এ্যানির লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। ময়নাতদন্ত শেষে মৃত্যুর রহস্য জানা যাবে। ঘটনায় এ্যানীর বাবা শম্ভু কান্তি চৌধুরী বাদী হয়ে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছেন।