মিসরে সেনা আল্টিমেটাম প্রত্যাখ্যান মুরসির

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ২ জুলাই , ২০১৩ সময় ১১:০৪ অপরাহ্ণ

মিসরের প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ মুরসি সামরিক বাহিনীর আল্টিমেটাম প্রত্যাখ্যান করে বলেছেন, বর্তমান রাজনৈতিক সংকট নিরসনেmesor_52277 তিনি তার সমঝোতার পরিকল্পনায় অটল রয়েছেন। তিনি সেনা আল্টিমেটামের সমালোচনাও করেছেন। এদিকে দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী গতকাল মঙ্গলবার পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন। বিক্ষোভকারীরা গতকাল প্রেসিডেন্ট প্রাসাদের চারটি মূল দরজা বন্ধ করে দিয়েছে। কায়রোসহ বিভিন্ন শহরে সেনাবাহিনী মোতায়েনের প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে। মুরসির রাজনৈতিক দল মুসলিম ব্রাদারহুড তার সমর্থকদের মুরসির সমর্থনে নিজেদের উত্সর্গ করার আহবান জানিয়েছে। খবর বিবিসি, রয়টার্স, এএফপি ও ইজিপ্ট ইন্ডিপেন্ডেন্ট’র।

হোয়াইট হাউজ গতকাল জানিয়েছে, মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা তানজানিয়া থেকে প্রেসিডেন্ট মুরসিকে ফোন করে সংকট নিরসনের কার্যকর পদক্ষেপ নেয়ার আহবান জানিয়েছে। তিনি জনগণের কণ্ঠস্বরকে শ্রদ্ধা করার জন্য মুরসির প্রতি আহবান জানান। এছাড়া মিসরের সাবেক ১২৯ জন কূটনীতিক বিক্ষোভকারীদের প্রতি সমর্থন জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন। সেনা প্রধান জেনারেল আবদেল ফাত্তাহ আল সিসি সোমবার হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন যে, প্রেসিডেন্ট এই সময়ের মধ্যে সংকটের সমাধান করতে ব্যর্থ হলে সেনাবাহিনী নিজেই ভবিষ্যতের জন্য একটি পরিকল্পনা প্রণয়নের দায়িত্ব নেবে। প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ মুরসি এর উত্তরে বলেছেন, সেনাবাহিনী মিশরের বর্তমান রাজনৈতিক সংকটে হস্তক্ষেপ করলে তা আরও বিভ্রান্তির বীজ বপন করবে। রাজনৈতিক সংকটের সমাধান খুঁজে বের করতে সেনাবাহিনীর সময়সীমা বেঁধে দেয়ার পর প্রেসিডেন্টের পক্ষ থেকে এটাই প্রথম প্রতিক্রিয়া।

মিসরে সেনা অভ্যুত্থানের লক্ষ্যেই সেনাবাহিনী প্রধান এই আল্টিমেটাম দিয়েছেন বলে যে কথা বলা হচ্ছে, সেনাবাহিনী অবশ্য তা অস্বীকার করেছে। এদিকে মিসরে গণবিক্ষোভ শুরুর পর পাঁচজন মন্ত্রী পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন। এদের মধ্যে পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ কামেল আমর বিক্ষোভকারীদের সমর্থন জানিয়ে এবং শিগগিরই প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের দাবিতে গতকাল প্রেসিডেন্টের কাছে পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন। তবে তার পদত্যাগপত্র প্রেসিডেন্ট গ্রহণ করেছেন কিনা সেই সম্পর্কে পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয় কিছু জানায়নি। পদত্যাগকারী এসব মন্ত্রী মুসলিম ব্রাদারহুডের বাইরের দলের। প্রেসিডেন্ট মুরসির পদত্যাগের দাবিতে গত রবিবার রাজধানী কায়রোসহ বিভিন্ন শহরে লাখ লাখ লোক রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ করে। মুরসি-সমর্থক ও বিরোধীদের মধ্যে সংঘর্ষে গত কদিনে অন্তত ১৬ জন নিহত হয়েছে। মিসরীয় টেলিভিশনে একটি রেকর্ড-করা বিবৃতিতে সেনাবাহিনীর প্রধান জেনারেল আবদেল ফাত্তাহ আল-সিসি রাজনৈতিক দলগুলোর প্রতি আহবান জানান যেন তারা জনগণের ইচ্ছাকে মেনে চলেন। তবে তিনি এটাও বলেন যে সেনাবাহিনী রাজনীতি বা সরকারে জড়িত হবে না। তবে বিশ্লেষকদের মতে, সেনাবাহিনীর এই বিবৃতিটি একটি অভ্যুত্থানের আগমনবার্তার মতোই শুনিয়েছে। বিক্ষোভকারীরা গতকাল প্রেসিডেন্ট প্রাসাদের চারটি মূল দরজা বন্ধ করে দিয়ে অবস্থান নিয়েছে। মুরসি পদত্যাগ না করা পর্যন্ত এই অবস্থান চলবে।


আরোও সংবাদ