মিয়ানমার থেকে পেঁয়াজ আমদানী

প্রকাশ:| রবিবার, ৬ সেপ্টেম্বর , ২০১৫ সময় ০৮:১৪ অপরাহ্ণ

পেঁয়াজ-২কক্সবাজারের টেকনাফ স্থলবন্দরে মিয়ানমার থেকে চলতি অর্থ বছরে ১১২৪ মেঃ টন পেঁয়াজ আমদানী করা হয়েছে। আমদানীকৃত পেঁয়াজ ট্রলার থেকে খালাস করে ট্রাকে লোড দিয়ে সরাসরি দেশের বিভিন্ন স্থানে সরবরাহ করা হচ্ছে। তবে ট্রলার যোগে মিয়ানমার থেকে পেঁয়াজ সমূহ আনা হলে বন্দর শ্রমিকরা ট্রলার থেকে পেঁয়াজ খালাস করে ট্রাকে লোড ও বন্দর গুদাম রাখা হচেছ। তবে কয়েক দিনের মধ্যে কয়েক হাজার মেঃ টন পেঁয়াজ আমদানী করা হবে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় ব্যবসায়ীরা।

টেকনাফ স্থল বন্দর শুল্ক কর্মকর্তা হুমায়ুন কবির জানান, ৬ সেপ্টেম্বর রবিবার মিয়ানমার থেকে ৫৫৫ মেট্রিক টন পেয়াঁজ আমদানী করা হয়েছে। এ সব পেয়াঁজ আমদানী কারকরা হচেছ, আবুল হাশেম, আব্দু জব্বার, মীর কামরুজ্জামান, মোঃ জিয়াবুল, শওকত আলম, সয়েদুর রহমান নিপু। তাছাড়া চলতি ২০১৫-১৬ অর্থ বছরে ৫৬৯ মেট্রিক টন পেয়াঁজ আমদানী করা হয়। অপরদিকে গত অর্থবছরে মিয়ানমার থেকে ৩২৪ টন পেঁয়াজ আমদানি করা হয়। তবে দ্বীর্ঘ আট মাস পেয়াঁজ আমদানি বন্ধ থাকার পর চলতি বছরের আগস্ট মাসে প্রথম ১২৭ মেঃ টন পিঁয়াজের চালান আমদানী হয়েছে।
তিনি আরও জানান, দেশে পেয়াঁজের সঙ্কট মোকাবেলায় সরকার মিয়ানমার থেকে পেঁয়াজ আমদানির উর জোর দিয়েছে। এরই লক্ষ্যে স্থানীয় ব্যবসায়ীদের উৎসাহ দেওয়া হচেছ। যার ফলে ব্যবসায়ীরা মিয়ানমার থেকে পেঁয়াজ আমদানি অব্যাহত রেখেছে বলে জানিয়েছেন।

পেঁয়াজ আমদানি কারক মীর কামরুজ্জামান ও সায়েদুর রহমান নিপু জানান, ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি কমে যাওয়ায় স্থানীয় বাজারে পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধি পায়। ফলে পেঁয়াজের দাম স্বাভাবিক এবং কোরবানির ঈদে চাহিদা পূরনে মিয়ানমার থেকে পেঁয়াজ আমদানি করা হচ্ছে। এদিকে পেয়াঁজ আমদানী করা হলেও থেমন বেশী সুবিধা হচেছনা। তবে পেয়াঁজ আমদানীতে সরকারী রাজস্ব না থাকলেও ফ্রিজিং কন্টিনার না থাকায় ২০% নষ্ট হয়ে যায়। যার ফলে ক্রয়-বিক্রয়ে থেমন সুফল দেখা মিলছেনা । এর পরও চাহিদা পূরনে কয়েক দিনের মধ্যে হাজার হাজার মেঃ টন পেঁয়াজ আমদানির করা হবে বলে জানিয়েছেন।

টেকনাফ স্থল বন্দর ইউনাইটেড ল্যান্ড পোর্ট ব্যবস্থাপক মোঃ আবু নূর খালেদ জানান, মিয়ানমার থেকে আমদানিকৃত পেঁয়াজ দ্রুত ট্রলার থেকে খালাস করে ট্রাক যোগে দেশের বিভিন্ন স্থানে সরবরাহ করা হচেছ। এ লক্ষ্যে স্থলবন্দরে ল্যান্ড পোর্ট ব্যবস্থাপনায় সর্বোচচ সহযোগিতা দেওয়া হচেছ বলে জানিয়েছেন।